0 votes
57 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (133 points)
একটা লেখা পেলাম ফেইসবুকে যেটাকে হাদিস বলে চালানো হয়েছে।আসলেই কি এইটা কোনো সহিহ হাদিস?লিখাটা এরকম-

 "শেষজামানার হাদিস গুলোর মধ্যে এই হাদিসটিও উল্লেখ্য যোগ্যা। যদি আমরা এই হাদিসটির সম্পর্কে গভীর ভাবে উপলব্ধি করতে না পারি তাহলে আমাদের জন্য দূর্ভাগ্য, আমাদের জন্য দূর্ভাগ্য, আমাদের জন্য দূর্ভাগ্য.........
শেষজামানায় মোমিন এবং কাফের ব্যক্তি আলাদা তাবুতে বিভক্ত হয়ে যাবে ইনশা-আল্লাহ।
আমাদের সকল মোসলমানদের ঐকবদ্য হতে হবে, তবে কিন্তু সেটা বর্তমান সময়ে অনেক কঠিন অনেক।
তবে ইমাম মাহদি ও ইসা (আ) আমাদের এই বিভক্তি এবং অন্ধদল বিশ্বাস কে দূর করে দিবেন ইনশা -আল্লাহ।
আমরা আমাদের হারানো গৌরব ফিরে পাব ইনশা -আল্লাহ।
.
হযরত আবু হুরায়রা (রাঃ) বলেন--
আমি রাসূল (সাঃ) কে বলতে শুনেছি--
"অবশ্যই অবশ্যই পৃথিবি ততদিন ধবংস হবে না,যতদিন না মানুষ পাচটি শাষকের দেখা পাবে।
যারা আল্লাহর দ্বীনকে যুক্তি করে ধ্বংস করতে চাইবে। আর তারা পাঁচ শাষকই এক সাথে পৃথীবিতে উপস্থিত থাকবে।
.
আমি(আবু হুরায়রাহ) বললামঃ""হে আল্লার রাসূল (সাঃ)! সে পাঁচ জনের পরিচয় কী?
তিনি বললেনঃ
.
[1]তাদের এক জন এই প্রবিত্র ভুমিতে আসবে।যার নাম হবে আমার নামের মতো।(মুহাম্মাদ).
সে আরবের দ্বীনকে হাস্যকর বানাবে।আর অভিশাপ্ত জাতিকে বন্ধু বানাবে।
[2] দ্বিতীয় সে বিশ্ব শাষক হবে।আর মুসলমানদের নিয়ে ষড়যন্তে লিপ্ত থাকবে।
[3]তৃতীয় জন হিন্দুস্থানের বদশা,সে বন্ধু অঞ্চলের মুসলমানদের নিয়ে ষড়যন্ত্র শুরু করবে।
[4].চতুর্থ জন,,- হিন্দুস্থানের দ্বীতিয় বাদশা।যে মুসমানদের হত্যার শপথ নিয়ে শাষন খমতায় যাবে।আর মুসলিম হত্যায় সে উন্মাদ হয়ে পড়বে।
এবং
[5] পঞ্চম -হলো,একজন নারী শাষাক,সে শাষন খমতা হাতে পেয়ে বা'আল দেবতার ইবাদত বৃদ্ধি করবে।আর মুশরিকদের বন্ধু রুপে গ্রহণ করবে।আর মুসশমানদের হত্যা করবে।
অথচ সে হবে মুসলমান।
তখন দেখবে সেখানকার দুর্গম অঞ্চলের এক দূর্বল বালক তাদের ষড়যন্ত্রের সমাপ্ত ঘটাবে এবং মুমিনদের বড় বিজয় আনবে।
(কিতাবুল আক্বিব,হাদিছঃ১৭২,
আখীরুজ্জামানা আল মাহদী ফিল আলামাতিল কিয়ামাহ,১৭৫)"


এইটা কতোটা নির্ভরযোগ্য হাদিস নাকি হাদিসের নামে জালিয়াতি?

1 Answer

0 votes
by (80,280 points)
জবাব
بسم الله الرحمن الرحيم 

কিয়ামতের আলামত সংক্রান্ত অনেক হাদীস বর্ণিত হয়েছে।
  
কিয়ামতের সর্বশেষ আলামত হিসেবে হাদীস শরীফে এসেছেঃ   
মুসলিম শরীফে হুযায়ফা (রাঃ) হতে বর্ণিত, তিনি বলেনঃ
اطَّلَعَ النَّبِيُّ صَلَّى اللَّه عَلَيْهِ وَسَلَّمَ عَلَيْنَا وَنَحْنُ نَتَذَاكَرُ فَقَالَ مَا تَذَاكَرُونَ قَالُوا نَذْكُرُ السَّاعَةَ قَالَ إِنَّهَا لَنْ تَقُومَ حَتَّى تَرَوْنَ قَبْلَهَا عَشْرَ آيَاتٍ فَذَكَرَ الدُّخَانَ وَالدَّجَّالَ وَالدَّابَّةَ وَطُلُوعَ الشَّمْسِ مِنْ مَغْرِبِهَا وَنُزُولَ عِيسَى ابْنِ مَرْيَمَ صَلَّى اللَّه عَلَيْهِ وَسَلَّمَ وَيَأَجُوجَ وَمَأْجُوجَ وَثَلَاثَةَ خُسُوفٍ خَسْفٌ بِالْمَشْرِقِ وَخَسْفٌ بِالْمَغْرِبِ وَخَسْفٌ بِجَزِيرَةِ الْعَرَبِ وَآخِرُ ذَلِكَ نَارٌ تَخْرُجُ مِنَ الْيَمَنِ تَطْرُدُ النَّاسَ إِلَى مَحْشَرِهِمْ
‘‘একদা রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাদের কাছে আগমণ করলেন। আমরা তখন কিয়ামত সম্পর্কে আলোচনা করছিলাম। তিনি বললেনঃ যত দিন তোমরা দশটি আলামত না দেখ তত দিন কিয়ামত হবেনা। (১) ধোঁয়া (২) দাজ্জালের আগমণ (৩) ভূগর্ভ থেকে নির্গত দাববাতুল/দাব্বাতুল আরদ্ নামক অদ্ভুদ এক জানোয়ারের আগমণ (৪) পশ্চিম আকাশে সূর্যোদয় (৫) ঈসা ইবনে মারইয়ামের আগমণ (৬) ইয়াজুজ-মা’জুজের আবির্ভাব (৭) পূর্বে ভূমি ধসন (৮) পশ্চিমে ভূমি ধসন (৯) আরব উপদ্বীপে ভূমি ধসন (১০) সর্বশেষে ইয়ামান থেকে একটি আগুন বের হয়ে মানুষকে সিরিয়ার দিকে হাঁকিয়ে নিবে’’।
মুসলিম, অধ্যায়ঃ কিতাবুল ফিতান।
,
সহীহ মুসলিম শরীফে আবু হুরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণিত, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেনঃ
(لَا تَقُومُ السَّاعَةُ حَتَّى يُقَاتِلَ الْمُسْلِمُونَ الْيَهُودَ فَيَقْتُلُهُمُ الْمُسْلِمُونَ حَتَّى يَخْتَبِئَ الْيَهُودِيُّ مِنْ وَرَاءِ الْحَجَرِ وَالشَّجَرِ فَيَقُولُ الْحَجَرُ أَوِ الشَّجَرُ يَا مُسْلِمُ يَا عَبْدَ اللَّهِ هَذَا يَهُودِيٌّ خَلْفِي فَتَعَالَ فَاقْتُلْهُ إِلَّا الْغَرْقَدَ فَإِنَّهُ مِنْ شَجَرِ الْيَهُودِ)
‘‘ততক্ষণ পর্যন্ত কিয়ামত হবেনা যতক্ষণ না মুসলমানেরা ইহুদীদের সাথে যুদ্ধ করবে। অতঃপর মুসলমানগণ ইহুদীরকে হত্যা করবে। ইহুদীরা গাছ ও পাথরের আড়ালে পালাতে চেষ্টা করবে। কিন্তু কেউ তাদেরকে আশ্রয় দিবেনা। গাছ বা পাথর বলবেঃ হে মুসলমান! হে আল্লাহর বান্দা! আমার পিছনে একজন ইহুদী লুকিয়ে আছে। আসো এবং তাকে হত্যা করো। তবে ‘গারকাদ’ নামক গাছের পিছনে লুকালে গারকাদ গাছ কোন কথা বলবেনা। এটি ইহুদীদের গাছ বলে পরিচিত’’।
সহীহ মুসলিম, অধ্যায়ঃ কিতাবুল ফিতান।
,
★তবে প্রশ্নে উল্লেখিত হাদীস কোনো গ্রহনযোগ্য হাদীসের কিতাবে পাইনি।  


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...