0 votes
7 views
in পবিত্রতা (Purity) by (125 points)
জুতার সাথে আমরা সাধারণত যেসব কাপড়ের মোজা পরে থাকি,এগুলার উপর দিয়ে মাসেহ করলে কি পবিত্রতা অর্জন হবে?

কোনোরকম ওজর ছাড়া যে কেউ চাইলেই যে কোনো সময় কি ওযুর সময় পা না ধুয়ে মাসেহ করতে পারবে?নাকি কোনো বিশেষ ক্ষেত্রবিশেষে শুধুমাত্র মাসেহ করার অনুমতি দেওয়া হয়?

ব্যাপারটা কি এমন যে একজন পূর্ণাঙ্গ ওযু করবে, শুধুমাত্র পা ধোয়ার বদলে মোজার উপরে মাসেহ করে নিবে?

1 Answer

0 votes
by (94,520 points)

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
মুজার উপর মাসেহ বৈধ হওয়ার জন্য সাতটি শর্ত রয়েছে-
ويشترط لجواز المسح على الخفين سبعة شروط الأول لبسهما بعد غسل الرجلين ولو قبل كمال الوضوء إذا أتمه قبل حصول ناقض للوضوء والثاني سترهما للكعبين والثالث إمكان متابعة المشي فيهما فلا يجوزعلى خف من زجاج أو خشب أو حديد والرابع خلو كل منهما عن خرق قدر ثلاث أصابع من أصغر أصابع القدم والخامس استمساكهما على الرجلين من غير شد والسادس منعهما وصول الماء الى الجسد والسابع أن يبقى من مقدم القدم قدر ثلاث أصابع من أصغر أصابع اليد فلو كان فاقدا مقدم قدمه لا يمسح على خفه ولو كان عقب القدم موجودا ويمسح المقيم يوما وليلة والمسافر ثلاثة أيام بلياليها وابتداء المدة من وقت الحدث بعد لبس الخفين
(১)অজুর সময়ে পা ধৌত করার পর পড়তে হবে।যদিও অজুকে পূর্ণ করা না হউক তবে মুজা পরার পর অজুকে পূর্ণ করার পূর্বে কোনো হদস বা অজু ভঙ্গকারী জিনিষ সামনে আসতে পারবে না।(২)মুজা দ্বারা টাখনু পর্যন্ত পা-কে ঢেকে রাখা সম্ভব হতে হবে।(৩)মুজা দ্বারা একাধারে তিন মাইল(শরয়ী) বা সাড়েপাঁচ কিলোঃ হাটা সম্ভব হতে হবে।সুতরাং লোহা, শিষা, লাকড়ি ইত্যাদির মুজা দ্বারা মাসেহ করার কখনো জায়েয হবে না।(৪)মুজা তিন আঙ্গুল পরিমাণ ছিড়া থাকতে পারবে না।(৫)কোনো কিছু দ্বারা বাঁধা ব্যতীত মুজা পায়ের উপর এটে থাকতে হবে।(৬) শরীরে পানি প্রবেশ হতে বাধা প্রদানকারী হতে হবে।(৭)পা কর্তিত থাকাবস্থায়,পায়ের উপরি ভাগের সামনের অংশে তিন আঙ্গুল পরিমাণ অবশিষ্ট থাকতে হবে।যদি পায়ের উপরিভাগের সামনের অংশে তিন আঙ্গুল পরিমাণ পায়ের পাতা অবশিষ্ট না থাকে,তাহলে তখন মুজার উপর মাসেহ করা কখনো জায়েয হবে না।যদিও এক্ষেত্রে পায়ের পিছনে অংশ বাকী থাকুক না কেন?
(মাসেহের সময়সীমা)
মুক্বিম ব্যক্তি একদিন একরাত পর্যন্ত মুজার উপর মাসেহ করতে পারবে।তবে মুকিম ব্যক্তি তিনদিন তিনরাত পর্যন্ত মুজার উপর মাসেহ করতে পারবে।মুজা পরিধান করার পর যখন অজু চলে যাবে,মূলত তখন থেকেই মাসেহের সময়ের সূচনা হবে।(মারাকিল ফালাহ-১/৫৬-৫৭)
বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন-https://www.ifatwa.info/2723


সু-প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনী ভাই/বোন!
(১)
চামড়ার মোজার উপর মাসেহ জায়েয আছে। কিন্তু চামড়া ছাড়া সুতা বা পশমের তৈরি যেসব মোজা সচরাচর পাওয়া যায় এর উপর মাসেহ সহীহ নয়। তবে সুতা বা পশমের মোজায় নিম্নোক্ত শর্তগুলো পাওয়া গেলে তার উপর মাসেহ জায়েয হবে। শর্তগুলো হচ্ছে :
ক) মোজা এমন মোটা ও পুরু হওয়া যে, জুতা ছাড়া শুধু মোজা পায়ে দিয়ে তিন মাইল পর্যন্ত হাঁটা যায়। এতে মোজা ফেটে যায় না এবং নষ্টও হয় না। খ) পায়ের সাথে কোনো জিনিস দ্বারা বাঁধা ছাড়াই তা লেগে থাকে এবং তা পরিধান করে হাঁটা যায়।
গ) মোজা এমন মোটা যে, তা পানি চোষে না এবং তা ভেদ করে পানি পা পর্যন্ত পৌঁছায় না।
ঘ) তা পরিধান করার পর মোজার উপর থেকে ভিতরের অংশ দেখা যায় না। সচরাচর ব্যবহৃত সুতা বা পশমের মোজায় যেহেতু এসব শর্ত পাওয়া যায় না তাই এর উপর মাসেহ জায়েয হবে না।

সূত্র
জামে তিরমিযী ১/১৫; বাদায়েউস সানায়ে ১/৮৩; আলবাহরুর রায়েক ১/১৮২; আদ্দুররুল মুখতার ১/২৬৯; আলমুহীতুল বুরহানী ১/৩৪৩-৩৪৪; ফাতহুল কাদীর ১/১৩৮; শরহুল মুনইয়াহ পৃ. ১২০; মাজমাউল আনহুর ১/৭৫; আননাহরুল ফায়েক ১/১২৩(ফাতওয়া বিভাগ, মারকাযুদ দাওয়াহ আল ইসলামিয়া ঢাকা)


(২)
চামড়ার মোজা বা উপরোক্ত শর্তাদির সাথে কাপড়ের মোজা থাকলে,সেইসব মোজার উপর অজুর সময়ে মাসেহ করা যাবে।তবে প্রথমে অজু করে পা ধৌত করে নিতে হবে।

(৩)
মোজার উপর ভিজা হাতে মাসেহ করে নিতে হবে।


বিঃদ্রঃ
অজুর সময়ে মূলত নিয়ম হল,পা'কে ধৌত করা।তবে মানুষের সুবিধার্তে শরীয়ত পা'কে ধৌত না করে মাসেহের বিধান জারি করেছে।সুতরাং মাসা'আল হল,মোজার উপর অজুর সময়ে মাসেহ বৈধ কি না।মোজা পড়ে নামায হবে কি না? এটা মূলত মাসা'আলা নয়।কেননা মোজা পড়ে নামায হবে।এতে কোনো মতানৈক্য নেই।এবং এক্ষেত্রে কোনো শর্তাদিও নেই।
কাপড়ের মোজার উপরও মাসেহ করা যাবে।এবং মাসেহ করলে পবিত্রতা অর্জন হবে।

কোনোরকম ওজর ছাড়া যে কেউ চাইলে,যেকোনো সময় ওযুর সময় পা না ধুয়ে মাসেহ করতে পারবে।
তবে শর্ত হল,প্রথমবার পবিত্রতা অর্জনের পর উক্ত মোজাকে পরিধান করতে হবে।

হ্যা আপনি ঠিকই বলছেব,
ব্যাপারটা এমন যে একজন পূর্ণাঙ্গ ওযু করবে, শুধুমাত্র পা ধোয়ার বদলে মোজার উপরে মাসেহ করে নিবে।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...