0 votes
20 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (1 point)
edited by
আমি একটা মেয়েকে পছন্দ করতাম। কাল সে মারা গেছে।
১। মারা যাওয়ার পর তাকে আমি দেখি নি, কিন্তু তার খাটিয়া আমি তুলেছি। খাটিয়া তোলা কি আমার উচিত হয়েছে??
২। তার নাজাতের উদ্দেশ্যে কি আমি নামাজ পরতে পারব?? যদি পারি তাহলে সেটার বিধান কি??

৩। তার পাপের পরিমান যদি বেশি হয় ( যদিও কম না বেশি আল্লাহ ভালো জানেন) তাহলে আমার পক্ষে কি তার গুনাহের পরিমান কমিয়ে সওয়াবের পরিমান বাড়ানো সম্ভব, যাতে সে জান্নাতি হয়??

৪। তার আমলনামায় সওয়াব পৌছানোর জন্য আমি কি কি করতে পারি??

৫। তার গুনাহের জন্য আমি কি তওবা করতে পারি, যার দ্বরা তার গুনাহ মাফ হবে??

৬। আমার দানের দ্বারা কি তার কোনো সওয়াব হবে??

৭। তার কবর কি আমি জিয়ারত করতে পারব??

1 Answer

0 votes
by (308,080 points)
edited by

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
(১)
https://www.ifatwa.info/1044 নং ফাতাওয়ায় আমরা বলেছি যে,
মৃত ব্যক্তির জন্য দু'আ করতে পারেন। কুরআনে কারীম তেলাওয়াত করে তাদের নামে বখশিয়ে দিতে পারেন। হ্যা দু'আ নিয়তে আরো অনেক কিছুই করতে পারেন। তন্মধ্যে সবচেয়ে উত্তম হচ্ছে তাদের নামে সদকায়ে জারিয়া হিসেবে মসজিদ-মাদরাসা নির্মাণ করে দেয়া।এবং তাদের নামে রাস্তাঘাট ও চিকিৎসা কেন্দ্র নির্মাণ সহ যাবতীয় সমাজসেবা মূলক কাজ করা। অর্থাৎ সর্ব প্রকার ভালো কাজ করে তাদের নামে সওয়াব বখশিয়ে দেয়া।তবে টাকার বিনিময়ে খতমে কোরাআন বা অন্য কোরো খতম করিয়ে ঈসালে সওয়াব করানো জায়েয হবে না।
আল্লাম ইবনে আবেদীন শামী রাহ লিখেন,
ﻭﺃﺧﺬ ﺍﻷﺟﺮﺓ ﻋﻠﻰ ﺍﻟﺬﻛﺮ ﻭﻗﺮﺍﺀﺓ ﺍﻟﻘﺮﺁﻥ، ﻭﻏﻴﺮ ﺫﻟﻚ ﻣﻤﺎ ﻫﻮ ﻣﺸﺎﻫﺪ ﻓﻲ ﻫﺬﻩ ﺍﻷﺯﻣﺎﻥ، ﻭﻣﺎ ﻛﺎﻥ ﻛﺬﻟﻚ ﻓﻼ ﺷﻚ ﻓﻲ ﺣﺮﻣﺘﻪ ﻭﺑﻄﻼﻥ ﺍﻟﻮﺻﻴﺔ ﺑﻪ، ﻭﻻ ﺣﻮﻝ ﻭﻻ ﻗﻮﺓ ﺇﻻ ﺑﺎﻟﻠﻪ ﺍﻟﻌﻠﻲ ﺍﻟﻌﻈﻴﻢ-
আল্লাহর যিকির বা কুরআন তেলাওয়াত করে বিনিময় গ্রহণ করা মাকরুহ।যে প্রথা বর্তমান সময়ে লক্ষ্য  করা যাচ্ছে। এরকম প্রথা/রুসুম চালু হয়ে গেলে সেটা হারাম হবে।এবং এর ওসিয়ত বাতিল করলে সেটাও বাতিল বলে গণ্য হবে। এতে কোনো সন্দেহ নাই। {রদ্দুল মুহতার(শামেলা):২/২৪১ আহসানুল ফাতাওয়া-৭/২৯৯}

সু-প্রিয় পাঠকবর্গ!
(১)
গায়রে মাহরাম মহিলার খাটিয়া তুলা আপনার উচিৎ হয়নি। নাজায়েয মহব্বত থাকলে আপনি এখনই আল্লাহর কাছে তাওবাহ করুন।

(২)
নফল ইবাদত করতে পারবেন।

(৩)
আপনি তার জন্য নফল ইবাদতের সওয়া বখশিয়ে দিয়ে তার নেকির পাল্লাকে ভাড়ি করতে পারবেন যদি আল্লাহ আপনার নফল ইবাদতকে কবুল করেন। এবং আপনি তার জন্য ইস্তেগফার তথা মাগফিরাতের দু'আ করবেন।

(৪)
সকল প্রকার নফল ইবাদত তার জন্য করতে পারবেন।

(৫)
তার গোনাহের জন্য আপনি তাওবাহ করলে হবে না।হ্যা, তার জন্য আপনি ইস্তেগফার তথা আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইতে পারবেন।

(৬)
জ্বী, সওয়াব হবে।

(৭)
জ্বী, তার কবর জিয়ারত করতে পারবেন।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

by (308,080 points)
সংযোজন ও সংশোধন করা হয়েছে।

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...