0 votes
37 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (17 points)
edited by
আসসালামু আলাইকুম
https://ifatwa.info/23610/ এ আপনি বলেছিলেন স্বামি যখন শুধু ডেকরেশনের কাজ করবে তখন তা হালাল৷ এই ডেকরেশনের কাজ নিতে ওনাকে তার বিজনেস পেইযে নারিদের সংগে দরকারি চ্যাট,ফোনে কথা,সামনাসামনি দেখা করে(তাদের অফিসে এনে/কোথাও /তাদের বাসায় গিয়ে) কথা বলতে হয়৷ যেখানে প্রোগ্রাম হবে সে সাইটটায় ক্লায়েন্ট তাদের নিয়ে দেখায়(মাঝে মাঝেঃবেশি ডেকরের কাজ থাকলে)৷ তারপর প্রোগ্রামের দিন ডেকরের কাজ উঠাই দেয়ার পর প্রোগ্রামে থাকে, সেখানে প্রোগ্রামে পরিবেশ টা মনে হলো আপনারা অবগত( বিয়ের অবস্থা) তাই ব্যাখ্যা করিনি৷ থাকার কারন হচ্ছে ক্লায়েন্ট তাদের কাজ দেখে কি বলবে,অর্থাৎ দায়িত্ববান হিসেবে কাউকে থাকা লাগে,ওনার বিজনেস যেহেতু তিনিই থাকেন প্রায়ই৷ তাছাড়া শেষ হলে মাল গুছানোর প্রয়োজনে৷
এরূপ পরিস্থিতি শারঈ মত জানতে চাচ্ছি(আমার আহাল লজিক ছাড়া কিছু শুনতে চাননা,তাই অনুরোধ করছি)

২) ডেকরের কাজে প্রায়ই ক্লায়েন্ট তাদের ছবি দেন,তাদের ছবিকে কার্টুনের মতো করে সেটাকে ব্যানার হিসেবে ব্যবহারে

1 Answer

0 votes
by (306,320 points)

ওয়া আলাইকুমুস-সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু। 
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
(১)
হযরত আবূ হুরায়রা রাঃ থেকে বর্ণিত,রাসূল সাঃ ইরশাদ করেন,
ﻓَﺎﻟْﻌَﻴْﻨَﺎﻥِ ﺯِﻧَﺎﻫُﻤَﺎ ﺍﻟﻨَّﻈَﺮُ، ﻭَﺍﻟْﺄُﺫُﻧَﺎﻥِ ﺯِﻧَﺎﻫُﻤَﺎ ﺍﻟِﺎﺳْﺘِﻤَﺎﻉُ، ﻭَﺍﻟﻠِّﺴَﺎﻥُ ﺯِﻧَﺎﻩُ ﺍﻟْﻜَﻠَﺎﻡُ، ﻭَﺍﻟْﻴَﺪُ ﺯِﻧَﺎﻫَﺎ ﺍﻟْﺒَﻄْﺶ،ُ ﻭَﺍﻟﺮِّﺟْﻞُ ﺯِﻧَﺎﻫَﺎ ﺍﻟْﺨُﻄَﺎ، ﻭَﺍﻟْﻘَﻠْﺐُ ﻳَﻬْﻮَﻯ ﻭَﻳَﺘَﻤَﻨَّﻰ، ﻭَﻳُﺼَﺪِّﻕُ ﺫَﻟِﻚَ ﺍﻟْﻔَﺮْﺝُ ﻭَﻳُﻜَﺬِّﺑُﻪُ
চোখের জিনা হল [হারাম] দৃষ্টিপাত।
কর্ণদ্বয়ের জিনা হল, [গায়রে মাহরামের যৌন উদ্দীপক] কথাবার্তা মনযোগ দিয়ে শোনা।
জিহবার জিনা হল, [গায়রে মাহরামের সাথে সুড়সুড়িমূলক] কথোপকথন। 
হাতের জিনা হল, [গায়রে মাহরামকে] ধরা বা স্পর্শকরণ। 
পায়ের জিনা হল, [খারাপ উদ্দেশ্যে] চলা। 
অন্তর চায় এবং কামনা করে আর লজ্জাস্থান তাকে বাস্তবে রূপ দেয় [যদি জিনা করে] 
এবং মিথ্যা পরিণত করে [যদি অন্তরের চাওয়া অনুপাতে জিনা না করে]। {সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-২৬৫৭, মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-৮৯৩২}

সুপ্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনি ভাই/বোন!
ব্যবসায়িক প্রয়োজনে চোখকে নিচু রেখে গায়রে মাহরামের দিকে না থাকিয়ে গায়রে মাহরামের সাথে কথা বলা যাবে। তবে শর্ত হল, ফিতনার আশংকা না থাকা। যদি নারী পুরুষের অবাধ বিচরণ হয়, এমন কোনো পরিবেশ কোথাও সৃষ্টি হয়ে যায়, তাহলে কিন্তু তখন সেই পরিবেশে থাকা এবং সেই পরিবেশকে লালিত পালিত করা জায়েয হবে না।

(২)
ছবি বা কার্টুনকে ব্যানার হিসেবে ব্যবহার করা জায়েয হবে না।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...