+1 vote
12 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (51 points)
আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহি ওয়া বারকাতুহু।

১. রামাদানে কুরআন খতম দিলে অন্যান্য মাসের চেয়ে অধিক সাওয়াব পাওয়া যায়, এই সাওয়াবের কোনো নির্দিষ্ট পরিমাণ হাদিসে বলা আছে কি?

২. এই সাওয়াব পাওয়ার জন্য কুরআন পড়া কি রামাদানেই প্রথম থেকে শুরু করে শেষ করতে হবে? নাকি আগের কিছু পড়া থাকলে রামাদান মাসে খতম দিলেই হবে?
কিছু মেয়ে দিনে এক পারার বেশি পড়তে পারেন না। আবার রামাদানে হায়েজ হলে কয়েকদিন গ্যাপ পড়ে যায়। এক্ষেত্রে কেউ যদি আগে থেকে কিছু পড়ে রাখে এবং রামাদানে খতম দেয়, সে কি রামাদানে কুরআন খতম দেয়ার পূর্ণ সাওয়াব পাবে?

৩. আমরা কোনো ভিডিওতে লাইক, কমেন্ট করলে সেগুলোও আমাদের আমলনামায় লেখা হয়। যেসব কনটেন্ট আল্লাহর কাছে অপছন্দনীয়, সেগুলো দেখা বা লাইক দেয়া থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করি।
ইউটিউবে Bangla Free Quran Education নামে একটা চ্যানেল আছে, যেখানে কার্টুনের মাধ্যমে বিভিন্ন শায়েখদের প্রয়োজনীয়  লেকচার, দুআ, আরবি ভাষা শেখানো হয়। তবে কার্টুনগুলোর মাথা, হাত, পা শরীর থেকে আলাদা থাকে, চোখ নাক স্পষ্ট বোঝা যায় না।
ভিডিওগুলো দেখে অনেক বেশি উপকৃত হই আলহামদুলিল্লাহ। শায়েখ মেহেরবানি করে আপনি একটু দেখে বলবেন, আমি কি ভিডিওগুলোতে লাইক দিতে পারবো কিনা। কার্টুন বিধায় আমি বুঝতে পারছি না লাইক দেয়া উচিত কিনা। আসলে লাইক দিলে ভিডিওগুলো সেইভ হয়, এজন্যই জানতে চাওয়া।

৪. কোনো বোনের যদি অনেক দ্বীনি বই থাকে, এবং ঘরের মধ্যেই একটা লাইব্রেরির মতো হয়ে যায়। এমন অবস্থায় সে তার আশেপাশের বোনদেরকে বইগুলো ধার হিসেবে পড়তে দেয় এবং বইয়ের নিরাপত্তার জন্য প্রত্যেককে একটি লাইব্রেরি কার্ড দিয়ে রাখে। ঐ কার্ডের মাধ্যমে বোনেরা বিনামূল্যে বইগুলো পড়তে পারে। কার্ডগুলো ছাপানোতে খরচ হয় বিধায়, যদি কার্ডের জন্য দশ-বিশ টাকার একটা নির্দিষ্ট হাদিয়া নেয়া হয় , শুধু কার্ড নেয়ার সময়, তখন ঐ টাকাগুলো কি হালাল হবে বোনটির জন্য? নাকি ফ্রিতেই কার্ড দিতে হবে?

জাযাকাল্লাহু খইরন

1 Answer

0 votes
by (79,200 points)
জবাব
وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته 
بسم الله الرحمن الرحيم 


(০১)
হাদীস শরীফে রমজান মাসে কুরআন তিলাওয়াত এর অনেক গুরুত্ব রয়েছে    
,
রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম জিবরীল আ.-এর সাথে রমযানের প্রত্যেক রাতে কুরআন মজীদ দাওর করতেন। 
,
হাদীস শরীফে এসেছে- ‘হযরত জিবরীল আ. রমযানের শেষ পর্যন্ত প্রত্যেক রাতে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর সাথে সাক্ষাত করতেন এবং রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁকে কুরআন মজীদ শোনাতেন।’-সহীহ বুখারী, হাদীস ১৯০২
,
এ মাসে যেকোনো নেক আমলে অনেক ছওয়াব রয়েছেঃ
,
নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন- ‘রমযানের ওমরা হজ্জ সমতুল্য।’ -জামে তিরমিযী, হাদীস ৯৩৯; সুনানে আবু দাউদ, হাদীস ১৯৮৬

অন্য এক বর্ণনায় (যা সনদের দিক থেকে দুর্বল) বিষয়টি এভাবে বর্ণিত হয়েছে যে, ‘রমযান মাসে যে ব্যক্তি একটি নফল আদায় করল সে যেন অন্য মাসে একটি ফযর আদায় করল। আর যে এ মাসে একটি ফরয আদায় করল সে যেন অন্য মাসে সত্তরটি ফরয আদায় করল। -শুআবুল ঈমান ৩/৩০৫-৩০৬
,
অর্থাৎ এ মাসে নফল আদায় করলে অন্য মাসের ফরযের ন্যায় ছওয়াব হয়। আর এ মাসের এক ফরযে অন্য মাসের ৭০ ফরযের সমান ছওয়াব পাওয়া যায়।
.
★কুরআন শরীফের বিশেষত্ব হচ্ছে, একটি হরফ তেলাওয়াতে দশটি নেকি হাসিল হয়। রমজানের বিশেষত্ব হচ্ছে, একটি নেকি দশ থেকে সাতশত পর্যন্ত বৃদ্ধি পায়। 
ইসলামী স্কলার গন বলেন যে  আপনি যদি মাহে রমজানে কুরআন শরীফের একটি হরফ তেলাওয়াত করলেন। দশটি নেকি পেলেন। অতঃপর রমজানের কারণে তা দশ থেকে সাতশ পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। 

রমজান মাসে অধিক পরিমাণ কুরআন তেলাওয়াত করা এবং কুরআন খতম করতে সচেষ্ট থাকা মুস্তাহাব। তবে সেটা ফরজ নয়। অর্থাৎ খতম করতে না পারলে গুনাহ হবে না। তবে অনেক সওয়াব থেকে সে ব্যক্তি বঞ্ছিত হবেন।
,
 আবু হুরায়রা (রাঃ) থেকে ইমাম বুখারি (৪৬১৪) বর্ণিত হাদিস: “জিব্রাইল (আঃ) নবী সাল্লাল্লাহু আলাই্হি ওয়া সাল্লামের নিকট প্রতিবছর একবার কুরআন পাঠ পেশ করতেন। আর যে বছর তিনি মারা যান সে বছর দুইবার পেশ করেন।”
,
ইবনে কাছির (রহঃ) ‘আল-জামে ফি গারিবিল হাদিস’ গ্রন্থে (৪/৬৪) বলেন:
অর্থাৎ তিনি তাঁকে যতটুকু কুরআন নাযিল হয়েছে ততটুকু পাঠ করে শুনাতেন। 
,
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের অনুসরণে সলফে সালেহিনের আদর্শ ছিল রমজান মাসে কুরআন খতম করা। ইব্রাহিম নাখায়ি বলেন: আসওয়াদ রমজানের প্রতি দুই রাত্রিতে একবার কুরআন খতম করতেন।[আস- সিয়ার, (৪/৫১)]
,
কাতাদা (রহঃ) সাতদিনে একবার কুরআন খতম করতেন। রমজান মাস এলে প্রতি তিনদিনে একবার কুরআন খতম করতেন। শেষ দশ রাত্রি শুরু হলে প্রতি রাতে একবার কুরআন খতম করতেন।[আস সিয়ার, (৫/২৭৬)]

মুজাহিদ (রহঃ) থেকে বর্ণিত আছে যে, তিনি রমজানের প্রতি রাত্রিতে কুরআন খতম করতেন।[নববির ‘আত তিবয়ান (পৃষ্ঠা-৭৪)] তিনি বলেন: উক্তিটির সনদ সহিহ।
মুজাহিদ (রহঃ) থেকে বর্ণিত আছে যে, আলী আল-আযদি রমজানের প্রতি রাত্রিতে একবার কুরআন খতম করতেন।[তাহযিবুল কামাল (২/৯৮৩)]
,
(০২)
পুরো মাসে পূর্ণ কুরআন শরিফ খতম করা মুস্তাহাব।
যদি মাসের কিছু পড়া থাকে,তাহলে সেটি না মিলিয়ে নতুন করে শুরু করবেন।
তাহলেই মুস্তাহাব বিধানের উপর আমল হবে।
,
তবে তা না করে যদি সেটা সহ কুরআন পড়ে,তাহলে  প্রতিটি হরফ পড়ার যে ছওয়াব ছিলো,সেই ছওয়াব অবশ্যই পাবে।
,
(০৩)
যদি উক্ত ভিডিওর মধ্যে শরীয়ত বহির্ভূত (গান বাজনা,ইত্যাদি)  কোনো কিছু না থাকে, তাহলে আপনি লাইক দিতে পারেন। 
.
কার্টুন দেখার বিধান জানুনঃ

ভিডিও দেখা নিয়ে বিস্তারিত জানুনঃ 
,
(০৪)
হ্যাঁ, তার জন্য উক্ত টাকা নেওয়া হালাল হবে।
কোনো সমস্যা নেই।  


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...