0 votes
21 views
in পরিবার,বিবাহ,তালাক (Family Life,Marriage & Divorce) by (1 point)
আমার এক বোনের স্বামী একটি বাচ্চাসহ আপুকে রেখে আমেরিকাতে যায়। আপুকে পরবর্তীতে নিয়ে যাওয়ার প্লান ছিল। কিন্তু ভিসা জটিলতার কারনে তা আর সম্ভব হয় না। এখন ৬/৭ বছর হয়ে যাচ্ছে কিন্তু সে দেশে আসতে নারাজ। কারন আমেরিকাতে তার ক্যারিয়ারের অগ্রগতি বেশ ভালো যাচ্ছে। অন্যদিকে দেশে ফেরত আসলেও তার যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে চাকরি বাকরি পাবার। এখন শরীয়ামতে সে কি এখনো স্বামী কিনা কিংবা এক্ষেত্রে আপুর কি করনীয়।

1 Answer

0 votes
by (22,320 points)
উত্তর
بسم الله الرحمن الرحيم 

আপনার আপু যদি এইভাবেই থাকতে পারে,তার যদি এইভাবে থাকা কোনো কষ্টকর না হয়,বা কষ্টকর হলেও সে যদি মেনে নিয়ে থাকে,ফেতনায় পতিত হওয়ার কোনো সম্ভাবনা না থাকে,তাহলে তো কোনো সমস্যাই নেই।
,
আর যদি তার জন্য কষ্টকর হয়,তাহলে যেইভাবেই হোক বিষয়টি বুঝিয়ে তার স্বামীকে দেশে আসতে হবে,বা দ্রুত আপনার আপুকে সেই দেশে চলে যেতে হবে।
কোনো ভাবেই যদি এটার সমাধান না হয়,আর  আপনার আপু অন্যত্রে বিবাহ বসতে ইচ্ছুক হয়,তাহলে স্বামীকে থেকে তালাক নিতে হবে।

এক্ষেত্রে স্বামী মৌখিক তালাক দিলেও তা পতিত হবে,আপনার আপু তার তিন হায়েজ অতিক্রম হয়ে যাওয়ার পর অন্যত্রে বিবাহ বসতে পারবে।       

আর যদি স্বামী তাকে তালাক না দেয়,আর আপনার আপু যদি তালাকের জন্য যথেষ্ট ইচ্ছুক হয়,তাহলে নিকাহ নামার ১৮ নং ধারায় যদি স্বামী স্ত্রীকে তালাক দেওয়ার ক্ষমতা দিয়ে থাকে,তাহলে স্বামী কর্তৃক স্ত্রীকে নিজ নফসকে তালাক দেওয়ার ক্ষমতা বলে স্ত্রী নিজের নফসের উপর তালাক প্রদান করবে।
ইদ্দত শেষ হলে অন্যত্রে বিবাহ বসতে পারবে।
 তালাক প্রদান ছাড়াই অন্য যেকোনো ভাবে এর সমাধানের ব্যবস্থা করা দরকার,তবে একান্তই যদি তালাকের পথে হাটতে হয়,তালাকের পূর্ণ মাসয়ালা জেনে কাজ করতে হবে।

★ইসলামের মূল থিউরী হল স্বামী স্ত্রীর মাঝে বিচ্ছেদ না হোক। তারা মিলেমিশে থাকুক। সমস্যা হলে উভয়ে বসে তা সমাধানের চেষ্টা করা উচিত। তাতে সমস্যার সমাধান না হলে পারিবারিক মুরুব্বীদের পরামর্শের আলোকে সমাধান করা উচিত। তারপরও যদি সমাধান না আসে। তাহলে নিরূপায় অবস্থায় ইসলাম এক তালাক দেবার অধিকার দিয়েছে স্বামীকে। তিন তালাকের নয়। আবারো বলি ইসলামে তিন তালাক দেয়া জায়েজ নয়। তবে তিন তালাক দিলে পতিত হয়ে যায়। যেমন কাউকে হত্যা করা জায়েজ নয়। কিন্তু হত্যা করলে হত্যা সংঘটিত হয়ে যায়।
তেমনি তিন তালাক এক সাথে দেয়া জায়েজ নয়। তবে দিলে পতিত হয়ে যায়। 
,
★শরীয়তের বিধান অনুযায়ী  মহিলা নিজের উপর কেবল তখনি তালাক পতিত করতে পারবে, যদি স্বামী তাকে তালাক দেবার অধিকার দিয়ে থাকে।

স্বামী স্ত্রীকে যেভাবে তালাক দেবার অধিকার দিয়েছে স্ত্রী ঠিক সেভাবে তালাক পতিত করার অধিকার পাবে। যদি শর্তহীন অধিকার দেয় সময় নির্দিষ্ট করে, তাহলে সেই সময়ের মধ্যে তালাক দেবার অধিকার পাবে, আর যদি আজীবনের জন্য অধিকার দেয়, তাহলে যেকোন সময় তালাক পতিত করার অধিকার পাবে। আর যদি কোন শর্তযুক্ত করে অধিকার দেয় তাহলে উক্ত শর্ত পাওয়া গেলে তালাক দেবার অধিকার পাবে।

বিঃদ্রঃ আজীবনের জন্য তালাকের অধিকার না দিলে অন্য সুরতগুলোতে স্বামী কর্তৃক তালাকের অধিকার পাওয়ার কথাটি যখনই শুনবে সেই মজলিসে স্ত্রী নিজের উপর তালাক দেবার অধিকার পাবে। সেই মজলিস শেষ হয়ে গেলে আর পূর্বের অধিকার বলে তালাক পতিত করতে পারবে না।

তাই প্রশ্নে উল্লেখিত ছুরতে  যদি আপনার বোন একদম নিরূপায় হয়ে গিয়ে থাকেন। আর তার স্বামী যদি জেনে শুনে নিকাহ নামার ১৮ নং ধারাতে আপনার বোনকে তালাক প্রদানের ক্ষমতা দিয়ে থাকে,এর এই নিকাহ নামা যদি তাদের বিবাহ পড়ানোর পরে লেখা হয়ে থাকে,  তাহলে নিকাহ নামার ১৮ নং ধারা অনুপাতে স্বামী কর্তৃক তালাকে তাভবিজের ক্ষমতাবলে আপনার বোন লিখিত বা মৌখিকভাবে নিজের নফসের উপর এক তালাক দিয়ে দিবে। দুই বা তিন তালাক নয়। 

এক তালাক দেয়ার পর  ইদ্দতকালীন সময় শেষ হলে আপনার বোন অন্য কোথাও বিবাহ বসতে পারবে।
এক্ষেত্রে কোনো কাজির মাধ্যমে তালাক প্রদান করা,বা লিখিত আকারে তালাকের কপি পাঠানো জরুরি নয়।
মৌখিক বলা মাত্র তালাক পতিত হয়ে যাবে। 
তার কাছে তাকালের কপি পাঠানো,বা উকিলের মাধ্যমে এই কাজ সম্পন্ন করা এটা দেশিও নিয়ম মাত্র।
,
শরীয়তের বিধান অনুযায়ী আপনার আপু স্বামী কর্তৃক প্রদত্ত ক্ষমতা পেয়ে থাকলে সেই ক্ষমতা বলে মৌখিকভাবে নিজের নফসের উপর তালাক প্রদান করিলাম বললেই তালাক পতিত হয়ে যাবে। 
এর পর থেকেই আপনার বোন ইদ্দত (৩ হায়েজ) গননা করা শুরু করবেন।
ইদ্দত শেষ হলেই আপনার বোন অন্যত্রে বিবাহ বসতে পারবে।

আল্লাহ তায়ালা বলেন 
قال اللّٰہ تعالیٰ: {وَاللّٰاتِیْ تَخَافُوْنَ نُشُوْزَہُنَّ فَعِظُوْہُنَّ وَاہْجُرُوْہُنَّ فِیْ الْمَضَاجِعِ} [النساء، جزء آیت:۳۴]

হাদীস শরীফে এসেছে   
عن ابن عمر رضي اللّٰہ عنہما أن رسول اللّٰہ صلی اللّٰہ علیہ وسلم قال: أبغض الحلال إلی اللّٰہ عزوجل الطلاق۔ (سنن أبي داؤد ۱؍۳۰۳، المستدرک للحاکم ۲؍۲۱۸ رقم: ۲۸۰۹، السنن الکبریٰ ۷؍۳۱۶)
রাসুলুল্লাহ সাঃ বলেন যে সবচেয়ে নিকৃষ্টতম হালাল হলো তালাক প্রদান করা।

وفي رد المحتار- وأنواعه ثلاثة : تفويض ، وتوكيل ، ورسالة وألفاظ التفويض ثلاثة : تخيير وأمر بيد ، ومشيئة .

( قال لها اختاري أو أمرك بيدك ينوي ) تفويض ( الطلاق ) لأنها كناية فلا يعملان بلا نية ( أو طلقي نفسك فلها أن تطلق في مجلس علمها به ) مشافهة أو إخبارا ( وإن طال ) يوما أو أكثر ما لم يوقته ويمضي الوقت قبل علمها ( ما لم تقم ) لتبدل مجلسها حقيقة ( أو ) حكما بأن ( تعمل ما يقطعه ) مما يدل على الإعراض لأنه تمليك فيتوقف على قبول في المجلس لا توكيل ، فلم يصح رجوعه ، حتى لو خيرها ثم حلف أن لا يطلقها فطلقت لم يحنث في الأصح ( لا ) تطلق ( بعده ) أي المجلس ( إلا إذا زاد ) في قوله طلقي نفسك وأخواته ( متى شئت أو متى ما شئت أو إذا شئت أو إذا ما شئت ) فلا يتقيد بالمجلس ( ولم يصح رجوعه ) لما مر (رد المحتار-كتاب الطلاق، باب تفويض الطلاق-4/452
যার সারমর্ম হলো তালাকে তাফবিজের মাধ্যমে  স্ত্রী নিজ নফসের তালাক প্রদান করতে পারবে।

প্রামান্য গ্রন্থাবলী

১. ফাতওয়ায়ে শামী-৪/৫৫১-৫৫৫
২. ফাতওয়ায়ে তাতারখানিয়া-১২/৪৭৬-৪৭৭
৩. বাদায়েউস সানায়ে-৩/১৮০-১৮১
৪. ফাতওয়ায়ে আল ওয়াল ওয়ালিজিয়্যাহ-২/৯১


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...