আইফতোয়াতে ওয়াসওয়াসা সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হবে না। ওয়াসওয়াসায় আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা ও করণীয় সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন

0 votes
91 views
in পরিবার,বিবাহ,তালাক (Family Life,Marriage & Divorce) by (12 points)

আসসালামু আলাইকুম হুজুর,

আমি আপনার কাছে জানতে চাই,
একটু কষ্ট করে কথা গুলো পড়বেন।

আমি আগে স্ত্রীর সাথে WhatsApp/Messenger/Imo/Telegram এ ম্যসেজিং করতাম যখন একটু দুরে থাকতাম। ম্যসেজ লিখে ভালোমন্দ জিজ্ঞেস করতাম।এবং প্রায় সময়ই রাগ হয়ে ম্যসেজে স্ত্রীকে অনেক কথাই লিখতাম। তারপর একসাথে থাকার পর whatsapp তেমন ব্যবহার করতাম না। দুইজনই whatsapp এর ডাটা ডিলেট করে দিয়েছিলাম এবং সিম চেইঞ্জ করেছিলাম।তা অতীতে অনেক আগের কথা। তবে কয়েক মাস আগে ডিভোর্স এর মাসালা দেখে আমার মনে সন্দেহ জেগেছে যে যে স্ত্রীকে অতিতে রাগের মাথায় কিছু লিখেছিলাম নাকি। আপনাদের প্রশ্ন করেছিলাম,,,আপনারা বলেছেন যখন আমি আর স্ত্রীর কিছুই মনে নাই অতিতের কথা এবং WhatsApp/messenger এর ডাটা ডিলেট হয়ে গেছে তাই কোন সমস্যা হবে না নিশ্চিন্ত থাকতে বলেছেন।।


কিন্তু গতদিন ইউটিউব এ একটা ভিডিও দেখলাম যে WhatsApp এর ডিলেট হওয়া ম্যসেজ ফিরিয়ে আনা যায়। আমি তাই একটু চেষ্টা করছিলাম দুই তিনটা  software দিয়ে যে ডাটা রিকোভার করা যায় নাকি,,কিন্তু ডাটা পাই নি। Google এ সার্চ দিলাম লেখা যে WhatsApp এর ডিলেট হওয়া ম্যসেজ ফিরে পাওয়ার সম্ভাবনা কম কারন তাদের ডাটা ইনক্রিপটেড তবে কিছু রিকোভার Software দিয়ে ডিলেট ডাটা রিকোভার হইতেও পারে।। তবে চেষ্টা করলে ডাটা ফিরে পাওয়া যাইতে পারে যার জন্য হয়তো টাকা খরচ করা লাগতে পারে আবার নাও খরচ লাগতে পারে। তবে Google এ দেখলাম আধুনিক Software দ্বারা ডিলেট ডাটা রিকোভার সম্ভব।

 তারপর শয়তানের ওয়াসওয়াসাতে পড়ে আমি দুই তিনটা software দিয়া ট্রাই করতে গিয়েছিলাম কিন্তু ডাটা পাই নি। আরো ট্রাই করতে ছিলাম, তৎক্ষনাৎ মনে হলো হুজুর আপনারা পিছনের ম্যসেজ সার্চ করতে মানা করছিলেন এবং মন থেকে বাদ দিয়া দিতে বলেছিলেন।,তাই সাথে সাথে কম্পিউটারে যে কয়টা Software install করছিলাম ডাটা রিকোভার করার জন্য সব গুলা Uninstall করেছি।

তখন হঠাৎ মনে হলো যে, আমি শয়তানের ওয়াসওয়াস আর ধোকা তে পড়ে অতিতের WhatsApp এর ম্যসেজ কেনো রিকোভার করার চেষ্টা করতে গিয়েছি..!!!
লেখা তো কথার মতোই যা একবার অতিতে চলে গিয়েছে তাতো ফেরত আনা যায় না..!! আর যদি টেকনোলজির সাহায্যে লেখা যদি কখোনো ফেরত আসেও তা যে আমি লিখেছিলাম বা ওভাবেই লিখেছিলাম তার প্রমান কি। শয়তান তো অনেক কিছুই করতে পারে। যা আমার মনের অগোচরে হয়ে গেছে...!! এসব ভেবে আমি তারপর সিদ্ধান্ত নিছি যে আমি মোবাইলের কোন ডাটা রিকোভারি বা  ঘাটাঘাটি বা সার্চ করে খুজে দেখবো না যা অতিতে চলে গিয়েছে তা ফেরত আনার চেষ্টা করা উচিত না শয়তান ওয়াসওয়াসা এবং বিভ্রান্তিতে ফেলবে। 

তারপর কুরআনের আর হাদিসে কথা মনে পড়লো যে, হে আমাদের রব! যদি আমরা বিস্মৃত হই বা ভুলে যাই অথবা ভুল করি তবে আপনি আমাদেরকে পাকড়াও করবেন না। তাই অতিতের যেসব কথা ভুলে গেছি এর জন্য তো আল্লাহ ক্ষমা করবেন। এ সব ভেবে সিদ্ধান্ত নিছি যে whatsapp এ অতিতে যা হওয়ার হয়েছে তা একদম মাথা থেকে দুর করে দিবো আর ডাটা রিকোভার করা নিয়ে ঘাটাঘাটি করবোনা বা সার্চ করে দেখতে যাবোনা অতিতের যদি কোন ম্যসেজে কি লিখেছিলাম কোথাও যদি স্টোর বা Backup নিয়ে থাকে চোখে পড়লে সাথে সাথে ডিলেট করে দিবো। না হলে হুজুর আমাকে শয়তান আবার ওয়াসওয়াসা আর সন্দেহ এর ভিতর ফালাবে। 

 

 হুজুর আপনার কাছে পরামর্শ চাই,

আমার কি উচিত এসব অতিতের Whatsapp, Messenger এর ডাটা Software এর মাধ্যমে রিকোভার করার চেষ্টা না করে মন থেকে বাদ দিয়ে দিবো ??? বা ম্যসেজের এর backup কোথায় স্টোর হইছে বা ম্যসেজ সার্চ না করা???

যদি কখোনো ম্যসেজের রিকোভার বা backup File মোবাইলে বা চোখের সামনে পাই সাথে সাথে ডিলেট করে দিবো মনের ওয়াসওয়াসা আর সন্দেহ ভেবে???

অতীতের লেখা সন্দেহ আর ওয়াসওয়াস ভেবে মন থেকে বাদ দিয়ে দিবো??

এর জন্য কি আমার গুনাহ হবে??

এবং আমি কি মন থেকে সব বাদ দিয়ে ভালোভাবে সংসার করবো হুজুর...??? 

1 Answer

0 votes
by (701,080 points)
জবাব
وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته 
بسم الله الرحمن الرحيم 


তালাক শব্দ। এটি খুবই মারাত্মক একটি শব্দ। নিকৃষ্ট হালাল বলা হয়েছে হাদীসে। 

হাদীস শরীফে এসেছেঃ 

حَدَّثَنَا كَثِيرُ بْنُ عُبَيْدٍ، حَدَّثَنَا مُحَمَّدُ بْنُ خَالِدٍ، عَنْ مُعَرِّفِ بْنِ وَاصِلٍ، عَنْ مُحَارِبِ بْنِ دِثَارٍ، عَنِ ابْنِ عُمَرَ، عَنِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم قَالَ " أَبْغَضُ الْحَلاَلِ إِلَى اللَّهِ تَعَالَى الطَّلاَقُ " .

কাসীর  ইবন  উবায়দ .......... ইবন  উমার  (রাঃ)  নবী  করীম  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম  হতে  বর্ণনা  করেছেন যে,  আল্লাহ্  তা‘আলার  নিকট  নিকৃষ্টতম  হালাল বস্তু  হল  তালাক।

(আবূ দাউদ ২১৭৮, ইরওয়া ২০৪০, যইফ আবু দাউদ ৩৭৩-৩৭৪, আর-রাদ্দু আলাল বালীক ১১৩।) 

শরীয়তের বিধান হলো সন্দেহের ভিত্তিতে কোনো তালাক পতিত হয়না।  

قال العلامۃ الحموی: فحلفہ باطل ای فلا شییٔ علیہ قیل اما الطلاق والعتاق فانہما لا یقعان بالشک۔ (غمز عیون البصائر علی الاشباہ ۱:۱۹۸ القاعدۃ الثالثۃ)
সারমর্মঃ  
তালাক এবং গোলাম আযাদ,এ দুটি বিষয় সন্দেহের ভিত্তিতে পতিত হয়না।  

বিস্তারিত জানুনঃ- 

★প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনি ভাই,
আপনার জন্য উচিত হলো, এসব অতিতের Whatsapp, Messenger এর ডাটা Software এর মাধ্যমে রিকোভার করার চেষ্টা না করে মন থেকে বাদ দিয়ে দিবেন। বা ম্যসেজের এর backup কোথায় স্টোর হইছে বা মেসেজ সার্চ না করা।

যদি কখোনো ম্যসেজের রিকোভার বা backup File মোবাইলে বা চোখের সামনে পান, সাথে সাথে ডিলেট করে দিবেন, মনের ওয়াসওয়াসা আর সন্দেহ ভেবে।

অতীতের লেখা সন্দেহ আর ওয়াসওয়াস ভেবে মন থেকে বাদ দিয়ে দিবেন।

এর জন্য প্রশ্নের বিবরন মতে আপনার গুনাহ হবেনা।

এবং আপনি মন থেকে সব বাদ দিয়ে ভালোভাবে সংসার করবেন।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

by (12 points)
অনেক ধন্যবাদ হুজুর... নিশ্চিন্ত হলাম। 

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন। এই প্রশ্ন ও উত্তরগুলো আমাদের ফেসবুকেও শেয়ার করা হবে। তাই প্রশ্ন করার সময় সুন্দর ও সাবলীল ভাষা ব্যবহার করুন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি স্থানীয় মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

Related questions

...