0 votes
1,199 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by
আখেরি চাহা সোম্বার দিন দুআ লিখা পানি খাওয়া আর গোসল করার বৈধতা সম্পর্কে জানতে চাচ্ছি।

1 Answer

0 votes
by (269,560 points)
বিসমিহি তা'আলা

আখেরী চার সোম্বা

এর ভিত্তি হ’ল- মৃত্যুর পাঁচদিন পূর্বে বুধবার রাসূল (ছাঃ)-এর দেহের উত্তাপ ও মাথাব্যথা খুব বৃদ্ধি পায়। তাতে তিনি বারবার বেহুঁশ হয়ে পড়তে থাকেন। অতঃপর তাঁর মাথার উপরে পানি ঢালা হ’লে তিনি একটু হালকা বোধ করলে মসজিদে গিয়ে যোহরের ছালাত আদায় করেন এবং মুছল্লীদের উদ্দেশ্যে ভাষণ দেন’

(বুখারী হা/৪৪৪২; ইবনু হিশাম ২/৬৪৯) ।
এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উক্ত দিবস ঘটা করে পালন করা এবং সরকারী ছুটি ঘোষণা করা,গোসল করা,দু'আ লিখা ইত্যাদি সম্পূর্ণরূপে বিদ‘আত।

ছাহাবায়ে কেরামের যামানায় এরূপ প্রথার কোন অস্তিত্ব ছিল না। রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বলেন, ‘কেউ যদি এমন কোন আমল করে, যার প্রতি আমাদের নির্দেশ নেই তা প্রত্যাখ্যাত’

(বুখারী হা/২৬৯৭; মুসলিম হা/১৭১৮; মিশকাত হা/১৪০) ।

(সংগৃহীত)

আল্লাহ-ই ভালো জানেন।

পরামর্শ প্রদাণে

মুফতী ইমদাদুল হক

ইফতা বিভাগ, IOM.


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

by
জাযাকাল্লাহু খায়রান
by
আখেরি চাহার সোম্বা উপলক্ষে বায়তুল মোকাররম মসজিদে যদি দোয়া মাহফিল হয় যেটা বাংলাদেশের জাতীয় মসজিদ সেটা কি জাতীয়ভাবে বিদআত পালন হয়ে গেল না? আমরা সাধারন জনগন কি সেক্ষেত্রে বিভ্রান্তিতে পরব না ? তাহলে কি বায়তুল মোকাররম মসজিদ আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাতের অন্তর্ভুক্ত না ? 
by (269,560 points)
বুঝি নাই মুহতারাম??????????
জাযাকাল্লাহ
by
দুঃখিত প্রশ্নটা বুঝাতে পারি নাই। উপরে আপনাদের ফতোয়াতে প্রতিয়মান হয় যে আখেরি চাহার সোম্বা পালন করা বিদআত। আজ নিউজে দেখলাম বায়তুল মোকাররম মসজিদ আখেরি চাহার সোমবার উছিলায় দোয়া মিলাদ মাহফিল এর আয়োজন করছেন, একটা জাতীয় মসজিদ হওয়ার পর ও। তারা কি বিদআত করছেন না?
by (269,560 points)
জ্বী, বিদআত।

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...