0 votes
54 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (5 points)
closed by
ক) আল্লাহ  বলেছেন যে সফল হবে আমি তাকে এমন এক পুরষ্কার দিব , যা কোন চোখ দেখেনি, কান শুনেনি,  কোন অন্তর কল্পনাও করতে পারে নি।
আবার রাসুল সা তিনি জান্নাত দেখেছেন। যেমন তিনি আল্লাহ কে প্রশ্ন করেছে ওই সুন্দর প্রাসাদ কার আল্লাহ বলেছে তোমার,  তাছাড়া মেরাজে  জান্নাত ও জাহান্নাম স্বচোক্ষে দেখেছেন কিছু কিছু বর্ননাতে পাওয়া যায়। কিন্তু আল্লাহ যে বলল কোন চোখ দেখে নাই এমন কি অন্তর কল্পনাও করে নাই
দুই জনের কথা দুই রকম কিভাবে হল?

খ) এখন কেন আউয়াল ওয়াক্তে আজান দেয় না. বিশেষ করে গরম কালে.ধরেন ফযর হয় ৪ তাই কিন্তু আজান দেয় ৪.৩০ এ।এখন কোনো ভাই বা বোন যদি আজান এর জন্য ওয়েট করে এর মধ্যে যদি ওই বোন এর মাসিক হয় বা ওই ভাই মারা যাই তাহলে এই দায় কে নিবে .কারণ সেও ভাই তো আজান এর জন্য বইটি করলো কিন্তু এর মাঝে তার মির্তু হলো. বোন তো আজান এর জন্য অপেক্ষা করলো এর মাঝে মাসিক হলো.এখন যদি আওয়াল অক্ত আজান দিতো তাহলে অন্ত তো নামাজ তা আদায় করতে পারতো

c)মানুষ মারা গেলে যে কালিমা বা আয়াত লিখিত গিলাফ দিয়ে ঢেকে রাখে এই তা কত টুকু যুক্তি সংগত ?কারণ জীবিত অবস্থায় মানুষ কতই না সম্মান করে মরে গেলে কেন এই আয়াত বা কালিমা পায়ের কাছে থাকে ?ইসলামে এর ভিত্তি কি? যদি ভিত্তি না থাকে তাহলে এই গিলাব কেন মসজিদ

d) হাসর এর মাঠে যদি আল্লাহ ইমাম আবু হানিফা কে প্রশ্ন করে তুমি কি কাও কে বলসো তোমাকে মানতে/ ফলো করতে ?তিনি যদি উত্তর দেন যে না আমি কাও কে বলি নাই তাহলে আমরা যে ফলো করি তাহলে আমাদের কি হবে?আমি হানাফী বলে কি আমাকে হানাফী এ মানতে হবে আমি যদি অন্য কোনো মাঝাব বা সলফে এর থেকে উত্তম পাই সেটা কি আমি নিতে পারবো না?যদি না পারি তাহলে কি আমি এক মুখী হয়ে গেলাম না যেটা কে অন্ধ ফলো বলে?

e)বালাগাল উলা বি কামালিহি
কাশাফাদ্দু জাবি জামালিহি
হাসনাত জামিউ খিসালিহি
সাল্লু আলাইহে ওয়াআলিহি
বালাগাল উলা বি কামালিহি

বালাগাল উলা বি কামালিহি
কাশাফাদ্দু জাবি জামালিহি
হাসনাত জামিউ খিসালিহি
সাল্লু আলাইহে ওয়াআলিহি
বালাগাল উলা বি কামালিহি

এইটা যে পড়া হয় বিভিন্ন মিলাদ যা দুরুত হিসেবে. এই দুরুদ কই পাইলো ?আর আল্লাহ রাসূল ত বলেছেন তার নাম কেউ মিথ্যা বললে সে জাহান্নামী তাহলে কেন মসজিদ এর ইমাম গণ এই মীলাদ পড়েন. ইমাম রা যদি এই রকম করে তাহলে আমরা সমাজে কে কে ফলো করবো

f)ফাজায়েলে আমল হাদিস আসছে আদম যাও তুমি ৬০ হাজার বার হজ করেছেন , কিন্তু আমরা জানতে পারি উনি বেঁচে ছিলেন এ ১০০০ বছর ,তার জীবন দশায় যদি এক বার করেও হজ করে তাহলে ৬০ হাজার কিভাবে হয়? যদি না হয় তাহলে কেন ওই সব বই গুলো কে পরিবর্তন করা হয় না

g) রাসুল বলেছেন যে বেক্তি ইচ্ছা কিত নামাজ ছেড়ে দেয় সে কাফের, কাফের এর মুমিন এর মাঝে পার্থ ক সালাত. এই হাদিস সহি .এই হাদিস এর ভিত্তিতে বিবাহ ভেঙ্গে যাই. এমন অবস্থায় আমাদের করণীয় কি ? তাহলে কি সমাজে সবাই কাফের হয়ে গিয়েছে যারা আদো নামাজ ইচ্ছা করে ছেড়ে দেয়?তাদের বিবাহ বাতিল? কিন্তু এই সাইড হানাফি মাজহাবে খুব হাল্কা করে নিয়ে অন্য দেখা দেয় কিন্তু কেন
closed
by (283,200 points)
জাযাকাল্লাহ, বাংলায় লিখার জন্য ধন্যবাদ।

1 Answer

+1 vote
by (283,200 points)
selected by
 
Best answer
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
(ক)
(১) বিশুদ্ধ মাতানুযাী রাসূলুল্লাহ সাঃ স্বপ্নযোগে এসব প্রদর্শন করেছিলেন।চর্মচক্ষু দ্বারা এসব দেখেননি।

(২) আল্লাহ বলছেন, দেখেননি।তবে আল্লাহ যাকে ইচ্ছা তাকে দেখাতে পারেন। আল্লাহ শুধুমাত্র রাসূলুল্লাহ কে প্রদর্শন করিয়েছিলেন।
(৩) রাসূলুল্লাহ সাঃ কে সংক্ষিপ্ত আকারে জান্নাত জাহান্নাম দেখিয়েছেন। আল্লাহর উদ্দেশ্য হল, বিস্তারিত ভাবে আমি কাউকে দেখাইনি।


(খ)
যেহেতু হাদীসে প্রত্যেকটা নামাযের মুস্তাহাব ওয়াক্ত বলে দেয়া হয়েছে, তাই এই মুস্তাহাব ওয়াক্তের পূর্বে যদিও ওয়াক্তের ভিতর তার মৃত্যু হয় বা মাসিক শুরু হয়, তাহলে তার কোনো গোনাহ হবে না।এবং এই নামাযের দায়ভাড়ও তাকে নিতে হচ্ছে না। তবে সে পরবর্তীতে সুস্থ হলে, তাকে উক্ত নামায কাযা করতে হবে।


(গ)
মৃতব্যক্তির শরীর উপর কালেমা সম্ভলিত চাদর ইত্যাদি রাখার কোনো নিয়ম বা পদ্ধতি শরীয়তে নাই।সুতরাং এটা পরিত্যাজ্য। 

(ঘ)
এখানে ইমাম আবু হানিফা প্রশ্ন করার বা না করার ইস্যু কেন চলে আসছে? আল্লাহ বলছেন যে, যারা বিজ্ঞজনদের অনুসরণ করতে।তাই আমরা ইমাম আবু হানিফা বা ইমাম শাফেয়ীর অনুসরণ করছি।
হ্যা, ইমাম আবু হানিফা ব্যতিত অন্য যে কোনো ইমামকে অনুসরণ করতে পারবেন।তবে সর্বক্ষেত্রে এক ইমামকেই অনুসরণ করতে হবে।নতুবা নফসের প্রবৃত্তির অনুসরণের সম্ভাবনা থেকে যাবে।

(ঙ)
এটা শেখ সাদীর কবিতা।এই কবিতার অর্থ খুবই সুন্দর।তবে একে সুন্নাহ দ্বারা বর্ণিত মনে করা যাবে না।ওয়াজ মাহফিলে এটা বলার পূর্বে শেখ সাদীর নাম উচ্ছারণ করাই শ্রেয়,যাতে মানুষের মনের মধ্যে ভূল ধারণা না হয়।

(চ)
আদম আঃ এর হজ্ব করা নিয়ে ফাজাইলে আ'মল গ্রন্থে যে বিবরণ এসেছে, তা নির্ভরযোগ্য বিশুদ্ধ সনদ দ্বারা প্রমাণিত নয়।


(ছ)
নামায পরিত্যাগ করা কবিরা গোনাহ।আর আহলে সুন্নত ওয়াল জামাতের আকিদা বিশ্বাস হল, কবিরাহ গোনাহ করলে মানুষ ইসলাম থেকে খারিজ হবে না।যা হাদীস দ্বারা প্রমাণিত। সেজন্যই এই নামায ত্যাগ সম্পর্কীয় হাদীসের ব্যখ্যা উলামায়ে কেরাম এভাবে করে থাকেন।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

by (5 points)
করেছি বাংলায়
by (283,200 points)
সংযোজন করা হয়েছে।

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...