0 votes
42 views
in সালাত(Prayer) by (5 points)
আসরের নামায হানাফী মাযহাব ছাড়া অন্য মাযহাবে আরও তাড়াতাড়ি আদায় করে। তাদের মত আগে নামায আদায় করলে নামায হবে?  বিভিন্ন অ্যাপসে সময় দেওয়া হয়। সেটা অনুসরণ করা যাবে?

1 Answer

0 votes
by (42k points)
edited by
বিসমিহি তা'আলা

সমাধানঃ-
আসরের সালাত দুই মিছিলের পর না এক মিছিলের পর এ নিয়ে উলামায়ে আহনাফদের মধ্যেও মতবিরোধ রয়েছে,এবং দুই অভিমতের উপর-ই ফাতাওয়া রয়েছে, তবে ইবনে আবেদিন শামী সহ অধিকাংশ উলামায়ে কেরাম মনে করেন দুই মিছিলের পর-ই সুন্নাহ সম্মত ও উত্তম ।

এ সম্পর্কে উম্মে সালামাহ রাঃ থেকে বর্ণিত আছে

عَنْ أُمِّ سَلَمَةَ، أَنَّهَا قَالَتْ: «كَانَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ أَشَدَّ تَعْجِيلًا لِلظُّهْرِ مِنْكُمْ، وَأَنْتُمْ أَشَدُّ تَعْجِيلًا لِلْعَصْرِ مِنْهُ»: وَقَدْ رُوِيَ هَذَا الحَدِيثُ عَنِ ابْنِ جُرَيْجٍ، عَنْ ابْنِ أَبِي مُلَيْكَةَ، عَنْ أُمِّ سَلَمَةَ نَحْوَهُ،
উম্মে সালামাহ রাঃ বলেনঃনবী কারীম সাঃসর্বদাই জোহরের নামায তারাতারি পড়তেন(এবং আসর দেরীতে দুই মিছিলের পর পড়তেন) অথচ তোমরা আসরের নামায তারাতারি পড়ে নাও।সুনানু তিরমিযি-১৬১

আসরের নামায দুই মিছলের(আসল ছায়া ব্যতীত প্রতিটা জিনিষের দিগুন ছায়া) পর উত্তম নিম্নোক্ত হাদীসের দিকে তাকালে সেটা অনায়াসে বুঝা যায়।
ﻋﻦ ﺍﺑﻦ ﻋﻤﺮ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻬﻤﺎ ﺃﻥ ﺍﻟﻨﺒﻲ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻗﺎﻝ :
( ﺇِﻧَّﻤَﺎ ﺑَﻘَﺎﺀُﻛُﻢ ﻓِﻴﻤَﺎ ﺳَﻠَﻒَ ﻗَﺒﻠَﻜُﻢ ﻣِﻦَ ﺍﻷُﻣَﻢِ ﻛَﻤَﺎ ﺑَﻴﻦَ ﺻَﻼﺓِ ﺍﻟﻌَﺼْﺮِ ﺇِﻟَﻰ ﻏُﺮُﻭﺏِ ﺍﻟﺸَّﻤﺲِ ، ﺃُﻭﺗِﻲَ ﺃَﻫﻞُ ﺍﻟﺘَّﻮﺭَﺍﺓِ ﺍﻟﺘَّﻮﺭَﺍﺓَ ﻓَﻌَﻤِﻠُﻮﺍ ، ﺣَﺘّﻰ ﺇِﺫَﺍ ﺍﻧﺘَﺼَﻒَ ﺍﻟﻨَّﻬَﺎﺭُ ﻋَﺠَﺰُﻭﺍ ، ﻓَﺄُﻋﻄُﻮﺍ ﻗِﻴﺮَﺍﻃًﺎ ﻗِﻴﺮَﺍﻃًﺎ ، ﺛُﻢَّ ﺃُﻭﺗِﻲَ ﺃَﻫﻞُ ﺍﻹِﻧﺠِﻴﻞِ ﺍﻹِﻧﺠِﻴﻞَ ﻓَﻌَﻤِﻠُﻮﺍ ﺇِﻟَﻰ ﺻَﻼﺓِ ﺍﻟﻌَﺼﺮِ ﺛُﻢَّ ﻋَﺠَﺰُﻭﺍ ، ﻓَﺄُﻋﻄُﻮﺍ ﻗِﻴﺮَﺍﻃًﺎ ﻗِﻴﺮَﺍﻃًﺎ ، ﺛُﻢَّ ﺃُﻭﺗِﻴﻨَﺎ ﺍﻟﻘُﺮﺁﻥَ ﻓَﻌَﻤِﻠﻨَﺎ ﺇِﻟَﻰ ﻏُﺮُﻭﺏِ ﺍﻟﺸَّﻤﺲِ ، ﻓَﺄُﻋﻄِﻴﻨَﺎ ﻗِﻴﺮَﺍﻃَﻴﻦِ ﻗِﻴﺮَﺍﻃَﻴﻦِ ، ﻓَﻘَﺎﻝَ ﺃَﻫﻞُ ﺍﻟﻜِﺘَﺎﺑَﻴﻦِ : ﺃَﻱْ ﺭَﺑَّﻨَﺎ ! ﺃَﻋﻄَﻴﺖَ ﻫَﺆُﻻﺀِ ﻗِﻴﺮَﺍﻃَﻴﻦِ ﻗِﻴﺮَﺍﻃَﻴﻦِ ، ﻭَﺃَﻋﻄَﻴﺘَﻨَﺎ ﻗِﻴﺮَﺍﻃًﺎ ﻗِﻴﺮَﺍﻃًﺎ ، ﻭَﻧَﺤﻦُ ﻛُﻨَّﺎ ﺃَﻛﺜَﺮَ ﻋَﻤَﻠًﺎ ؟ ! ﻗَﺎﻝَ : ﻗَﺎﻝَ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻋَﺰَّ ﻭَﺟَﻞَّ : ﻫَﻞ ﻇَﻠَﻤﺘُﻜُﻢ ﻣِﻦ ﺃَﺟﺮِﻛُﻢ ﻣِﻦ ﺷَﻲْﺀٍ ؟ ﻗَﺎﻟُﻮﺍ : ﻻ ، ﻗَﺎﻝَ : ﻓَﻬُﻮَ ﻓَﻀﻠِﻲ ﺃُﻭﺗِﻴﻪِ ﻣَﻦ ﺃَﺷَﺎﺀُ ) ﺭﻭﺍﻩ ﺍﻟﺒﺨﺎﺭﻱ ( 557 ) .
হযরত ইবনে উমর রাঃ থেকে বর্ণিত, নবী কারীম সাঃ একবার বললেনঃ পুর্বেকার উম্মাতের স্থায়িত্বের তুলনায় তোমাদের স্থায়িত্ব হল আসর থেকে নিয়ে সূর্য অস্ত যাওয়ার মধ্যবর্তী সময়ের অনুরূপ।
"তাওরাত অনুসারীদেরকে তাওরাত দেওয়া হয়েছিল,তারা তদনুসারে কাজ করতে লাগল; যখন দুপুর হল, তখন তারা অপারগ হয়ে পড়ল, তাদের এক এক ‘কীরাত’ করে পারিশ্রমিক প্রদান করা হয়।
''তারপর ইনজীল অনুসারীদেরকে ইনজীল দেওয়া হল, তারা আসরের সালাত (নামায/নামাজ) পর্যন্ত কাজ করে অপারগ হয়ে পড়ল, তাদেরকে এক এক ‘কীরাত’ করে পারিশ্রমিক দেওয়া হল।
"তারপর আমাদেরকে কুরাআন দেওয়া হল,আমরা সূর্যাস্ত পর্যন্ত কাজ করলাম, আমদের দুই দুই ‘কীরাত’ করে দেওয়া হল।
এতে উভয় কিতাবী সম্প্রদায় বলল, হে আমাদের প্রতিপালক! তাদের দুই দুই ‘কীরাত’ করে দান করেছেন, আর আমাদেরকে দিয়েছেন এক এক কীরাত করে; অথচ আমলের দিক দিয়ে আমরাই বেশী। আল্লাহ তা’আলা বললেনঃ তোমাদের পারিশ্রমিকের ব্যাপারে আমি কি তোমাদের প্রতি কোনরূপ যুলুম করেছি? তারা বলল, না। তখন আল্লাহ্ তা’আলা বললেনঃ এ হল, আমার অনুগ্রহ যাকে ইচ্ছা তাকে দেই।সহীহ বুুখারী-৫৫৭

ﻳﻘﻮﻝ ﺍﻹﻣﺎﻡ ﺍﻟﻜﺎﺳﺎﻧﻲ ﺭﺣﻤﻪ ﺍﻟﻠﻪ –
" ﺩﻝ ﺍﻟﺤﺪﻳﺚ ﻋﻠﻰ ﺃﻥ ﻣﺪﺓ ﺍﻟﻌﺼﺮ ﺃﻗﺼﺮ ﻣﻦ ﻣﺪﺓ ﺍﻟﻈﻬﺮ ، ﻭﺇﻧﻤﺎ ﻳﻜﻮﻥ ﺃﻗﺼﺮ ﺃﻥ ﻟﻮ ﻛﺎﻥ ﺍﻷﻣﺮ ﻋﻠﻰ ﻣﺎ ﻗﺎﻟﻪ ﺃﺑﻮ ﺣﻨﻴﻔﺔ
ইমাম কা'সানী রাহ বলেনঃএই হাদীস একথা প্রমাণ করে যে আসর ও মাগরিবের মধ্যবর্তী সময় জোহর ও আসরের মধ্যবর্তী সময়ের চেয়ে স্বল্প হবে,আর এটা একমাত্র ইমাম আবু-হানিফা রহ এর মাযহাব অনুসারে-ই হয়,অন্য মাযহাব অনুসারে হয় না।যদি আসর ও মাগরিব মধ্যবর্তী সময় স্বল্প না হয় তাহলে তাদের অভিযোগ যৌক্তিক হবে না।বাদায়ে সানায়ে-১/৩১৫

বিধায় উপরোক্ত আলোচনা থেকে বুঝা গেল আসর দেরী করে দুই মিছলের সময় পড়া মুস্তাহাব তবে বিশেষ প্রয়োজনে প্রথম মিছলে পড়ে নিলেও যথেষ্ট হবে।
আল্লাহ-ই ভালো জানেন।

উত্তর লিখনে
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ, IOM.
পরিচালক
ইসলামিক রিচার্স কাউন্সিল বাংলাদেশ

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনার দ্বীন সম্পর্কীয় প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য রয়েছে আমাদের  অভিজ্ঞ ওলামায়কেরাম ও মুফতি সাহেবগনের একটা টিম যারা ইনশাআল্লাহ প্রশ্ন করার ২৪-৪৮ ঘন্টার সময়ের মধ্যেই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন।

...