0 votes
884 views
in সালাত(Prayer) by (18 points)
আসসালামুয়ালাইকুম

যাওয়াল নামায কি যোহরের নামায আদায় করার পর পড়া যায়?মানে ২ টা ৩টা বাজে?

1 Answer

0 votes
by (39.8k points)
বিসমিহি তা'আলা

সমাধানঃ-

(ক)

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে সায়িব রাযি থেকে বর্ণিত,তিনি বলেন,

عَنْ عَبْدِ اللهِ بْنِ السَّائِبِ، أَنَّ رَسُولَ اللهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ كَانَ يُصَلِّي أَرْبَعًا بَعْدَ أَنْ تَزُولَ الشَّمْسُ قَبْلَ الظُّهْرِ، وَقَالَ: إِنَّهَا سَاعَةٌ تُفْتَحُ فِيهَا أَبْوَابُ السَّمَاءِ، وَأُحِبُّ أَنْ يَصْعَدَ لِي فِيهَا عَمَلٌ صَالِحٌ.

وَفِي البَابِ عَنْ عَلِيٍّ، وَأَبِي أَيُّوبَ.

রাসূলুল্লাহ সাঃ যাওয়ালের পর এবং যোহরের নামাযের পূর্বে চার রা'কাত নামায পড়তেন।এবং রাসূলুল্লাহ সাঃ এ নামায সম্পর্কে বলতেন,এই (নামাযের)সময়টা এমন এক গুরুত্বপূর্ণ মুহুর্ত যে,তখন আকাশের দরজা সমূহকে খুলে দেয়া হয়। আমি পছন্দ করি যে,এই সময়টাতে আমার নেক আ'মলগুলো আল্লাহর নিকট গিয়ে পৌছুক।(তাই আমি নামায পড়ি)সুনানে তিরমিযি-৪৭৮

উপরোক্ত হাদীসে বর্ণিত যাওয়ালের নামায দ্বারা উদ্দেশ্য কি?

এই নামায কি যোহরের সুন্নাতে কাবলিয়্যাহ তথা যোহরের ফরয নামাযের পূর্বের চার রাকাত সুন্নাত নামায না কি এটা পৃথক কোনো নামায?

এ সম্পর্কে বলা যায় যে, এই নামায সম্পর্কে মতবিরোধ রয়েছে,

তবে বিশুদ্ধ মত হল, হাদীসে যাওয়ালের যে নামাযের কথা বর্ণিত রয়েছে, সেটা দ্বারা যোহরের ফরযের পূর্বের চার রাকাত সুন্নাত নামাযের কথাই বিবৃত হয়েছে।

لما في الدرالمختار ج٢/ ص١٣

(وسن) مؤكدا (أربع قبل الظهر و) أربع قبل (الجمعة و) أربع (بعدها بتسليمة)

وفي ردالمحتار  (قوله بتسليمة) لما عن عائشة - رضي الله عنها - «كان النبي - صلى الله عليه وسلم - يصلي قبل الظهر أربعا، وبعدها ركعتين، وبعد المغرب

ثنتين، وبعد العشاء ركعتين، وقبل الفجر ركعتين» رواه مسلم وأبو داود وابن حنبل. وعن أبي أيوب «كان يصلي النبي - صلى الله عليه وسلم - بعد الزوال أربع ركعات، فقلت: ما هذه الصلاة التي تداوم عليها؟ فقال: هذه ساعة تفتح أبواب السماء فيها، فأحب أن يصعد لي فيها عمل صالح، فقلت: أفي كلهن قراءة؟ قال نعم، فقلت: بتسليمة واحدة أم بتسليمتين؟ فقال بتسليمة واحدة» رواه الطحاوي وأبو داود والترمذي وابن ماجه من غير فصل بين الجمعة والظهر، فيكون سنة كل واحدة منها أربعا.

(খ)।
যোহরের সুন্নাতে কাবলিয়্যাহ খুবই গুরুত্বপূর্ণ নামায।এর সুন্নাত নামাযের স্থর অন্যান্য সুন্নাতে মুআক্বদা এর উপরে,যেমন ফজরের সুন্নাতের স্থর ।

যেমন ফাতাওয়ায়ে শামীতে বর্ণিত রয়েছে,

(و) السنن (آكدها سنة الفجر) اتفاقا، ثم الأربع قبل الظهر في الأصح، لحديث «من تركها لم تنله شفاعتي» ثم الكل سواء (وقيل بوجوبها، فلا تجوز صلاتها قاعدا)

সুন্নাত নামায সমূহের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নামায হলো ফজরের সুন্নাত নামায।অতঃপর যোহরের সুন্নাতে কাবলিয়্যাহ। কেননা যোহরের সুন্নাত সম্পর্কে হাদীসে বর্ণিত রয়েছে যে, যে ব্যক্তি যোহরের সুন্নাতে কাবলিয়্যাহ কে পড়বে না সে ব্যক্তি আমি নবীর শা'ফায়ত পাবে না।

তারপর মর্যাদার দিক দিয়ে সকল সুন্নাত নামায সমান।

(গ)

যেহেতু বিভিন্ন হাদীসের অালোকপাতে যোহরের সুন্নাতে কাবলিয়্যাহ এর বিশেষ গুরুত্ব  রয়েছে।

তাই যোহরের সুন্নাতে কাবলিয়্যাহ কখনো যদি ছুটে যায় তাহলে যোহরের সুন্নাতে বা'দিয়্যহ আদায় করার পর সুন্নাতে কাবলিয়্যাহ কে পড়ে নেবে।এবং আছরের নামাযের পূর্ব পর্যন্ত এ সুন্নাত পড়া যাবে।

আল্লাহ-ই ভালো জানেন।

উত্তর লিখনে

মুফতী ইমদাদুল হক

ইফতা বিভাগ, Iom.

পরিচালক

ইসলামিক রিচার্স কাউন্সিল বাংলাদেশ

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনার দ্বীন সম্পর্কীয় প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য রয়েছে আমাদের  অভিজ্ঞ ওলামায়কেরাম ও মুফতি সাহেবগনের একটা টিম যারা ইনশাআল্লাহ প্রশ্ন করার ২৪-৪৮ ঘন্টার সময়ের মধ্যেই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন।

...