0 votes
20 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (3 points)
1মিরআতুল মাফাতিহ  বইয়ের ১ম খনডে আছপে যায়তুন গাছ হলো নবী ও আগের নবীগণের দাতন এটা কি সহিহ হাদীস
2 শাইখ অনেকে বলে যে কনুই উপরে পোশাক পরে নামায পড়লে নাকি মাকরুহ
আসলে এ-ই বিষয়ে হাদীস কি বলে,
এবং কোন ফতোয়ার কিতাবের কেন এমন বলা আছে
আমাকে বলুন
3 সাহাবী আয়শা হতে বরনিত,রাসুলআললাহ নফল নামায রত অবসতায় হেটে এসে উনার জনন ঘরের দরজা খুললেন এবং আগের অবসহায় ফিরে গেলেন।এটি তিরমীযির জুমুআ নামায অধ্যায়ের হাদীস।এখন নফল নামায পড়া অবসতায় আমি কি করতে পারি?
4 পিরামিড সমপর্কে ইসলাম কি বলে , এটি কারা বানিয়েছে, এটার কি কোন ঐতুহাসিক লিখা আছে ইসলামে,
এটাতো একটা বৃহত জিনিস, এ-ই ব্যাপারে নবীজি কে ন কিছু  বলেন নি।
যতটা জানা যায় এটা তো মনে হয়ে মূসার নবীর আগের সময়ের,তবে নবীজি মূসার নবীর কথা মিশরের কথা বলার সময় কে ন পিরামিডের কথা বলেন নি।
এত বড় বড় পাথর দিয়ে কারা এটি তৈরী করলো,বনী ইসরায়েল দের তো এমন কোন শক্তি নেই।
নিশ্চয়ই এটি ভাবার বিষয়।
5
তাসবীহ &তাহমিদ মানে কি

তাসবীহ মানে সুবহানাল্লাহ কিন্তু  এখানে তাসবীহ এর বাহ্যিক ও অভ্যনতরীন অর্থটা কি
অনুরুপ তাহমিদ এ-র টাও
6 তাবুতে ছাকিনা কি,এটা নাকি তুরস্কে আছে,
আসলে এটা নিয়ে হাদিস ও আছে

আমি চাইছি তাবুতে ছাকিনা এবং বায়তুল মাকদিসের যেওর বিষয়ে বিস্তারিত বর্ণনা
7নবীজি বলেছেন রসুনে ৭০টি উপকারিতা আছে এটা কি সহীহ হাদিস
৮নবীজি বলেছেন যে পাগড়ী পড়লে ধৈর্য শক্তি বাড়ে যা ফাতহুল বারীতে আছে
এটা কি সহীহ কথা

1 Answer

0 votes
by (269,560 points)
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
আপনার প্রশ্নের জবাবের প্রস্তুতি চলছে। ইনশাআল্লাহ জবাব পেয়ে যাবেন। ধর্য সহকারে বসার জন্য আন্তরিক অভিবাদন। জাযাকুমুল্লাহ। 


প্রথমে নিম্নোক্ত বিষয়গুলোকে একটু মন দিয়ে পড়ার চেষ্টা করেন-
ফতোয়া আরবী শব্দ এবং কুরআন-সুন্নাহ ও ইসলামী শরীয়তের একটি মর্যাদাপূর্ণ পরিভাষা। বিস্তারিত আলোচনার পূর্বে ‘ফতোয়া’ সংক্রান্ত আরো কিছু শব্দের অর্থ জেনে নেওয়া আবশ্যক। যথা : ইস্তিফতা, মুসতাফতী, মুফতী, ইফতা ও দারুল ইফতা। কুরআন-সুন্নাহ ও দ্বীনী ইলমের মাহির আলিমের নিকট কোনো দ্বীনী বিষয়ে ইসলামী শরীয়তের বিধান জিজ্ঞাসা করাকে ‘ইস্তিফতা’ বলে। প্রশ্নকারীকে ‘মুস্তাফতী’ বা ‘সাইল’ বলে। বিশেষজ্ঞ আলিম শরীয়তের দলীলের আলোকে যে বিধান বর্ণনা করেন তাকে ‘ফতোয়া’ বলে। বিধান বর্ণনাকারী আলিমকে মুফতী এবং তার এই কাজ অর্থাৎ প্রশ্নকারীর প্রশ্নের উত্তরে শরীয়তের বিধান বর্ণনা করাকে ‘ইফতা’ বলে। যে প্রতিষ্ঠান এই দায়িত্ব পালন করে তাকে ‘দারুল ইফতা’ বলে। 


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...