0 votes
13 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (14 points)
পোস্ট অফিস বা ব্যাংক সব জায়গা থেকেই সুদ আসে। কোনো ব্যক্তি যদি তার জমানো টাকার উপর রেগুলার একটা ইনকাম চায় এবং সে জন্য সরকারি সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ করে,তাহলে কি সেই ইনকাম হালাল হবে?

1 Answer

0 votes
by (21,360 points)
জবাব
بسم الله الرحمن الرحيم 

শরীয়তের বিধান অনুযায়ী সরকারী সঞ্চয় পত্রে বিনিয়োগ করে মুনাফা অর্জন নাজায়েজ, হারাম।
এটা স্পষ্ট সূদ।     

সুতরাং প্রশ্নে উল্লেখিত ছুরত "কোনো ব্যক্তি যদি তার জমানো টাকার উপর রেগুলার একটা ইনকাম চায় এবং সে জন্য সরকারি সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ করে,তাহলে কি সেই ইনকাম হারাম হবে।

আল্লাহ তায়ালা বলেন 

يا ايها الذين امنوا لا تاكلوا الربا اضعافا مضاعفه واتقوا الله لعلكم تفلحون 

 ‘হে মুমিনগণ! তোমরা চক্রবৃদ্ধি হারে সুদ খেও না। আল্লাহকে ভয় করো। তাহলে তোমরা সফল হতে পারবে। ’ -সূরা আল ইমরান: ১৩০

হাদীস শরীফে এসেছেঃ
عبد الله بن مسعود عن أبيه عن النبي صلى الله عليه وسلم قال لعن الله آكل الربا وموكله وشاهديه وكاتبه

হযরত আব্দুল্লাহ বিন মাসউদ রাঃ এর পিতা থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেন-“যে সুদ খায়, যে সুদ খাওয়ায়, তার সাক্ষী যে হয়, আর দলিল যে লিখে তাদের সকলেরই উপর আল্লাহ তায়ালা অভিশাপ করেছেন। (মুসনাদে আহমাদ, হাদিস নং-৩৮০৯, মুসনাদে আবি ইয়ালা, হাদিস নং-৪৯৮১)


★সরকারী সঞ্চয়পত্র ও তার সূদের পরিমান সম্পর্কে জানুনঃ
     
সঞ্চয়পত্র বিক্রির মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকার জনসাধারণের কাছ থেকে টাকা ধার করে। এ ধার বা কর্জের বিপরীতে সরকার বিনিয়োগকারীদের আকর্ষণীয় হারে মুনাফা দেয়। 

বর্তমানে চার ধরনের সঞ্চয়পত্র প্রচলিত আছে। এগুলো হচ্ছে- পাঁচ বছর মেয়াদি বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্র, পরিবার সঞ্চয়পত্র, তিন মাস অন্তর মুনাফাভিত্তিক সঞ্চয়পত্র ও পেনশনার সঞ্চয়পত্র। তিন মাস অন্তর মুনাফাভিত্তিক সঞ্চয়পত্র তিন বছর মেয়াদি। বাদবাকি সব ধরনের সঞ্চয়পত্রের মেয়াদ পাঁচ বছর। 

বাংলাদেশ ব্যাংকের সব শাখা অফিস, বাণিজ্যিক ব্যাংকের নির্ধারিত শাখাসমূহ, জাতীয় সঞ্চয় ব্যুরো অফিস ও পোস্ট অফিস থেকে সঞ্চয়পত্র কেনা যায়। 
,
★সঞ্চয়পত্রের মুনাফা : 
পেনশনার সঞ্চয়পত্রে মুনাফার হার সবচেয়ে বেশি, ১১.৭৬ শতাংশ। 
পেনশনার সঞ্চয়পত্রে প্রাপ্য মুনাফার ওপর ১০ শতাংশ হারে উৎসে কর কর্তনের পর তিন মাস পর পর প্রতি লাখে নিট মুনাফা পাওয়া যায় ২ হাজার ৬৪৬ টাকা। পরিবার সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার ১১.৫২ শতাংশ। 

প্রাপ্য মুনাফা থেকে ১০ শতাংশ হারে উৎসে কর কর্তনের পর প্রতি লাখে এক মাস অন্তর নিট মুনাফা পাওয়া যায় ৮৬৪ টাকা। 
তিন মাস অন্তর মুনাফাভিত্তিক সঞ্চয়পত্রে মুনাফার হার সবচেয়ে কম, ১১.০৪ শতাংশ। উৎসে কর কর্তনের পর প্রতি লাখে তিন মাস পর পর নিট মুনাফা পাওয়া যায় ২ হাজার ৪৮৪ টাকা। 

পাঁচ বছর মেয়াদি বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার ১১.২৮ শতাংশ, যা মেয়াদপূর্তির পর পরিশোধ করা হয়। প্রয়োজনে মেয়াদপূর্তির আগেও যে কোনো ধরনের সঞ্চয়পত্র ভাঙানো  যায়।
 তবে এক বছর পূর্তির আগে ভাঙালে অথবা বছরের ভগ্নাংশের জন্য কোনো মুনাফা প্রদান করা হয় না।
,
(সুত্র বাংলাদেশ প্রতিদিন। ১৬ ই অক্টোবর ২০২০)
,
★★সুতরাং এই ভাবে মুনাফা নেওয়া সম্পূর্ণরুপে হারাম হবে। 


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...