+1 vote
26 views
in পবিত্রতা (Purity) by (17 points)
আসসালামু আলাইকুম

গোসল কখন, কি কি ক্ষেত্রে ফরয হয় এবং ফরয গোসলের নিয়ম টা কি?

1 Answer

0 votes
by (20,920 points)
উত্তর
وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته 
بسم الله الرحمن الرحيم 

ফরজ গোসল ইসলামী জীবন বিধানের গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। কারো ওপর গোসল ফরজ হলে সঠিক পদ্ধতিতে গোসল আদায় না করা পর্যন্ত ওই ব্যক্তি নাপাক থাকে। আর নাপাক অবস্থায় নামাজ পড়লে সওয়াবতো হবেই না বরং কঠিন শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে। নামাজ ছাড়াও অনেক ইবাদত রয়েছে যেগুলো নাপাক অবস্থায় শুদ্ধ হয় না। ইসলামের বহু আমল সঠিকভাবে সম্পাদন করার জন্য শারীরিক পবিত্রতা অপরিহার্য।
,
মহান আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, 
وان كنتم جنبا فاطهروا 
‘তোমরা যদি নাপাক (জানাবাত) অবস্থায় থাকো, তবে নিজেদের দেহ (গোসলের মাধ্যমে) ভালোভাবে পবিত্র করে নাও।’ (সুরা মায়েদা ৬)

পবিত্র কোরআনে অন্য আয়াতে আল্লাহ তাআলা যাঁরা অধিক পবিত্রতা অর্জন করেন, তাদের প্রশংসা করেছেন।

★★যে সব কারণে গোসল ফরজ হয়ঃ

★এক. জাগ্রত বা ঘুমন্ত অবস্থায় উত্তেজনার সঙ্গে বীর্যপাত হওয়া। ঘুমন্ত অবস্থায় উত্তেজনা অনুভব না হলেও গোসল ফরজ। কেননা ঘুমন্ত অবস্থায় স্বপ্নদোষ হলে মানুষ অনেক সময় টের পায় না। তাই কোনো ব্যক্তি ঘুম থেকে ওঠার পর যদি তার কাপড়ে নাপাকির চিহ্ন দেখে, তাহলে তার স্বপ্নদোষ বা বীর্যপাতের কথা স্মরণ থাকুক বা না থাকুক, সর্বাবস্থায় গোসল ফরজ হবে। (হেদায়া ১/৪৫, আন নুতাফ ফিল ফাতাওয়া পৃ. ২৯)

عن علي رضي الله عنه قال : كنت رجلا مذاء فقال لي رسول صلي الله عليه وسلم الله إذا رأيت المذي فاغسل ذكرك وتوضأ وضوءك للصلاة و إذا فضخت الماء فاغتسل .رواه النسائي بسند صحيح (193)
যার সারমর্ম হলো যখন পানি উত্তেজনার সাথে (টপকিয়ে) পড়বে তখন গোসল ফরজ হবে।

ফাতাওয়ায়ে তাতারখানীয়াতে আছে
لمافی الفتاوٰی التاتارخانیۃ (۱۵۲/۱): أسباب الغسل ثلاثۃ الجنابۃ والحیض والنفاس۔
যার সারমর্ম হলো ৩ টি কারনে গোসল ফরজ হয়।
জানাবত,হায়েয,নিফাস।

★★দুই. স্ত্রী সহবাস করা। সহবাসের ক্ষেত্রে স্ত্রীর যৌনাঙ্গে পুরুষাঙ্গের সর্বনিম্ন সুপারি পরিমাণ অংশ প্রবেশ করালেই উভয়ের ওপর গোসল ফরজ হয়ে যাবে, চাই বীর্যপাত হোক বা না হোক। (বুখারি, হা. ২৯১, মুসলিম, হা. ৩৪৩)

হাদীস শরীফে এসেছে   
عن عائشة رضي الله عنها قالت : قال رسول صلي الله عليه وسلم الله : ( إذا جاو ز الختان الختان فقد وجب الغسل )رواه ابن حبان بسند صحيح ( 1177)
যার সারমর্ম হলো রাসুল সাঃ বলেছেন   যখন পুরুষের লিঙ্গ মহিলার লজ্জাস্থানে প্রবেশ করে,তখন গোসল ফরজ হয়ে যাবে।  

অন্যত্রে এসেছে 
عن أبي هريرة رضي الله عنه عن النبي صلي الله عليه وسلم قال : إذا جلس بين شعبها الأربع وأجهد نفسه فقد وجب الغسل أنزل أو لم ينزل. رواه أحمد بسند صحيح (8557)
রাসুল সাঃ বলেছেন যে  যখন পুরুষ মহিলার চারযানুর মাঝে বসে সহবাসের চেষ্টা করবে,তখনই গোসল ফরজ হয়ে যাবে, বির্যপাত হোক বা না হোক।     

ফাতাওয়ায়ে আলমগীরীতে আছে  
وفی الھندیۃ(۱۵/۱): الإیلاج فی أحد السبیلین اذا تواترت الحشفۃ یوجب الغسل علی الفاعل والمفعول بہ أنزل أولم ینزل۔
স্ত্রীর যৌনাঙ্গে পুরুষাঙ্গের সর্বনিম্ন সুপারি পরিমাণ অংশ প্রবেশ করালেই উভয়ের ওপর গোসল ফরজ হয়ে যাবে, চাই বীর্যপাত হোক বা না হোক।
 

★★★তিন. নারীদের হায়েয (ঋতুস্রাব) এবং নেফাস (সন্তান প্রসবোত্তর স্রাব) বন্ধ হওয়ার পরও গোসল ফরজ। (রদ্দুল মুহতার ১/১৬৫)

হাদীস শরীফে এসেছে   
وعن عائشة رضي الله عنها قالت دخلت أسماء رضي الله عنها على رسول الله - صلي الله عليه وسلم - فقالت يارسول صلي الله عليه وسلم الله كيف تغتسل إحدانا إذا طهرت من المحيض قال « تأخذ سدرها وماءها فتوضأ ثم تغسل رأسها وتدلكه حتى يبلغ الماء أصول شعرها ثم تفيض على جسدها ثم تأخذ فرصتها فتطهر بها » رواه أبود أو د بسند صحيح
314
যার সারমর্ম হলো হযরত আসমা রাঃ রাসুল সাঃ কে জিজ্ঞাসা করলেন যে আমরা যখন হায়েয থেকে পবিত্র হবো,তখন কিভাবে গোসল করিবো?
তখম রাসুল সাঃ গোসলের নিয়মাবলি বলে দিলেন,,,,,,,,,,  
,

★ফরজ গোসলের নিয়ম:
১. গোসলের জন্য মনে মনে নিয়্যাত করতে হবে। ৭
২. প্রথমে দুই হাত কব্জি পর্যন্ত ৩ বার ধুতে হবে।
৩. এরপর ডানহাতে পানি নিয়ে বামহাত দিয়ে লজ্জাস্থান এবং তার আশপাশ ভালো করে ধুতে হবে। শরীরের অন্য কোন জায়গায় বীর্য বা নাপাকি লেগে থাকলে সেটাও ধুতে হবে।
৪. এবার বামহাতকে ভালো করে ধুইয়ে ফেলতে হবে।
৫. এবার ওজুর নিয়মের মত করে ওজু করতে হবে।
৬. ওজু শেষে মাথায় তিনবার পানি ঢালতে হবে।
৭. এবার সমস্ত শরীর ধোয়ার জন্য প্রথমে ৩ বার ডানে তারপরে ৩ বার বামে পানি ঢেলে ভালোভাবে ধুতে হবে, যেন শরীরের কোন অংশই বা কোন লোমও শুকনো না থাকে। নাভি, বগল ও অন্যান্য কুঁচকানো জায়গায় পানি দিয়ে ধুতে হবে।
৮. সবার শেষে একটু অন্য জায়গায় সরে গিয়ে দুই পা ৩ বার ভালোভাবে ধুতে হবে।

মনে রাখতে হবে:
১. পুরুষের দাড়ি ও মাথার চুল এবং মহিলাদের চুল ভালোভাবে ভিজতে হবে।
২. এই নিয়মে গোসলের পর নতুন করে আর ওজুর দরকার নাই, যদি ওজু না ভাঙ্গে।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...