0 votes
133 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (28 points)
১. শবে কদরের রাতের ব্যপ্তি কতটুক? মাগরিবের পর থেকে সুবহে সাদিক নাকি এশার ওয়াক্ত থেকে সুবহে সাদিক?

২.পৃথিবীর ভিন্ন ভিন্ন দেশে কি শবে কদর ভিন্ন ভিন্ন দিনে হতে পারে? যেমনঃ বাংলাদেশে ধরা হলো ২৫ রমযানের রাত শবে কদর, তাহলে আফ্রিকায় কি ২৭ বা ২৯ তারিখে হতে পারবে?

৩.শবে কদরের রাত কি আবর্তিত হয়?যেমনঃ বাংলাদেশে যেদিন ২৪ রমযান পৃথিবীর নানান দেশে ২৫ রমযান। এখন সেসব দেশে যদি শবে কদর ২৫ এ রমযানে হয় তাহলে বাংলাদেশ কি শবে কদর থেকে বঞ্চিত হবে? যেহেতু শবে কদর ২৫ এ রমযানে হয়ে গিয়েছে এবং সেদিন বাংলাদেশে ২৪ রমযান ছিলো

1 Answer

0 votes
by (127,360 points)
জবাব
بسم الله الرحمن الرحيم 


মহান আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেনঃ

নিশ্চয়ই আমি এটি (কুরআন) নাযিল করেছিলাইলাতুল কদরে। ২. তোমাকে কিসে জানাবে লাইলাতুল ক্দর কি? ৩. লাইলাতুল ক্দর হাজার মাস অপেক্ষা উত্তম। ৪. সেরাতে ফেরেশতারাও রূহ (জিবরাইল) তাঁদের রবের অনুমতিক্রমে সকল সিদ্ধান্ত নিয়েঅবতরণ করেন। ৫. শান্তিময় সেই রাত, ফজরের সূচনা পর্যন্ত।” [সূরা আল কদর, ৯৭: ১-৫]

আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা থেকে বর্ণিত যে তিনি বলেন :“(রমজানের শেষ) দশ রাত্রি শুরু হলে নবীসাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কোমর বেঁধে নামতেন। তিনি নিজে রাত জেগে ইবাদত করতেন এবং তাঁর পরিবারবর্গকে (ইবাদাতের জন্য) জাগিয়ে দিতেন।” [সহীহ বুখারী (২০২৪) ও সহীহ মুসলিম (১১৭৪)] 

আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা থেকে বর্ণিত হয়েছে যে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন: “রমজানের শেষ দশকের বেজোড় রাত গুলোতে লাইলাতুল ক্দর অনুসন্ধান কর।”[সহীহ বুখারী (২০১৭) ও সহীহমুসলিম (১১৬৯), 

আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামথেকে বর্ণনা করেছেন যে তিনি বলেন: “যে ব্যক্তি ঈমান সহকারে এবং প্রতিদানের আশায় লাইলাতুল ক্দরেনামায পড়বে তার অতীতের সমস্ত গুনাহ মাফ করে দেয়া হবে।”[সহীহ বুখারী (১৯০১) ও মুসলিম (৭৬০)]


(০১)
শবে কদরের রাতের ব্যপ্তি সূর্যাস্থ তথা মাগরিবের সময় থেকে সুবহে সাদিক পর্যন্ত। 
,
(২.৩)
★★প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনি ভাই,
পৃথিবীর ভিন্ন ভিন্ন দেশে শবে কদর ভিন্ন ভিন্ন রাতে হতে পারে।

আমরা নিজ দেশের রোজার সংখ্যা অনুযায়ী কদর তালাশ করবো।
সৌদি আরব বা অন্য কোনো দেশের রোজা অনুযায়ী তালাশ করবোনা।

সৌদি আরব আর বাংলাদেশে একই রাতে শবে কদর হবেনা।

বিস্তারিত জানুনঃ   


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...