0 votes
26 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (23 points)
কোন অসৎ কাজের জন্য নয়,কেবল নিজের পরিচয় গোপন রাখার জন্য কেউ কি ফেইক ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বা যেকোনো ই - মেইল একাউন্ট ব্যবহার করতে পারে?এতে কি সে গুনাহগার হবে?

1 Answer

+1 vote
by (82,360 points)
উত্তর
بسم الله الرحمن الرحيم  

শরীয়তের বিধান অনুযায়ী ফেসবুকে ছদ্মনাম ব্যবহার করে,(ফেইক আইডি খুলে),যেকোনো নামে (ফেইক) ই - মেইল একাউন্ট ব্যবহার করে, ন্যায্য বিষয় নিয়ে,সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে  লেখালেখি করা জায়েজ আছে। তবে শরীয়ত বহির্ভূত কোনো কাজ করা যাবেনা।
অসৎ কাজ করা যাবেনা।
,
দেশ ও মানবতা  বিরোধী কোনো কিছু করা যাবেনা।    এই ফেইক আইডি ব্যবহার করে কাউকে এমন কথা বলা যাবেনা,যেটা ধোকা দেওয়া বুঝায়।
কারন ধোকা দেওয়া ইসলামে জায়েয নেই। 

★আল্লাহ তায়ালা বলেনঃ
وَتَعَاوَنُوا عَلَى الْبِرِّ وَالتَّقْوَىٰ ۖ وَلَا تَعَاوَنُوا عَلَى الْإِثْمِ وَالْعُدْوَانِ ۚ وَاتَّقُوا اللَّهَ ۖ إِنَّ اللَّهَ شَدِيدُ الْعِقَابِ [٥:٢] 
সৎকর্ম ও খোদাভীতিতে একে অন্যের সাহায্য কর। পাপ ও সীমালঙ্ঘনের ব্যাপারে একে অন্যের সহায়তা করো না। আল্লাহকে ভয় কর। নিশ্চয় আল্লাহ তা’আলা কঠোর শাস্তিদাতা। {সূরা মায়িদা-২}
,
★হাদীস শরীফে এসেছে  
عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ، قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: «مَنْ غَشَّنَا فَلَيْسَ مِنَّا»
হযরত আবু হুরায়রা রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেনঃ যে ধোঁকা দেয়, সে আমার উম্মতের অন্তর্ভূক্ত নয়। {মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস নং-২৩১৪৭, সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-১৬৪, সুনানে দারেমী, হাদীস নং-২৫৮৩, সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-২২২৫, সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদীস নং-৪৯০৫}

★অন্য এক হাদীসে এসেছে 
قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: «الْمُسْلِمُونَ عَلَى شُرُوطِهِمْ
হযরত আবূ হুরায়রা রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সাঃ ইরশাদ করেছেনঃ মুসলমানগণ তার শর্তের উপর থাকবে। {সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-৩৫৯৪, সুনানে দারা কুতনী, হাদীস নং-২৮৯০, শুয়াবুল ঈমান, হাদীস নং-৪০৩৯}
,
সুতরাং  কাউকে যদি ধোকা না দেওয়া হয়,অসৎ কাজ যদি না করে,এবং শরীয়ত বহির্ভূত  কোনো  লেখালেখি না করা হয়,তাহলে প্রশ্নে উল্লেখিত আইডি,ইমেইল খোলা জায়েজ আছে।   
,
তবে কাউকে ধোকা দেওয়া হলে,অসৎ কাজ করলে,বা শরীয়ত বহির্ভূত কোনো কাজ করা হলে এটি জায়েজ হবেনা। 


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...