আইফতোয়াতে ওয়াসওয়াসা সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হবে না। ওয়াসওয়াসায় আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা ও করণীয় সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন

0 votes
77 views
in সালাত(Prayer) by (15 points)
আসসালামু আলাইকুম আমার কয়েকটি প্রশ্ন ছিল এর উত্তর দিলে উপকৃত হবো।


১.নামাজে অনেক সময় সিজদাহ সংখ্যা নিয়ে সন্দেহ হয়। কিন্তু পরে আমি নামাজের মধ্যেই সিউর হই যে,আমি দুইটি সিজদাহ দিয়েছি কিন্তু আমার সিজদাহ সংখ্যা মনে থাকে না তাই অনিচ্ছায় সন্দেহ এক্ষেত্রে আমি যদি এই সন্দেহ নিয়েই নামাজ শেষ করি তবে কোন সমস্যা হবে?


২.নামাজ সিজদাহ দেওয়ার পর মনে হলো যে একটি সিজদাহ দিয়েছি। কিন্তু আমি সন্দেহ হওয়া সত্ত্বেও  সিজদাহ না দিয়ে শেষ রাকাআতে গিয়ে সিজদাহ আদায় করলাম। অর্থাৎ মনে করুন আমি যোহরের দ্বিতীয় রাকাতে সিজদাহ দেওয়ার পর সন্দেহ হলো যে আমি সম্ভবত একটি সিজদাহ দিয়েছি তখন আমি তাশাহুদ পড়ে আর নামাজ চালিয়ে যাই এবং শেষ রাকাতে নামাজের দুইটি সিজদাহ দেওয়ার পর ২য় রাকাতের সিজদা আদায় করে তারপর তাশাহুদ,দরূদ ,দুআ মা সুরা পড়ে


সাহু সিজদা দিয়ে নামাজ শেষ করলাম আমার নামাজ হয়েছে?


৩.আবার, মনে করুন আমি যোহরের দ্বিতীয় রাকাতে সিজদাহ দেওয়ার পর তাশাহুদ পড়ে যখন ৩য় রাকাতে যাই তখন বুঝতে পারি যে,আমি একটি সিজদাহ দিয়েছি তখন আমি নামাজ চালিয়ে যাই এবং শেষ রাকাতে নামাজের দুইটি সিজদাহ দেওয়ার পর ২য় রাকাতের সিজদা আদায় করে তারপর তাশাহুদ,দরূদ ,দুআ মা সুরা পড়ে


সাহু সিজদা দিয়ে নামাজ শেষ করলাম আমার নামাজ কি আদায় হয়েছে?


৪.নামাজে মনে মনে কিছু উচ্চারণ করলে নামাজ কি ভেঙ্গে যাবে?

৫.দুই সিজদাহর মাঝে রব্বিগফিরলি এর গাইন কে ভুল করে গলার মাঝখানে উচ্চারণ করে ফেলেছি এতে নামাজে কোন সমস্যা হবে?

৬.আল্লাহু আকবার বলার সময় আকবার এর আলিফ যদি অনিচ্ছাকৃতভাবে গলার মাঝখানে উচ্চারিত হয় তাহলে কি নামাজে সমস্যা হবে?

উল্লেখ্য এখানে আলিফ সরাসরি আইন এর মত উচ্চারিত হয় না।

৭.নামাজে যেসব দুআ পড়া সুন্নত বা মুস্তাহাব যেমন,সানা পড়া,দরূদ, দুআ মাসুরা,দুই সিজদাহর মাঝখানে দুআ পড়া ইত্যাদি ক্ষেত্রে হরফ যদি এমনভাবে উচ্চারিত হয় যাতে অর্থ বিকৃত হয়ে যায় তবে কি নামাজে কোন সমস্যা হবে?

জাযাকাল্লাহু খাইরান

1 Answer

0 votes
by (681,160 points)
ওয়া আলাইকুমুস-সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু। 
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
আলহামদুলিল্লাহ!
নামাযে রা'কাত বা সেজদা সংখ্যা নিয়ে সন্দেহ হলে,যে ঐ ব্যক্তির কি এটা প্রথম হয়েছে না মাঝেমধ্যে এমন হয়।যদি প্রথমবার বা কদাচিৎ হয়ে তাহলে উনি আবার প্রথম থেকে শুরু করে নতুনভাবে পড়ে নিবেন।কিন্তু যদি কারো প্রায় এরকম সন্দেহ হয়,তাহলে উনার বিধান হলো,
"وإن كثر الشك" تحرى و "عمل" أي أخذ "بغالب ظنه" لقوله صلى الله عليه وسلم: "إذا شك أحدكم فليتحر الصواب فليتم عليه" وحمل على ما إذا كثر الشك للرواية السابقة "فإن لم يغلب له ظن أخذ بالأقل" لقوله صلى الله عليه وسلم: "إذا سها أحدكم في صلاته فلم يدر واحدة صلى أو اثنتين فليبن على واحدة فإن لم يدر اثنتين صلى أو ثلاثا فليبن على اثنتين فإن لم يدر ثلاثا صلى أو أربعا فليبن على ثلاث ويسجد سجدتين قبل أن يسلم"
যদি কারো নামাযে সংখ্যা নিয়ে প্রায় সন্দেহ হয়,তাহলে উনি তাহাররি(সঠিক বিষয়ে পৌছার জন্য চিন্তাভাবনা করা) করে গালিবে যান্ন(প্রবল ধারণা) এর উপর আ'মল করবেন।কেননা রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেন,যদি কেউ নামাযে সংখ্যা নিয়ে সন্দেহ করে,তাহলে সে যেন সঠিক বিষয়ে পৌছার চেষ্টা করে সে হিসেবে নামাযকে সম্পন্ন করে।তবে যদি চিন্তাভাবনার পরও কোনো সংখ্যার দিকে মনে প্রবল ধারণা না জন্মে, তাহলে সে যেন,কম সংখ্যাকে ধরে নিয়ে সেই হিসেবে নামাযকে সম্পন্ন করে।কেননা রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেন,যদি কেউ নামাযে সন্দেহ করে,এক রা'কাত পড়েছে না দুই রা'কাত পড়েছে? তাহলে সে যেন এক রা'কাত ধরে নিয়ে সেই হিসেবে নামাযকে সম্পন্ন করে।এভাবে দুই/তিন বা তিন/চার নিয়ে সন্দেহ হলে কম সংখ্যাকে ধরে নিয়ে সে নামাযকে সম্পন্ন করবে।এবং শেষে যেন সে সেজদায়ে সাহু দেয়।(মারাকিল ফালাহ-১/৪৭৭) এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন- https://www.ifatwa.info/1797



সু-প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনী ভাই/বোন!
(১)সিজদাহ সংখ্যা নিয়ে সন্দেহ হওয়ার পর চিন্তা করতে গিয়ে যদি তিন তাসবিহ পরিমাণ সময় ব্যয় হয়ে যায়, তাহলে সাহু সিজদা ওয়াজিব হবে, নতুবা সাহু সিজদা ওয়াজিব হবে না।

(২) নামাযের প্রত্যেক রা'কাতে দুইটি সিজদা ফরয। নামাযের কোনো ফরযকে ইচ্ছাকৃত তরক করা যাবে না। যেহেতু আপনার একটি সিজদা ভুলে তরক হওয়ার পর পরবর্তীতে মনে হয়েছে, মনে হওয়ার সাথে সাথেই সিজদা না দেয়া মাকরুহ।তবে নামায আদায় হবে, এবং শেষে সাহু সিজদা ওয়াজিব হবে।

(৩) মনে হওয়ার সাথে সাথে সিজদা আদায় না করা মাকরুহ।তবে আপনার নামায হয়ে যাবে যেহেতু আপনি সাহু সিজদা দিয়েছেন।


(৪)নামাজে মনে মনে তিলাওয়াত উচ্চারণ করলে কেরাত আদায় হবে না।বরং উক্ত নামাযকে দোহড়িয়ে পড়তে হবে। এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন- https://www.ifatwa.info/2570

(৫)দুই সিজদাহর মাঝে রব্বিগফিরলি এর গাইন কে ভুল করে গলার মাঝখানে উচ্চারণ করে ফেলা হলে  এতে নামাজের কোনো সমস্যা হবে না।

(৬)আল্লাহু আকবার বলার সময় আকবার এর আলিফ যদি অনিচ্ছাকৃতভাবে গলার মাঝখানে উচ্চারিত হয়, তাহলেও নামাজে কোনো সমস্যা হবে না।

(৭)নামাজে যেসব দুআ পড়া সুন্নত বা মুস্তাহাব যেমন,সানা পড়া,দরূদ, দুআ মাসুরা,দুই সিজদাহর মাঝখানে দুআ পড়া ইত্যাদি ক্ষেত্রে হরফ যদি এমনভাবে উচ্চারিত হয় যাতে অর্থ বিকৃত হয়ে যায় তবেও নামাজে কোন সমস্যা হবে না। 


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

by (681,160 points)
সংযোজন ও সংশোধন করা হয়েছে।

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন। এই প্রশ্ন ও উত্তরগুলো আমাদের ফেসবুকেও শেয়ার করা হবে। তাই প্রশ্ন করার সময় সুন্দর ও সাবলীল ভাষা ব্যবহার করুন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি স্থানীয় মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

Related questions

...