0 votes
17 views
in সালাত(Prayer) by (10 points)
১/বর্তমান পরিস্থিতিতে ঈদের জামাতে না গেলে গুনাগার হব কি না?
২/ঈদের সালাত বাসায় আদায় করা যাবে কিন?? যদি যায় তাহলে নিয়ম টা কি হবে?  খোতবা দিতে হবে কিন??  যেহেতু আমাদের বাসায় খোতবা দিতে পারে এমন কেউ নাই, এ অবস্থায় আমরা কি করতে পারি? [ যেহেতু চট্টগ্রামে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ খুব বেড়ে গেছে তাই আমরা বাসায় আদায় করার ব্যপারে চিন্তা করছিলাম ]

1 Answer

+1 vote
by (32.3k points)

বিসমিহি তা'আলা

জবাবঃ-

জুম্মার নামায আর ঈদের নামাযের বিধান প্রায় সমান সমান।ঈদের নামাযের জন্য ঠিক সেভাবে জামাত শর্ত, যেভাবে জুম্মার নামাযের জন্য জামাত হওয়া শর্ত। সুতরাং জুম্মার নামাযের মত ঈদের নামাযেও ইমাম ব্যতীত সর্বনিম্ন  তিনজন হওয়া শর্ত।ঈদগাহ বা মসজিদের পরিবর্তে লকডাউনের কারণে ঘরেও ঈদের নামায পড়া যাবে।

জুম্মার নামায আর ঈদের নামাযে কিছুটা পার্থক্য রয়েছে-
জুম্মার সময় খুতবাহ আগে আর নামায পরে।কিন্তু ঈদের জামাতে নামায আগে আর খুতবাহ পরে।জুম্মার নামাযে খুতবাহ ওয়াজিব।কিন্তু ঈদের নামাযে খুতবাহ সুন্নত।
সূত্র-ফাতাওয়া বিভাগ, দারুল উলূম দেওবন্দ,ফাতাওয়া নং


করোনার ধরুণ লকডাউনের সময় জুম্মার নামায সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন- 1172

 

ঈদের নামাযের পদ্ধতি হল,

প্রথমে তাকবীরে তাহরিমা দিয়ে রাকাত বাঁধা হবে।তারপর হাত বেঁধে ছানা পড়া হবে।তারপর রা'ফে ইয়াদাঈন করে তিনবার তাকবীর দেয়া হবে।প্রত্যেকে তাকবীরের সময় হাতকে ছেড়ে দেয়া হবে।(আবার বাঁধা যেতেও পারে)তারপর সূরায়ে ফাতেহা এবং সাথে আরেকটা সূরা পড়ে এবং রুকু সেজদার মাধ্যমে প্রথম রা'কাতকে সম্পূর্ণ করা হবে।তার পর দ্বিতীয় রা'কাতের জন্য দাড়িয়ে সূরায়ে ফাতাহা এবং সাথে আরেকটা সূরা পড়া হবে।সূরা সম্পন্ন করার পর পূর্বের ন্যায় তিনবার রা'ফে ইয়াদাঈন করে তাকবীর দেয়া হবে।অতঃপর রু'কু সেজদা এবং বৈঠকের মাধ্যমে নামাযকে সম্পন্ন করা হবে।
আল্লাহ-ই ভালো জানেন।

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনার দ্বীন সম্পর্কীয় প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য রয়েছে আমাদের  অভিজ্ঞ ওলামায়কেরাম ও মুফতি সাহেবগনের একটা টিম যারা ইনশাআল্লাহ প্রশ্ন করার ২৪-৪৮ ঘন্টার সময়ের মধ্যেই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন।

Related questions

...