0 votes
15 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (3 points)
আসসালামু আলাইকুম
প্রশ্নঃ
আমি এবং আমার  স্বামী,আমরা দুই জন দুই জায়গাতে থাকি, বিয়ের পর আমারা দুইজন দুইজনকে স্বামী- স্ত্রী সুলভ ২/৩ বার স্পর্শ  করলেও আমাদের মাঝে সহবাস করা হয় নাই,এবং  এমন কোন জায়গায় আমরা সময় ও কাটাই নাই,যেখানে চাইলেই সহবাস করা যাবে।

কিন্তুু মোবাইলের ইনবক্সে ২/৩ বার ২ জনই ২ জনকে কিছু গোপন ছবি পাঠিয়েছিলাম।

বিভিন্ন কারনে যখনই আমাদের ঝগড়া  হয়  মাঝেমাঝেই আমার স্বামী আমাকে বলে আমাকে আর ফোন,ম্যাসেজ দিবা না,দিলে তালাক।(প্রত্যেকবারই নিয়ত ছাড়া,না বুঝে,শুধুমাত্র আমাকে ভয় দেখিয়ে  ঝগড়া  থামিয়ে দেওয়ার  জন্য)

তখন আমি আর তাকে ফোন,ম্যাসেজ দেই না।

কিন্তুু পরে সে যখন আমাকে ফোন দেয় এবং আমি তাকে ঐ ব্যাপারে জিজ্ঞেস  করলে বলে আমি আমার কথা তুলে নিছি,
ফোন- ম্যাসেজ দিও সমস্যা  নাই,তার এই কথা শুনার পর আমি পুনরায় তাকে ফোন - ম্যাসেজ দিতাম।

এমন পরিস্থিতি  আমাদের দুজনের মাঝে বহুবার হয়েছে(তিনবারের বেশী)।

 প্রত্যেকবারই আমি যখন বলেছি তোমার কথা তুলে নাও  এবং সে যখন নিজ মুখ দিয়ে বলেছে ,  আমি আমার কথা তুলে নিছি তারপর আমি  তাকে
ফোন- ম্যাসেজ দিয়েছি।
এতে কি আমাদের  মাঝে কোনবার তালাক পতিত হয়েছে?
আমি যদি আমার  স্বামীর সাথেই  পরবর্তীতে ঘর- সংসার করতে চাই,তবে করণীয় কি?

1 Answer

0 votes
by (102,720 points)
জবাব
وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته 
بسم الله الرحمن الرحيم 


হাদিস শরিফে  এসেছেঃ
ثلث جدهن جد هزلـهن جد النكاح والطلاق والرجعة 

অর্থ : তিনটি বিষয় এমন রয়েছে যা গোস্বায় হোক বা হাসি ঠাট্টায় হোক সর্বাবস্থায় কার্যকরী হয়ে থাকে। বিবাহ্, তালাক ও রজয়াত।” (তিরমিযী শরীফ, আবূ দাউদ শরীফ, মিশকাত শরীফ/২৮৪) 
.
★★শরীয়তের বিধান হলো এব বৈঠকে ৩ তালাক দেওয়া হোক,বা একাধিক বৈঠকে,এক শব্দে ৩ তালাক দেওয়া হোক বা একাধিক শব্দে ৩ তালাক দেওয়া হোক,সব ছুরতেই ৩ তালাকই পতিত হয়ে যাবে।       

তিন তালাক দেবার পর উক্ত মহিলা আর নিজের স্ত্রী থাকে না। পর মানুষ হয়ে যায়। এটিই অমোঘ বিধান। তাই তালাক দেবার আগে চিন্তা করতে হয়। রাগ হলেই তালাক দিতে হবে, এ মানসিকতা পরিহার করতে হবে।

★প্রশ্নে উল্লেখ রয়েছে যে   ""বিভিন্ন কারনে যখনই আমাদের ঝগড়া  হয়  মাঝেমাঝেই আমার স্বামী আমাকে বলে আমাকে আর ফোন,ম্যাসেজ দিবা না,দিলে তালাক""

সুতরাং প্রশ্নে উল্লেখিত ছুরতে আপনার উপর তিন তালাক পতিত হয়ে গিয়েছে।      
,
আপনার সেই স্বামী যে বলেছে যে আমি উক্ত কথা তুলে নিয়েছি,এর দ্বারা কোনো বিধান রহিত হবেনা।
এ কথা বলে কোনো লাভ হবেনা।
তালাক হবেই।

এক্ষেত্রে সূরত একটিই বাকি আছে। তা হল, আপনার  অন্যত্র বিবাহ হতে হবে।তারপর সেই স্বামীর সাথে স্বাভাবিক ঘর সংসার করতে হবে। 

এমনকি শারিরীক সম্পর্ক হতে হবে। তারপর সেই স্বামী যদি আপনাকে তালাক দেয়, তারপর ইদ্দত শেষ হয়, তাহলেই কেবল আপনি আবার উক্ত ১ম স্বামীকে বিবাহ করতে পারবেন। এবং আবার ঘর সংসার করতে পারবেন। এছাড়া দ্বিতীয় কোন রাস্তা খোলা নেই।

মহান আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেনঃ    

فَإِن طَلَّقَهَا فَلَا تَحِلُّ لَهُ مِن بَعْدُ حَتَّىٰ تَنكِحَ زَوْجًا غَيْرَهُ ۗ فَإِن طَلَّقَهَا فَلَا جُنَاحَ عَلَيْهِمَا أَن يَتَرَاجَعَا إِن ظَنَّا أَن يُقِيمَا حُدُودَ اللَّهِ ۗ وَتِلْكَ حُدُودُ اللَّهِ يُبَيِّنُهَا لِقَوْمٍ يَعْلَمُونَ [٢:٢٣٠] 

তারপর যদি সে স্ত্রীকে (তৃতীয়বার) তালাক দেয়া হয়, তবে সে স্ত্রী যে পর্যন্ত তাকে ছাড়া অপর কোন স্বামীর সাথে বিয়ে করে না নেবে,তার জন্য হালাল নয়। অতঃপর যদি দ্বিতীয় স্বামী তালাক দিয়ে দেয়,তাহলে তাদের উভয়ের জন্যই পরস্পরকে পুনরায় বিয়ে করাতে কোন পাপ নেই। যদি আল্লাহর হুকুম বজায় রাখার ইচ্ছা থাকে। আর এই হলো আল্লাহ কর্তৃক নির্ধারিত সীমা;যারা উপলব্ধি করে তাদের জন্য এসব বর্ণনা করা হয়। [সূরা বাকারা-২৩০]

বিস্তারিত বিধান জানুনঃ 


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

by (3 points)
জনাব,আমি আপনাদের দেওয়া প্রশ্ন- উত্তর  গুলো পড়ে  জানতে পেরেছি যে সহবাস ছাড়া  তালাক হয়ে  গেলে,পুনরায়  তাকে আবার বিবাহ করা যায়,জনাব আমাদের  তো সহবাস হয়  নাই,তাহলে আমরা কি পারবো না?
আমরা কি সেই নিয়মের  মধ্যে  পরবো না?

জনাব,দয়া করে please বলেন।
দয়া করে বলেন।

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...