0 votes
63 views
in হালাল ও হারাম (Halal & Haram) by (2 points)
এক বোনের প্রশ্ন-
আস'সালামু আলাইকুম,
আমার স্বামী মারা গেছেন। ভরণপোষণ বহন করে আমার একমাত্র ছেলে।
আমার ছেলে হারাম(মাদকদ্রব্য) পথে টাকা উপার্জন করে- সেই টাকা দিয়ে তার পিতার রেখে যাওয়া সম্পত্তিতে বিভিন্ন ফলের বাগান করেছে। আমরা তো জানি হারাম উপার্জন থেকে দান কবুল হয়না। এখানে তার হারাম উপার্জন এর টাকা, হালাল জমিতে বিনিয়োগ করে যে ফসল উৎপাদন করা হয়েছে।
সেই ফসলের বিক্রয়লব্ধ টাকার বিধান কি হবে?
সেখান থেকে কি দান-সাদাকাহ করা যাবে?
এমতবস্থায় আমার করণীয় কি??

1 Answer

+1 vote
by (127,480 points)
edited by
জবাব
وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته 
بسم الله الرحمن الرحيم 


সদকাহ দান,ইবাদত দোয়া কবুল হওয়ার বেশকিছু শর্ত রয়েছে। 
তার মধ্যে অন্যতম হলো খাদ্য পবিত্র (হালাল) হওয়া। 
হারাম খাবার খেয়ে দোয়া করলে কোনোভাবেই তাহা কবুল হবেনা।
,
আল্লাহ্ তাআলা বলেন, “আল্লাহ্ তো কেবল মুত্তাকীদের থেকেই কবুল করেন”[সূরা মায়েদা, আয়াত: ২৭] 

ইবাদতে ও দুআ কবুল হওয়ার ব্যাপারে হালাল খাদ্যের অনেক প্রভাব রয়েছে। খাদ্য হালাল না হলে ইবাদত ও দুআ কবুল হওয়ার যোগ্য হয় না। হযরত আবু হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূলে আকরাম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন-

« أيها الناس إن الله طيب لا يقبل إلا طيبا وإن الله أمر المؤمنين بما أمر به المرسلين فقال ( يا أيها الرسل كلوا من الطيبات واعملوا صالحا إنى بما تعملون عليم) وقال (يا أيها الذين آمنوا كلوا من طيبات ما رزقناكم) ». ثم ذكر الرجل يطيل السفر أشعث أغبر يمد يديه إلى السماء يا رب يا رب ومطعمه حرام ومشربه حرام وملبسه حرام وغذى بالحرام فأنى يستجاب لذلك ».

তরজামা: হে লোক সকল! আল্লাহ তাআলা হলেন পবিত্র। আর তিনি পবিত্রতা ছাড়া কবুলই করেন না। আল্লাহ তাআলা মুমিনদেরকে তাই নির্দেশ দিয়েছেন যা রাসূলগণকে দিয়েছেন।  তিনি বলেছেন “হে রাসূলগণ পবিত্র বস্তু আহার করুন এবং সৎকাজ করুন। আপনারা যা করেন সে বিষয়ে আমি পরিজ্ঞাত”। 
(সূরা মুমিনুন-৫২) 

তিনি অন্যত্র ইরশাদ করেন “হে ঈমানদারগণ, তোমরা পবিত্র বস্তু-সামগ্রী আহার কর, যেগুলো আমি তোমাদেরকে রুযী হিসাবে দান করেছি। (সূরা বাকারহ -১৭২)

 রাসুলুল্লাহ সাঃ এক লোকের কথা বললেন যে দীর্ঘ সফর করে আসে। এবং অত্যন্ত ব্যাকুলভাবে দু‘ হাত তুলে আল্লাহর দরবারে বলতে থাকে, ইয়া পরওয়ারদেগার! ইয়া রব! । কিন্তু যেহেতু সে ব্যক্তির পানাহার সামগ্রী হারাম উপার্জনের, পরিধেয় পোষাক- পরিচ্ছদ হারাম পয়সায় সংগৃহীত, এমতাবস্থায় তার দেয়া কি করে কবুল হতে পারে?।  (মুসলিম শরীফ, হাদীস নং ২৩৯৩)
,
حَدَّثَنَا قُتَيْبَةُ بْنُ سَعِيدٍ، حَدَّثَنَا أَبُو عَوَانَةَ، عَنْ سِمَاكِ بْنِ حَرْبٍ، ح وَحَدَّثَنَا هَنَّادٌ، حَدَّثَنَا وَكِيعٌ، عَنْ إِسْرَائِيلَ، عَنْ سِمَاكٍ، عَنْ مُصْعَبِ بْنِ سَعْدٍ، عَنِ ابْنِ عُمَرَ، عَنِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم قَالَ " لاَ تُقْبَلُ صَلاَةٌ بِغَيْرِ طُهُورٍ وَلاَ صَدَقَةٌ مِنْ غُلُولٍ "

ইবনু উমর (রাঃ) হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেনঃ পবিত্রতা ছাড়া নামায কবুল হয় না। আর হারাম উপায়ে প্রাপ্ত মালের সাদকাও কুবুল হয় না। —সহীহ। তিরমিজি ০১ ইবনু মাজাহ– (২৭২)

★প্রশ্নে উল্লেখিত ছুরতে যদি উক্ত মহিলার ছেলে মদ ব্যাতিত অন্য কোনো মাদকদ্রব্য বিক্রয় করে থাকে,তাহলে তার এ ইনকাম হালাল 
,
সুতরাং সেটি ভক্ষন করা জায়েজ আছে,সেটা দিয়ে ফলের বাগান করা,তা খাওয়া, সদকাহ করা সবই জায়েজ আছে। 
,
وصح بيع غير الخمر و مفاده صحة بيع الحشيشة الخ

মদ ব্যতীত অন্যান্য নেশদ্রব্য বিক্রি করা বৈধ,সারমর্ম হলঃহাশীশ(একপ্রকার তামাক দ্রব্য) বিক্রিও বৈধ।(রদ্দুল মুহতার,৬/৪৫৪)(ফাতাওয়ায়ে উসমানী, ৩/৮৯,তানক্বিহু ফাতাওয়াল হামিদিয়্যাহ,৬/৩৬৬,মাজ্বমুআতুল ফাতাওয়া,২/২৭,ফাতাওয়া রশিদিয়্যাহ, ৪৮৮,ক্বিফায়াতুল মুফতী, ৯/১৪৮)
,
বিস্তারিত জানুনঃ  
,
কিন্তু উক্ত মহিলার ছেলে যদি মদ এর ব্যবসা করে,তাহলে তার এ উপার্জন হারাম।
,
তা থেকে যে ফসল উৎপাদন হয়েছে,সেটিও হারাম।
সেটি ভক্ষন করা জায়েজ নেই,সেটা দিয়ে ফলের বাগান করা জায়েজ নেই,তা খাওয়া, সদকাহ করা কোনোটাই জায়েজ নেই। 
সমস্ত টাকা ছওয়াবের নিয়ত ছাড়া গরিবদের মাঝে দান করে দিতে হবে।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...