0 votes
20 views
in সালাত(Prayer) by (16 points)
আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ। আমার হায়েজ এর লাস্ট ডেট ছিল ৯ অক্টোবর। সেই অনুযায়ী এ মাসের ১০ তারিখ হায়েজ হবার কথা থাকলেও তা হয়নি এবং আজ অর্থাৎ গত হায়েজ থেকে নিয়ে আজ ৪৩ দিন পর আমি রক্ত দেখতে পাচ্ছি।

রক্ত খুবই হালকা। বোঝাও যায়না এরকম। আমি কটন বাড দিয়ে নিশ্চিত হয়েছি এটা রক্ত। এখন এটা কি হায়েজের রক্ত? আমি কি হায়েজ হিসেবে ধরে নিয়ে সালাত বাদ দিব? একটা সন্দেহের মধ্যে আছি যেহেতু আমার হায়েজ রেগুলার হয় আর এতদিন পর রক্ত দেখা গেছে এখন সেটা হায়েজ কিনা বুঝতে পারছিনা

1 Answer

0 votes
by (226,160 points)
জবাব
وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته 
بسم الله الرحمن الرحيم 


শরীয়তের বিধান অনুযায়ী তুহর তথা দুই হায়েজের মাঝে পবিত্রতার সর্বনিম্ন সীমা পনেরো দিন।
এই পনেরো দিনের মধ্যে কোনো রক্ত আসলে সেটি হায়েজ নয়,বরং সেটি ইস্তেহাজা তথা অসুস্থতা।
এই সময়ে নামাজ রোযা আদায় করতে হবে।    

হজরত হান্নাদ [রহ] আম্মাজান আয়েশা [রা]-এর হাদিস বর্ণনা করেছেন যে, ফাতিমা বিনতে হুবাইশ নামক এক নারী একবার রাসুল [সা]-এর সমীপে এসে বললো, হে আল্লাহর রাসুল, আমি একজন ইস্তেহাযাগ্রস্ত মেয়ে। আমি তো পাক হই না। তাই আমি কি নামাজ পড়া ছেড়ে দেবো? রাসুল [সা] বললেন, না, কারণ এ রক্ত হায়েযের নয়; বরং এ হলো শিরা থেকে বেরিয়ে আসা রক্ত। সুতরাং যখন তোমার হায়েযের নির্ধারিত দিনগুলি আসে তখন সে দিনগুলি নামাজ ছেড়ে দেবে। আর হায়েযের দিন চলে গেলে তোমার রক্ত ধুয়ে নেবে এবং নামাজ আদায় করবে। [তিরমিজি, হাদিস-১২৫]
     
,
★ উভয় হায়েজের মাঝে কমপক্ষে পনেরো দিন পবিত্রতা ধরতে হবে।
হায়েজ শেষ হওয়ার পরদিন থেকে পনেরো দিন গণনা করা হবে।
এই পনেরো দিনের মধ্যে কোনো রক্ত আসলে সেটাকে ইস্তেহাজা তথা অসুস্থতা ধরতে হবে।
নামাজ রোযা আদায় করতে হবে।
,
★প্রশ্নে উল্লেখিত ছুরতে অক্টোবর মাসে আপনার যেদিন হায়েজ শুরু হয়েছিলো,সেদিন থেকে মোট ১০ দিন হিসেব করে সেটিকে হায়েজ ধরবেন।
এরপর মোট পনেরো দিনকে ইস্তেহাজা ধরবেন।
এ সময়ে নামাজ আদায় করতে হবে। 
এরপর ১০ দিন হায়েজ ধরবেন,নামাজ বন্ধ রাখবেন।
এর পর ১৫ দিন ইস্তেহাজা ধরবেন।

আরো জানুনঃ   

(উল্লেখ্য রক্ত একেবারে বের হয়ে আসলে সেটি নির্গত হয়েছে বলে ধরা হবে।
যদি ভিতরেই থাকে,তাহলে রক্ত নির্গত হয়নি,ধরা হবে।)


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...