0 votes
30 views
in ঈমান ও বিশ্বাস (Faith and Belief) by (1 point)
edited by
একজন মেয়ে যদি জাহান্নামী হয় তবে বলা হয় সে তার বাবা, স্বামী, ভাই এবং বড় ছেলেকে নিয়ে জাহান্নামে যাবে, এটা কি সহীহ??? আরেকটা জিনিস জানার ছিল- ফরয নামাজের ৩য় বা ৪র্থ রাকাতে কোন সূরা পরে ফেললে কি সিজদাহ সাহু দিতে হবে?? যদি দিতে হয় সূরার কতটুকু পর্যন্ত পরলে ওয়াজিব হবে?

1 Answer

0 votes
by (79,640 points)
জবাব
بسم الله الرحمن الرحيم 


(০১)
প্রশ্নে উল্লেখিত কোনো হাদীস পাওয়া যায়নি।
এটাকে রাসুল সাঃ এর হাদীস বলা যাবেনা।
এটি ছহীহ কথা নয়।
,
জামিয়া বিন নুরি পাকিস্তানের 144106200833 নং ফতোয়া দ্রষ্টব্য।
,
প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনি ভাই,
এক্ষেত্রে দাইয়্যুস জান্নাতে যাবেনা,মর্মে হাদীস এসেছে।
,
এখন আমাদের জানতে হবে যে দাইয়্যুস কে?
,
বেপর্দা নারীর গার্জিয়ান যে হবে,সেই দাইয়্যুস হিসেবে সাব্যস্ত হবে।যদি পিতা জীবিত থাকেন,বা বড় ভাই জীবিত থাকেন,তাহলে অভিভাবকত্বের দায়িত্ব তাদের।তাই তারা দাইয়্যুস হিসেবে পরিগণিত হবেন।যদি তারা না থাকেন,তাহলে ছোট্ট ভাই তাদের অভিভাবক হবে।এবং সে দাইয়্যুস হিসেবে পরিগণিত হবে।

দাইয়ুস সে ব্যক্তিকেই বলা হয়, যে তার পরিবার পরিজনকে সঠিক রাস্তায় পরিচালনা করেন না।

অর্থাৎ-যে ব্যক্তি তার স্ত্রী-সন্তানদের বেপর্দা বেহায়াপনা ও অশ্লীলতার সুযোগ দেয় তাকেও দাইউস বলা হয়। 

রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন যে, “আল্লাহ তিন ব্যক্তির জন্য জান্নাত হারাম করেছেন। মাদকাসক্ত, পিতা-মাতার অবাধ্য এবং দাইউস, যে তার পরিবারের মধ্যে ব্যভিচারকে প্রশ্রয় দেয়”[ মুসনাদে আহমাদ: ২/৬৯ ]

রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেছেন : 
‘দাইউস ব্যক্তি জান্নাতে প্রবেশ করবে না।’ সাহাবায়ে কেরাম (রাঃ) জিজ্ঞেস করলেনঃ হে আল্লাহ্র রাসূল (সাঃ)! দাইউস কে? উত্তরে রাসুলূল্লাহ (সাঃ) বললেন, ‘যে ব্যক্তি তার পরিবারে আল্লাহ্র আদেশ-নিষেধ বাস্তবায়নের ব্যাপারে কোন তৎপরতা অবলম্বন করে না বরং উপেক্ষা করে চলে।’ অন্য বর্ণনায় এসেছে যে, ‘দাইউস হল সে, যে তার পরিবারে বেহায়পনার বাস্তবায়নে সন্তষ্ট ও পরিতুষ্ট।’ (মুসনাদে আহমদ)

বিস্তারিত জানুনঃ 

(০২)
এতে সেজদায়ে সাহু ওয়াজিব হবেনা।
,   
ফরজ সালাতের ৩য়/৪র্থ রাকাতে সূরা ফাতিহার পর অন্য সূরা মিলিয়ে পড়ে ফেললে অথবা অল্প একটু পরে ফেলার পর মনে পড়লে,তখন করনীয় হল, আপনি সম্পূর্ণ পুরা করে নামায পড়বেন।
সাহু সিজদা আসবে না।
,
বিস্তারিত জানুনঃ 


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...