+1 vote
28 views
in পবিত্রতা (Purity) by (19 points)
আসসালামু আলাইকুম সম্মানিত শাইখ...আমার প্রশ্ন হলোঃ
১। বগলের চুল/নাভির নিচের চুল কাটার প্রকৃত বিধান কি? কিভাবে কাটার কথা বলা হয়েছে? একদম সব তুল ফেলতে হবে নাকি ছেটে  ছোট করতে হবে? উপড়ানো আর মুন্ডন তো একই কথা তাই নাহ ?

২। নাভির ঠিক কতটুকু নিচ থেকে চুল কাটতে হবে? কেউ কেউ বলেন চার পাচ আংগুল নিচ থেকে আবার কেউ বলেন যে নাভির একদম নিচ থেকেই কাটতে হবে? সঠিক কোনটা?
৩। বগলের চুল/নাভির নিচের চুল ব্যতীত কি শরীরের অন্য কোনো অংশের চুল স্থায়ীভাবে/অস্থায়ীভাবে গোড়া থেকে  তুলে ফেলা যাবে অথবা কেটে ছোট করা যাবে?

আমি বলতে চাচ্ছি যে উপড়ানো আর কেটে ফেলা...।এই দুইটা বিষয় একটু ক্লিয়ার করবেন...যেমন বগলের লোম উপড়ে ফেলতে বলা হয়েছে মানে গোড়া থেকে কেটে ফেলা...।এখন আমি যদি রেজর দিয়ে গোড়া থেকে পুরোটা শেইভ করে ফেলি তাহলে তো সেটা আদতে উপড়ানোই হচ্ছে...তাই নাহ শাইখ?

বগলের নিচের চুল উপড়ে ফেলতে বলা হয়েছে আর এটাই হাদিসের ভাষ্য...এখন এই উপড়ানোর কাজ টা কি দিয়ে করতে হবে? হাত দ্বারা নাকি অন্য যেকোনো কিছুই ইউজ করা যাবে? কোনটা দিয়ে করতে উৎসাহিত করা হয়েছে..

আর নাভির নিচের চুলের ক্ষেত্রে বিধান হলো কেটে ফেলা...তো কেটে ফেলা মানে কি পুরো কেটে ফেলা (বগলের মত) নাকি এ সু্যোগ ও আছে যে কেউ চাইলে কেটে ছোট করতে পারবে... প্রকৃত বিধান কোনটি?
আর এসব কাজ করার জন্য কি যেকোনো কিছু ইউজ করা যাবে ( ব্লেড /ক্ষুর / কাচি/ ট্রিমার/ রেজর/হেয়ার রিমুভাল ক্রিম)??
এ ব্যাপার গুলো নিয়ে খুব ই কনফিউশনে আছি ...অনুগ্রহ করে সঠিক টা জানাবেন সম্মানিত শাইখ

1 Answer

–1 vote
by (32.2k points)
বিসমিহি তা'আলা

জবাবঃ-
হযরত আবু হুরায়রা রাযি থেকে বর্ণিত,
وعن أبي هريرة، قال: قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: ((الفطرة خمس: الختان، والاستحداد، وقص الشارب، وتقليم الأظفار، ونتف الإبط)) متفق عليه.
রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেন,ফিতরাত তথা স্বভাবগত সুন্নত পাচঁটি।
(১)খৎনা করা।(২)খুর দ্বারা নাভীর নীচ পরিস্কার করা।(৩)মুছ কাট(৪)নক কাটা(৫)বগলের চুলকে উপড়িয়ে ফেলা।(মিশকাতুল মাসাবিহ-৪৪২০)

মুল্লা আলী ক্বারী রাহ উক্ত হাদীসের ব্যখ্যায় লিখেন,
(والاستحداد) : أي حلق العانة، وهو استفعال من الحديد، وهو استعمال الحديد من نحو الموسى في حلق العانة ذي الشعر الذي حوالي ذكر الرجل وفرج المرأة. زاد ابن شريح: وحلقة الدبر، فجعل العانة منبت الشعر مطلقا، والمشهور الأول، فإن أزال شعره بغير الحديد لا يكون على وجه السنة. كذا في شرح المشارق، ويجب أن يعلم أنه لا يقطع شيئا من شعر وهو جنب.
ইস্তেহদাদ অর্থ হলো,নাভীর নীচ কে খুর ইত্যাদি দ্বারা পরিস্কার করা। পুরুষাঙ্গ ও যোনিপথের আশপাশের সবকিছুকে খুর দ্বারা পরিস্কার করতে হবে।ইবনে শুরাইহ বলেন, মলমূত্রত্যাগের স্থানকেও খুর দ্বারা পরিস্কার করতে হবে।উনি নাভীর নীচের সকল চুলকে তাতে শামিল রাখেন তা যেখানেই হোকনা কেন।তবে প্রথম মতটাই অধিক প্রসিদ্ধ।যদি কেউ খুর ব্যতীত অন্য কিছু দ্বারা নাভীর চুলকে পরিস্কার করে,তাহলে সেটা সুন্নত অনুযায়ী হবে না।(শরহে মাশারিক্ব) সবার জানা থাকা উচিৎ যে,জুনুবী অবস্থায় নাভীর চুলকে কাটা যাবে না।

المفهوم من حديث أبي هريرة: أن حلق الإبط ليس بسنة، بل السنة نتفه لأن شعره يغلظ بالحلق، ويكون أعون للرائحة الكريهة. قال النووي: النتف أفضل لمن قوي عليه، لما حكي أن الشافعي كان يحلق إبطه فقال: علمت أن السنة نتفه، لكن لا أقوى على الوجع.
আবু হুরায়রা রাযি এর হাদীস থেকে বুঝা যায় যে,বগলের চুলকে মুন্ডানো সুন্নত নয়।বরং সুন্নত হলো,উপড়িয়ে ফেলা।কেননা মুন্ডানোর দ্বারা বগলের চুল আরো গাঢ়তম আকার ধারণ করবে, অতঃপর সেটা দুর্গন্ধের অন্যতম কারণ বনে যাবে।ইমাম নববী রাহ বলেন,উপড়িয়ে ফেলার কষ্টকে যার সহ্য করার ক্ষমতা রয়েছে সে যেন উপড়িয়ে ফেলে।আর যার সহ্য করার ক্ষমতা নেই, সে যেন মুন্ডিয়ে ফেলে।যেমন ইমাম শাফেয়ী রাহ বগলের চুলকে উপড়িয়ে ফেলতেন।উনাকে জিজ্ঞাসা করা হলে উনি বলতেন,আমি জানি উপড়িয়ে ফেলা সুন্নত।তবে উপড়িয়ে ফেলার কষ্টকে আমি সহ্য করতে পারি না।

সু-প্রিয় পাঠকবর্গ ও প্রশ্নকারী দ্বীনী ভাই/বোন!

(১)
বগলের চুলকে উপড়িয়ে ফেলাই সুন্নত।তবে মুন্ডানোও জায়েয।
আর নাভীর নীচের চুলকে মুন্ডিয়ে ফেলা সুন্নত।তবে ঔষধ ব্যবহার করে পরিস্কার করা বা কেচি দ্বারা গোড়ায় কেটে ফেলারও অনুমোদন রয়েছে।
ইবনে হাজার আসক্বালানী রাহ বলেন,পুরুষ-মহিলা উভয়ের জন্য নাভীর নীচ মুন্ডানো সুন্নত।ইমাম নববী রাহ লিখেন,নাভীর নীচের চুলের ব্যাপারে পুরুষের জন্য মুন্ডানো এবং মহিলার জন্য উপড়িয়ে ফেলা উত্তম।(ফাতাওয়ায়ে মাহমুদিয়্যাহ-১৯/৪৪৬)

নাওরাহ তথা চুল উপড়ানোর বিশেষ এক প্রকার ঔষধকে এক্ষেত্রে ব্যবহার করা যাবে।যেমন রাসূলুল্লাহ সাঃ করেছেন।

হযরত উম্মে সালামাহ রাযি থেকে বর্ণিত,
عن أم سلمة، «أن النبي صلى الله عليه وسلم كان إذا اطلى بدأ بعورته، فطلاهابالنورة، وسائر جسده أهله»
যখন রাসূলুল্লাহ নাওরাহ ব্যবহার করার ইচ্ছা করতেন,তখন তিনি সতরে আওরাত থেকে নাওরাহ-কে লেপ্টানো শুরু করতেন।অতঃপর নাওরাহ লেপ্টানো চুলকে শরীর থেকে সরিয়ে ফেলতেন।এবং উনার শরীর অন্যান্য অংশের চুল পরিস্কারের দায়িত্ব পরিবারের কাছে ছেড়ে দিতেন।(সুনানু ইবনি মা'জা-৩৭৫১)

(২)
নাভীর নীচের একটা খাদ রয়েছে, সেখান থেকে শুরু করে গোপনাঙ্গের আশপাশ,অন্ডকোষের চুল,এবং গুহ্যদ্বার এর চুল মুন্ডানো সুন্নত।কেউ কেউ বলেন,নাভীর নীচে যেখানেই চুল থাকবে সেখানকেই মুন্ডানো সুন্নত।আমি এই দ্বিতীয় মতকে পালন করার পরামর্শ দিবো।কেননা চুলই দুর্গন্ধের কারণ হয়।সুতরাং এমনভাবেই পরিস্কার করা উচিৎ যাতে দুর্গন্ধের কোনো কারণ আর বাকী না থাকে।সাপ্তাহে একবার বা দুই সাপ্তাহে একবার। চল্লিশদিন অতিক্রম করা মাকরুহে তাহরীমি।

(৩)
নাভীর নীচ এবং বগলের চুল ব্যতীত শরীরের অন্যান্য অঙ্গের চুল প্রয়োজনে মুন্ডানো যাবে।তবে সেটা আদবের খেলাফ।আর অমুসলিমদের অনুসরণে হলে সেটা হারাম।
ফাতাওয়ায়ে হিন্দিয়ায় বর্ণিত রয়েছে-
وفي حلق شعر الصدر والظهر ترك الأدب كذا في القنية
বুক এবং পিঠের চুলকে মুন্ডানো খেলাফে আদব।(ফাতাওয়ায়ে হিন্দিয়া-৫/৩৫৮)

আরো বর্ণিত রয়েছে-
(ফাতাওয়ায়ে মাহমুদিয়্যাহ-১৯/৪৪৬)

আল্লাহ-ই ভালো জানেন।

উত্তর লিখনে

মুফতী ইমদাদুল হক

ইফতা বিভাগ, Iom.

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনার দ্বীন সম্পর্কীয় প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য রয়েছে আমাদের  অভিজ্ঞ ওলামায়কেরাম ও মুফতি সাহেবগনের একটা টিম যারা ইনশাআল্লাহ প্রশ্ন করার ২৪-৪৮ ঘন্টার সময়ের মধ্যেই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন।

...