0 votes
14 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (6 points)
আসলামু আলাইকুম
আমার প্রশ্ন মিরাস সংক্রান্ত। একটা পরিবারে  চার বোন তিন ভাই। চার বোনের মধ্যে এক বোন তার বাবা জীবিত থাকা অবস্থায় মৃত্য বরণ করেন। এর ঐ পরিবারের সন্তানদের বাবা মারা যান। বাবা মারা যাওয়ার পর তার সম্পত্তি ওয়ারিশদের মধ্যে ভাগ হয় না। পরবর্তীতে তিন ভাইয়ের মধ্যে এক ভাই মারা যান। এর পর জীবত তিন বোনের মধ্যে আরো এক বোন মারা যান। এখানে একটি বিষয় হলো এই চার বোনেরই কোন ছেলে মেয়ে নাই এবং যে দুই বোন মারা গেছে তার স্বামী ও মারা গেছেন। এই পর্যন্ত  তাদের পিতার সম্পত্তি ওয়ারিশদের মধ্যে ভাগ করা হয় নী।
শায়েশ এখন আমার প্রশ্ন হলো
১। যে বোনটি পিতার আগে মারা গেছিলো শরিয়াহ অনুযায়ী তার  পিতার  সম্পত্তি পাবে কি না
যদি না পায় তাহলে
২। ২য় যে বোনটি মারা গেছে পিতার মৃত্যর পর তার স্বামীর অন্য স্ত্রীর ছেলেমেয়েরা/ তার সম্পত্তির ভাগ তার ভাইয়েরা পাবে কি না?
যদি পাই তাহলে, যে ভাইটি তার মৃত্যর পৃবেই মারা গেছে তার ওয়ারিশ গন কি এই সম্পত্তির ভাগিদার হবে?  না হবে না?
৩। জীবিত দুই ভাইয়ের মধ্যে এক ভাই মানুষিক ভারসাম্য হীন    এবং সেই ভাই বিবাহও করে নী। তাহলে সেও কি অংশীদার তার পিতার সম্পত্তির।যদি হয় ও সে তো এখন বৃদ্ধ প্রায়,বিচার বুদ্ধিও কম,নাই বললেই চলে এবং তার কোন ছেলে মেয়ে নাই তাহলে তার ভাগের সম্পত্তি কিভাবে ভাগ  করা হবে?
শরীয়হ অনুযায়ী যদি বলতেন এবং রেফারেন্স এড করতেন
অনেক উপকৃত হতাম।

1 Answer

0 votes
by (243,280 points)
জবাব
وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته 
بسم الله الرحمن الرحيم 


সুরা নিসার ১১ নং আয়াতে মহান আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেনঃ 

یُوۡصِیۡکُمُ اللّٰہُ فِیۡۤ اَوۡلَادِکُمۡ ٭ لِلذَّکَرِ مِثۡلُ حَظِّ الۡاُنۡثَیَیۡنِ ۚ فَاِنۡ کُنَّ نِسَآءً فَوۡقَ اثۡنَتَیۡنِ فَلَہُنَّ ثُلُثَا مَا تَرَکَ ۚ وَ اِنۡ کَانَتۡ وَاحِدَۃً فَلَہَا النِّصۡفُ ؕ وَ لِاَبَوَیۡہِ لِکُلِّ وَاحِدٍ مِّنۡہُمَا السُّدُسُ مِمَّا تَرَکَ اِنۡ کَانَ لَہٗ وَلَدٌ ۚ فَاِنۡ لَّمۡ یَکُنۡ لَّہٗ وَلَدٌ وَّ وَرِثَہٗۤ اَبَوٰہُ فَلِاُمِّہِ الثُّلُثُ ۚ فَاِنۡ کَانَ لَہٗۤ اِخۡوَۃٌ فَلِاُمِّہِ السُّدُسُ مِنۡۢ بَعۡدِ وَصِیَّۃٍ یُّوۡصِیۡ بِہَاۤ اَوۡ دَیۡنٍ ؕ اٰبَآؤُکُمۡ وَ اَبۡنَآؤُکُمۡ لَا تَدۡرُوۡنَ اَیُّہُمۡ اَقۡرَبُ لَکُمۡ نَفۡعًا ؕ فَرِیۡضَۃً مِّنَ اللّٰہِ ؕ اِنَّ اللّٰہَ کَانَ عَلِیۡمًا حَکِیۡمًا ﴿۱۱﴾ 

আল্লাহ তোমাদের সন্তান সম্বন্ধে নির্দেশ দিচেছন: এক পুত্রের অংশ দুই কন্যার অংশের সমান; কিন্তু শুধু কন্যা দুইয়ের বেশী থাকলে তাদের জন্য পরিত্যক্ত সম্পত্তির তিন ভাগের দু’ভাগ, আর মাত্র এক কন্য থাকলে তার জন্য অর্ধেক। তার সন্তান থাকলে তার পিতা-মাতা প্রত্যেকের জন্য পরিত্যক্ত সম্পত্তির ছয় ভাগের এক ভাগ; সে নিঃসন্তান হলে এবং পিতা-মাতাই উত্তরাধিকারী হলে তার মাতার জন্য তিন ভাগের এক ভাগ; তার ভাই-বোন থাকলে মাতার জন্য ছয় ভাগের এক ভাগ; এ সবই সে যা ওসিয়াত করে তা দেয়ার এবং ঋণ পরিশোধের পর। তোমাদের পিতা ও সন্তানদের মধ্যে উপকারে কে তোমাদের নিকটতর তা তোমরা জান না । এ বিধান আল্লাহর; নিশ্চয় আল্লাহ সর্বজ্ঞ, প্রজ্ঞাময়।

প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনি ভাই/বোন, 
প্রশ্নে উল্লেখিত ছুরতে যেই বোন তার বাবা মারা যাওয়ার আগেই মারা গিয়েছে,সে তার বাবার সম্পদ থেকে কিছুই পাবেনা।

এর পর বাবা মারা যাওয়ার পর যারা জীবিত ছিলো (৩ বোন ৩ ভাই) তথা মাইয়্যিতের তিন ছেলের আর তিন মেয়ে।
তো এক্ষেত্রে যদিও সম্পদ ভাগ হওয়ার আগেই মাইয়্যিতের এক ছেলে আর এক মেয়ে মারা যায়,তবুও তারা মাইয়্যিতের সম্পদ থেকে অংশ পাবে।
,
প্রশ্নে উল্লেখিত ছুরতে মাইয়্যিত (বাবা) এর রেখে যাওয়া সম্পদ তার ছেলের মেয়ে (৩ ভাই,৩ বোন) দের মাঝে এক ছেলে = দুই মেয়ে অনুপাতে ভাগ হবে।
,
সমস্ত সম্পদ ৯ ভাগ হবে।
,
তিন ছেলের প্রত্যেকে ২ করে মোট ৬ ভাগ পাবে।
তিন মেয়ের প্রত্যেকে ১ করে মোট ৩ ভাগ পাবে। 

,
(০১)
প্রশ্নে উল্লেখিত ছুরতে  যে বোনটি পিতার আগে মারা গেয়েছিলো, শরিয়াহ অনুযায়ী সে তার পিতার  সম্পত্তি পাবেনা।
,
(০২)
২য় যে বোনটি মারা গিয়েছিলো,সে তো তারক বাবার সম্পদ হতে ৯ ভাগের এক অংশ পাওয়ার হকদার ছিলো।
,
এখন যখন সেই বোনটি মারা গিয়েছিলো,দেখতে হবে তখন তার ওয়ারিশদের মধ্যে কে কে জীবিত ছিলো?
,
এখানে যেহেতু বুঝা যাচ্ছে যে তার স্বামী আর তার ভাই বোনেরা ছিলো,তাই প্রশ্নে উল্লেখিত ছুরতে উক্ত বোনের সম্পদ হতে তার স্বামী আর তাই ভাই বোনেরা সম্পদ পাবে।
,
ঐ বোনের নিজ সন্তান না থাকলে তার স্বামী অর্ধেক সম্পদ পাবে।
,
আর যদি ঐ বোনের নিজ সন্তান থাকে তাহলে তার স্বামী এক চতুর্থাংশ সম্পদ পাবে।
,
বাকি সম্পদ তার ভাই বোনদের মাঝে এক ভাই = দুই বোন অনুপাতে ভাগ হবে।
,
(০৩)
প্রশ্নে উল্লেকখিত ভাই তথা মাইয়্যিতের মানুষিক ভারসাম্য হীন ছেলে তার বাবার সম্পদ এর ৯ ভাগ হতে ২ ভাগ পাবে।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...