0 votes
49 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (51 points)

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ।

সূরা আল-আ‘রাফে বলা আছে, "অতঃপর আমি অবশ্যই তাদের সম্মুখ, পশ্চাৎ, ডান ও বাম দিক হতে তাদের নিকট আসব এবং তুমি তাদের অধিকাংশকেই কৃতজ্ঞ পাবে না।"

এই আয়াতে শুধুমাত্র "সম্মুখে" কিভাবে আসবে বা আক্রমন করবে তার সংক্ষিপ্ত ব্যাখ্যা ২ লাইনের মধ্যে দিলেই খুব উপকৃত হব উস্তাজ।

জাযাকাল্লাহু খাইর। 

1 Answer

0 votes
by (30.9k points)
বিসমিহি তা'আলা

সমাধানঃ-
আল্লাহ তা'আলা সূরা আ'রাফের ১৬/১৭ নং আয়াতে বলেন,

ﻗَﺎﻝَ ﻓَﺒِﻤَﺎ ﺃَﻏْﻮَﻳْﺘَﻨِﻲ ﻷَﻗْﻌُﺪَﻥَّ ﻟَﻬُﻢْ ﺻِﺮَﺍﻃَﻚَ ﺍﻟْﻤُﺴْﺘَﻘِﻴﻢَ

সে বললঃ আপনি আমাকে যেমন উদভ্রান্ত করেছেন, আমিও অবশ্য তাদের জন্যে আপনার সরল পথে বসে থাকবো।

ﺛُﻢَّ ﻵﺗِﻴَﻨَّﻬُﻢ ﻣِّﻦ ﺑَﻴْﻦِ ﺃَﻳْﺪِﻳﻬِﻢْ ﻭَﻣِﻦْ ﺧَﻠْﻔِﻬِﻢْ ﻭَﻋَﻦْ ﺃَﻳْﻤَﺎﻧِﻬِﻢْ ﻭَﻋَﻦ ﺷَﻤَﺂﺋِﻠِﻬِﻢْ ﻭَﻻَ ﺗَﺠِﺪُ ﺃَﻛْﺜَﺮَﻫُﻢْ ﺷَﺎﻛِﺮِﻳﻦَ

এরপর তাদের কাছে আসব তাদের সামনের দিক থেকে, পেছন দিক থেকে, ডান দিক থেকে এবং বাম দিক থেকে। আপনি তাদের অধিকাংশকে কৃতজ্ঞ পাবেন না।

সূরা আ'রাফ-১৬/১৭

উপরোক্ত আয়াতে বিভিন্ন দিকের আলোচনা এসেছে।এ সমস্ত দিক সম্পর্কে মুফাস্সিরীনে কেরামের দু'টি ব্যখ্যা রয়েছে।যথা-

(এক)

এ সমস্ত দিক দ্বারা ঐ সমস্ত দিকই উদ্দেশ্য যা বাস্তবেই মানুষের ঘিরে রেখে আছে।

যেমন তাফসীরে জালালাইনে বর্ণিত রয়েছে,

{ﺛُﻢَّ ﻵَﺗِﻴَﻨﻬﻢْ ﻣِﻦْ ﺑَﻴْﻦ ﺃَﻳْﺪِﻳﻬﻢْ ﻭَﻣِﻦْ ﺧَﻠْﻔﻬﻢْ ﻭَﻋَﻦْ ﺃَﻳْﻤَﺎﻧﻬﻢْ ﻭَﻋَﻦْ ﺷَﻤَﺎﺋِﻠﻬﻢْ}
ﺃَﻱْ ﻣِﻦْ ﻛُﻞّ ﺟﻬﺔ ﻓﺄﻣﻨﻌﻬﻢ ﻋﻦ ﺳﻠﻮﻛﻪ ﻗﺎﻝ ﺑﻦ ﻋَﺒَّﺎﺱ ﻭَﻻَ ﻳَﺴْﺘَﻄِﻴﻊ ﺃَﻥْ ﻳَﺄْﺗِﻲ ﻣِﻦْ ﻓَﻮْﻗﻬﻢْ ﻟِﺌَﻼَّ ﻳَﺤُﻮﻝ ﺑَﻴْﻦ اﻟْﻌَﺒْﺪ ﻭَﺑَﻴْﻦ ﺭَﺣْﻤَﺔ اﻟﻠَّﻪ ﺗَﻌَﺎﻟَﻰ

সামন-পিছন,ডান-বাম ইত্যাদি দ্বারা উদ্দেশ্য হল সকল দিক।অর্থাৎ শয়তান বলছে আমি সকল দিক থেকে মানুষকে বাধা প্রদাণ করবো।

ইবনে আব্বাস রাযি বলেন,সবদিক থেকে শয়তান আসা সম্ভব হলে ও উপরের দিক থেকে আসতে পারবে না।কেননা এক্ষেত্রে বান্দা এবং রহমত এর মধ্যকার  দেয়াল স্থাপিত  হয়ে যাবে।

আবু-বকর জাস্সাস রাহ বলেন,

"وقيل: "من كل جهة يمكن الاحتيال عليهم"

সকল দিক থেকেই বাধা প্রদাণ করা শয়তানের জন্য সম্ভব।

(আহকামুল কুরআন)

(দুই)

এই আয়াতে চার টি দিক দ্বারা চারটি জিনিষ উদ্দেশ্য।যথাক্রমে দুনিয়া,আখেরাত,নেকীসমূহ,পাপসমূহ।

এই ব্যখ্যা হযরত ইবনে আব্বাস রাযি থেকে বর্ণিত রয়েছে।

ইবনে কাসির রাহ বলেন,

عن ابن عباس: أما من بين أيديهم فمن قبل دنياهم، وأما من خلفهم فأمر آخرتهم، وأماعن أيمانهم فمن قبل حسناتهم، وأما عن شمائلهم فمن قبل سيئاتهم" انتهى.

সামন দিকের অর্থ হল,দুনিয়া।পিছন দিকে অর্থ হল, আখেরাত।ডান দিকের অর্থ হল, নেকী। এবং বাম দিকের অর্থ হল, গোনাহ।

আল ওয়াজিয ফি তাফসীরিল কিতাবিল আযীয এ বিভিন্ন দিকের তাৎপর্য এভাবে বর্ণিত রয়েছে যে,

﴿ ثم لآتينَّهم من بين أيديهم ﴾ يعني: آخرتهم التي يردون عليها فَأُشكِّكهم فيها ﴿ ومن خلفهم ﴾ دنياهم التي يُخَلِّفونها فأُرغِّبهم فيها ﴿ وعن أيمانهم ﴾ أُشبِّه عليهم أمر دينهم ﴿ وعن شمائلهم ﴾ أُشهِّي لهم المعاصي.

অর্থাৎ
সামন দিক-

ভবিষ্যৎকালে আসা দিন সমূহ তথা আখেরাত সম্পর্কে আমি মানুষকে সন্দিহান করে গোমরাহ করবো।

পিছন দিক-

পিছনে রেখে আসা দিন তথা দুনিয়া সম্পর্কে আমি মানুষকে লোভনীয় করে তুলে পাপাচারে লিপ্ত করবো।

ডান দিক-

আমি দ্বীনের বিষয় সমূহকে তাদের সামনে সাদৃশ্যপূর্ণ করে তুলব,অতঃপর তারা মনগড়া জিনিষকে দ্বীন মনে করতে থাকবে।

এবং বাম দিক-

আমি গোনাহকে তাদের জন্য মজাদার করে তুলবো।অতঃপর তারা গোনাহকে ইনজয় করতে থাকবে।

আল্লাহ-ই ভালো জানেন।

উত্তর লিখনে

মুফতী ইমদাদুল হক

ইফতা বিভাগ, IOM.

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনার দ্বীন সম্পর্কীয় প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য রয়েছে আমাদের  অভিজ্ঞ ওলামায়কেরাম ও মুফতি সাহেবগনের একটা টিম যারা ইনশাআল্লাহ প্রশ্ন করার ২৪-৪৮ ঘন্টার সময়ের মধ্যেই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন।

...