আইফতোয়াতে ওয়াসওয়াসা সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হবে না। ওয়াসওয়াসায় আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা ও করণীয় সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন

0 votes
143 views
in পরিবার,বিবাহ,তালাক (Family Life,Marriage & Divorce) by (7 points)
edited by
আসসালামু আলাইকুম হুজুর।
১।কোন মেয়ে আর ছেলে যদি বলে তুমি কি আমাকে বিয়ে করবা।তখন যদি বলে হা করব।এইটা কি ইজাব কবুল হওয়ার মত কথা?

২।মোহরানা নিরধারন ছাড়া মানে আগে পড়ে সে সময় কখনো মোহরানা নিরধারন না করে ইযাব কবুল করার মত কথা বললে কি বিয়ে বৈধ হব।।
৩।এমনি কোন সাক্ষি নির্বাচন করা হই নাই।মানে এইভাবে কাওরে বলা হই নাই যে আমারা বিয়ে করব তুমরা সাক্ষি। এমত অবস্থায় যদি মানুষের সামনে ইযাব কবুল হওয়ার মত কথা বলে।তাইলে কি বিয়ে হবে

 ক।।এবং যাদের সামনে বলছে বলে মনে হই তাদের যদি জিজ্ঞাসা করার পর তারা বলে এরকম কিছু হইছে বলে মনে হই না।আর ছেলেও বলছে আমার কিছু মনে নাই।তাইলে কি অই ছেলের কাছ থেকে তালাক নিতে হবে?সে যদি দিতে না চাই বলে যে বিয়েই করলাম না তালাক দিব কেন।তাকে যদি লোক দিয়া বইলা তালাক নেওয়া হই তাইলে কি কোন সমস্যা হবে?
৪। তালাক নেওয়ার পর  এখন মেয়ে যার সাথে বিয়ে হইছে তার সাথে ৩ মাস পর আবার বিয়ে করতে হবে?

৫।বিয়ে যদি না হয়ে থাকে তাহলে এভাবে তালাক নেওয়া পরের হাসবেন্ড কে আবার বিয়ে করা। মানে চিন্তা মুক্ত হওয়ার জন্য। তাইলে কি তার বিবাহিত জিবনে কোন সমস্যা হবে।
৬।মেয়ে টা সেই ছেলেকে বলছে তালাক দিতে। বলছে তুমি না দিলে আমি নিজেই কিন্তু নিজেকে দিব।আমি নিজেই নিজেকে ছাইড়া দিলাম। এইটা বলার সময় তার যদি হাসবেন্ড  এর কথা মনে হই তাইলে কি তার হাসবেন্ড  এর সাথে তালাক হয়ে যাবে।বউ অধিকার প্রাপ্ত ছিল কিনা তা জানা নাই। সে ত অই ছেলেকে এসব এস এম এস করসে।হাসবেন্ড  কে ত বলে নাই।তার উদ্দেশ্য ছিল অই ছেলে কে বলা।কিন্তু হুট কইরা যদি হাসবেন্ড এর কথা মাথায় আইসা পড়ে।আসলে মেয়েটা ওয়াস ওয়াসা গ্রস্ত। আর মাসালা নেওয়ার জন্য এভাবে লেখাতে কি কোন সমস্যা হবে?

৭।মেয়ে যদি ছেলেকে ফোন এ কবুল বলে।ছেলে যদি সেই বলা তার ববন্ধুদের শুনাই।কিন্তু মেয়ে তা যানে না এতে কি বিয়ে হয়ে যাবে?

৮।ধরেন বউ অধিকার প্রাপ্ত। কিন্তু তার কোন বিষয় স্পষ্ট মনে নাই।তাই তার যা নিয়া সন্দেহ হইছে চিন্তা দূর করার জন্য যদি তা বলে মাসালা নেয় কিন্তু সত্যি যদি সেটা না ঘটে এবং মাসালাই যদি তা..ক..আসে তাইলে কি সত্যি তালাক হবে?মাসালা নেওয়ার জন্য তা..কের কথা বল্লেও ত তালাক হবে না তাই না হুজুর।যদি সত্যি না হইয়া থাকে শুধু চিন্তা মুক্ত হওয়ার জন্য বইলা মাসালা নিলে কি কোন সমস্যা হবে?

৯।কোন কোন কথা দারা ইজাব কবুল হওয়া বুজাই।যদি বলতেন তাহলে অনেক উপকার হইত।আসলে কোন কথা বললে ইযাব কবুল হই বুজতেছি না

১০।কেউ যদি হালাল মনে করে সহবাস করে তাইলে মেয়েকে মোহরানা দিতে হই।এখন মেয়ে যদি কোন দাবি না করে আর তার অভিভাবক রা এই বিষয় না যানে তাইলে আর ছেলেও যদি কিছু না দেয়  তাইলে কি করনিয়। কারো কোন দাবি না থাকলে তাও মোহরানা দিতে হবে এমন কিছু।না দিলে কি ক্ষতি হবে?

1 Answer

0 votes
by (701,080 points)
ওয়া আলাইকুমুস-সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু। 
বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম।
জবাবঃ- 


মহান আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেনঃ- 

وَ اسۡتَشۡہِدُوۡا شَہِیۡدَیۡنِ مِنۡ رِّجَالِکُمۡ ۚ فَاِنۡ لَّمۡ یَکُوۡنَا رَجُلَیۡنِ فَرَجُلٌ وَّ امۡرَاَتٰنِ مِمَّنۡ تَرۡضَوۡنَ مِنَ الشُّہَدَآءِ اَنۡ تَضِلَّ اِحۡدٰىہُمَا فَتُذَکِّرَ اِحۡدٰىہُمَا الۡاُخۡرٰی

আর তোমরা তোমাদের পুরুষদের মধ্য হতে দু’জন সাক্ষী রাখ, অতঃপর যদি দু’জন পুরুষ না হয় তবে একজন পুরুষ ও দু’জন স্ত্রীলোক যাদেরকে তোমরা সাক্ষী হিসেবে পছন্দ কর, যাতে স্ত্রীলোকদের মধ্যে একজন ভুলে গেলে তাদের একজন অপরজনকে স্মরণ করিয়ে দেয়।
(সুরা বাকারা ২৮২)

হাদিস শরিফে এসেছে, 

قوله صلى الله عليه وسلم : ( لا نكاح إلا بولي وشاهدي عدل ) رواه البيهقي من حديث عمران وعائشة ، وصححه الألباني في صحيح الجامع (7557) 

বিয়ের আকদের সময় সাক্ষী রাখতে হবে। রাসুলুল্লাহ  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, “অভিভাবক ও দুইজন সাক্ষী ছাড়া কোন বিবাহ নেই।” [তাবারানী কর্তৃক সংকলিত, সহীহ জামে (৭৫৫৮)]।

★বাহরুর রায়েক গ্রন্থে আছেঃ-

وَتَمَامُهُ فِي الْفَصْلِ السَّابِعَ عَشَرَ فِي النِّكَاحِ بِالْكِتَابَةِ مِنْ الْخُلَاصَةِ، وَقَيَّدَ بِالْإِيجَابِ وَالْقَبُولِ؛ لِأَنَّهُ لَا يَنْعَقِدُ بِالْإِقْرَارِ فَلَوْ قَالَ بِحَضْرَةِ الشُّهُودِ: هِيَ امْرَأَتِي، وَأَنَا زَوْجُهَا، وَقَالَتْ: هُوَ زَوْجِي، وَأَنَا امْرَأَتُهُ لَمْ يَنْعَقِدْ النِّكَاحُ؛ لِأَنَّ الْإِقْرَارَ إظْهَارٌ لِمَا هُوَ ثَابِتٌ، وَلَيْسَ بِإِنْشَاءٍ 
সারমর্মঃ
ইজাব কবুলের সাথে বিবাহকে মুকায়্যাদ করা হয়েছে।কেননা ইজাব কবুল ব্যাতিত বিবাহ শুদ্ধ হয়না।
সুতরাং কেহ যদি সাক্ষীদের সামনে বলে যে সে আমার স্ত্রী আর আমি তার স্বামী,আর মহিলাটিও বলে যে সে আমার স্বামী আর আমি তার স্ত্রী,তাহলে বিবাহ শুদ্ধ হবেনা।
কেননা স্বীকারোক্তি বলা হয় যাহা আগে থেকে প্রমানিত, সেটি প্রকাশ করা,নতুন ভাবে কোনো কিছু হওয়া নয়।
(বাহরুর রায়েক-৩/৯০)

হেদায়া গ্রন্থে আছেঃ

النكاح ينعقد بالإيجاب والقبول بلفظين يعبر بهما عن الماضي لأن الصيغة وإن كانت للإخبار وضعا فقد جعلت للإنشاء شرعا دفعا للحاجة وينعقد بلفظين يعبر بأحدهما عن الماضي وبالآخر عن المستقبل مثل أن يقول زوجني فيقول زوجتك لأن هذا توكيل بالنكاح والواحد يتولى طرفي النكاح الھدایۃ، ج:1، ص:185، ط:دار احياء التراث العربي - بيروت - لبنان
সারমর্মঃ
বিবাহ ইজাব কবুল দ্বারা সম্পন্ন হয়,দুটির একটি অতিতকাকাল সূচক বাক্য হবে,আরেকটি বর্তমান কাল বুঝায় এমন বাক্য হতে হবে।

হেদায়া গ্রন্থে আছেঃ 
وینعقد بلفظ النکاح والتزویج والہبة والتملیک والصدقة )
সারমর্মঃ  
বিবাহ,তাযয়িজ,হিবা,তামলিক,সদকাহ এই জাতীয় বাক্য গুলি দ্বারা বিবাহ সম্পন্ন হয়।

বিস্তারিত জানুনঃ- 

★প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনি বোন,
(০১)
এটা ইজাব কবুল হওয়ার মতো বাক্য নয় 

(০২)
হ্যাঁ, বিবাহ বৈধ হবে। 

(০৩)
সাক্ষ্যিরা শুনেছে কিনা,তাদের থেকে জেনে নিতে হবে।
তারা উভয়ে যদি বলে যে তারা শোনেনি,(আর এক্ষেত্রে অন্য কোনো সাক্ষীও যদি না থাকে) সেক্ষেত্রে সেই বিবাহ হয়নি।

তাই তালাকও নিতে হবেনা।

(০৪)
আগেরটা বিয়ে হয়ে থাকলে সেক্ষেত্রে তালাক নেয়ার পর তিন হায়েজ অতিবাহিত হওয়ার পর পুনরায় বিবাহ পড়িয়ে নিতে হবে। 

(০৫)
তাহলে এর জন্য তার বিবাহিত জীবনে কোনো সমস্যা হবেনা।

(০৬)
মাসয়ালা নেয়ার জন্য এভাবে লেখাতে সমস্যা হবেনা।
মেয়ে তালাকের অধিকার প্রাপ্ত না হলে এক্ষেত্রে তালাক হবেনা।

মেয়ে তালাকের অধিকার প্রাপ্ত কিনা,জানার জন্য স্বামীকে প্রশ্ন করতে হবে।

(০৭)
এতে বিয়ে হয়ে যাবেনা।

(০৮)
সমস্যা হবেনা।
তবে নিজের উপর তালাক নেয়ার মতী বাক্য ব্যবহার করলে অন্যের দিকে ইঙ্গিত করে প্রশ্ন করতে হবে অথবা "মনে করুন/ধরুন" এই ধরনের বাক্য প্রশ্নে ব্যবহার করতে হবে।

(০৯)
উপরে উল্লেখিত লিংক দ্রষ্টব্য।

(১০)
এটি স্ত্রীর হক।
স্ত্রী তাহা না নিয়ে মাফ করে দিলে সেটি তার একান্ত ব্যক্তিগত বিষয়। 
এতে কোনো সমস্যা নেই।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন। এই প্রশ্ন ও উত্তরগুলো আমাদের ফেসবুকেও শেয়ার করা হবে। তাই প্রশ্ন করার সময় সুন্দর ও সাবলীল ভাষা ব্যবহার করুন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি স্থানীয় মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

Related questions

...