আইফতোয়াতে ওয়াসওয়াসা সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হবে না। ওয়াসওয়াসায় আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা ও করণীয় সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন

0 votes
35 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (2 points)
আসসালামু আলাইকুম। মুহতারাম,, আমার অনেক সময় ফজরের নামাজের পর ৭:০০ বা ৮:০০ এর দিকে গোসল ফরজ হয়(স্বপ্ন দোষ) ধাতু রোগের কারণে। এখন আমি অনেক সময় লোক লজ্জায় গোসল করতে হীনমন্যতায় ভোগী।
তাই আমি যদি যোহর এর নামাজের পূর্বে গোসল করি তাহলে কি নাপাক থাকার কারণ গোনাহ হবে?

২. নফল নামাজ বা ইবাদাতের পর ইস্তেগফার করা কি শরিয়ত স্মমত। বা সুন্নাহ কি

1 Answer

0 votes
by (725,040 points)
ওয়া আলাইকুমুস-সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু। 
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
আলহামদুলিল্লাহ!
(১)
ফরয গোসল সাথে সাথে করাই মুস্তাহাব। তবে পরবর্তী নামাযের ওয়াক্ত পর্যন্ত দেড়ী করলে কোনো গোনাহ হবে না। তবে নামায ওয়াক্ত চলে যাচ্ছে এমতাবস্থায়ও ফরয গোসল করা হচ্ছে না, এটা জায়েয হবে না।

لما في مرقاۃ المفاتیح:
"ولا جنب أي الذي اعتاد ترك الغسل تهاونا حتى يمر عليه وقت صلاة فإنه مستخف بالشرع، لا أي جنب كان فإنه ثبت أن النبي صلی الله علیه وسلم كان يطوف على نسائه بغسل واحد، وكان ينام بالليل وهو جنب إلى ما بعد الفجر حتى في رمضان، ولا جنب من زنا؛ إذ المراد إلا أن يتوضأ كما سيأتي في الحديث."

وفیه أیضاً:
"والجنب إلا أن يتوضأ أراد به الوضوء المتعارف كما مر وهذا تهديد وزجر شديد عن تأخير الغسل كيلا يعتاد."
(باب مخالطة الجنب: ج: 2، ص: 383-384، ط: المشکاة الإسلامیة)

وفي الفتاوی الهندية :
"الجنب إذا أخر الاغتسال إلى وقت الصلاة لا يأثم. كذا في المحيط." (کتاب الطہارۃ،الباب الثالث فی المیاہ،ج:1،ص:16،دارالفکر)

(২)
নফল নামাজ বা ইবাদাতের পর ইস্তেগফার করা ওয়াজিব বা জরুরী নয়, হ্যা অবশ্যই মুস্তাহাব ও উত্তম তথা সুন্নাহ সম্বলিত আমল।

"کان رسول الله صلی الله علیه وسلم إذ انصرف من صلاته استغفر ثلاثاً"۔ (رواه مسلم)
ترجمہ: رسول اللہ
عمل الیوم واللیلة للنسائی (ص ۲۷۳، حدیث نمبر: ۳۰۸، ما یختم تلاوة القرآن)میں ہے:
"عن عائشة قالت: ما جلس رسول الله صلی الله علیه وسلم مجلساً قط ولا تلی قرآنًا ولا صلی صلاةً إلا ختم ذلک بکلمات، فقالت: فقلت: یا رسول الله! أراک ما تجلس (مجلسًا) اھ ولا تتلو قرآناً ولا تصلي صلاةً إلا ختمت بهوٴلاء الکلمات؟ قال: نعم، من قال خیرًا ختم له طابع علی ذلک الخیر، ومن قال شرًّا کن له کفارةً․ "سبحانک وبحمدک لا إله إلا أنت، أستغفرک وأتوب إلیک“․
تفسير ابن كثير ت سلامة (7/ 418):
"قوله عز وجل: {وبالأسحار هم يستغفرون} قال مجاهد، وغير واحد: يصلون. وقال آخرون: قاموا الليل، وأخروا الاستغفار إلى الأسحار. كما قال تعالى: {والمستغفرين بالأسحار} [آل عمران: 17]، فإن كان الاستغفار في صلاة فهو أحسن. وقد ثبت في الصحاح وغيرها عن جماعة من الصحابة، عن رسول الله صلى الله عليه وسلم أنه قال: "إن الله ينزل كل ليلة إلى سماء الدنيا حين يبقى ثلث الليل الأخير، فيقول: هل من تائب فأتوب عليه؟ هل من مستغفر فأغفر له؟ هل من سائل فيعطى سؤله؟ حتى يطلع الفجر".
وقال كثير من المفسرين في قوله تعالى إخباراً عن يعقوب أنه قال لبنيه: {سوف أستغفر لكم ربي} [يوسف 98] قالوا: أخرهم إلى وقت السحر".
﴿ وَالَّذِينَ يُؤْتُونَ مَا آتَوا وَقُلُوبُهُمْ وَجِلَةٌ أَنَّهُمْ إِلَى رَبِّهِمْ رَاجِعُونَ ﴾ [المؤمنون: 60]، سألت عائشة - رضي الله عنها - رسولَ الله صلى الله عليه وسلم عن هذه الآية، فقالت: "يا رَسُولَ الله، هو الذي يَسْرِقُ ويزني وَيَشْرَبُ الْخَمْرَ، وهو يَخَافُ الله؟" قال: ((لاَ يا بِنْتَ أَبِى بَكْرٍ؛ وَلَكِنَّهُ الرَّجُلُ يَصُومُ ويصلي وَيَتَصَدَّقُ، وهو يَخَافُ أَلاَّ يُقْبَلَ منه))؛ رواه أحمد".


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন। এই প্রশ্ন ও উত্তরগুলো আমাদের ফেসবুকেও শেয়ার করা হবে। তাই প্রশ্ন করার সময় সুন্দর ও সাবলীল ভাষা ব্যবহার করুন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি স্থানীয় মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

Related questions

0 votes
1 answer 365 views
...