+1 vote
37 views
in ব্যবসা ও চাকুরী (Business & Job) by (37 points)
reopened by
আসসালামু আলাইকুম, আমার একটি ব্যবসা আছে। দেশের বাইরে বিভিন্ন স্কলারশিপে আবেদনের ক্ষেত্রে আবেদন ঠিক হচ্ছে কিনা তা চেক করে দিই। বিনিময়ে আবেদন প্রতি ১০২০ টাকা ফি নেই। উল্লেখ্য যে অন্য কনসালটেন্সিগুলোর মত লাখ লাখ টাকা চার্জ করি না। বলা চলে একেবারে কম টাকা চার্জ করি। আমাদের সার্ভিসগুলোর ফির রেঞ্জ ৫২০-৬০০০ টাকার মধ্যে।ইউরোপ আমেরিকার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর কী অবস্থা, তা আমাদের কারো অজানা থাকার কথা নয়। এসকল মাস্টার্স, পিএইচডিতে ব্যক্তির ইমানের কোনো ফায়দা থাকে না। দুনিয়াবি চাহিদাই মুখ্য। পড়তে যেয়ে অনেকের দৈনন্দিন জীবনে ইসলাম চর্চায়ও ভাটা পড়ে।
আমার প্রশ্ন হচ্ছে বাইরে পড়াশোনা করতে যাওয়ার ক্ষেত্রে সহায়তার মাধ্যমে আমার উপার্জন কি হালাল হবে? আমি কি এই ব্যবসা চালিয়ে যেতে পারবো? ব্যবসা সত্ত্ব (কোম্পানি নাম, ব্র্যান্ড) বিক্রি করে দিলে উক্ত টাকা নিজের জন্য খরচ করা হালাল হবে?
এব্যাপারে উত্তর প্রদানের ক্ষেত্রে সম্মানিত মুফতি সাহেবের আমার ব্যবসা সম্পর্কে বাড়তি কোনো তথ্য প্রয়োজন হলে দিতে প্রস্তুত আছি। ইনশাল্লাহ। বিষয়টি আমার বিস্তারিত জানার প্রয়োজন।

1 Answer

+1 vote
by (154,240 points)
edited by
উত্তর 
وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته 
بسم الله الرحمن الرحيم 

আপনারা যে দেশের বাইরে বিভিন্ন স্কলারশিপে আবেদনের ক্ষেত্রে আবেদন ঠিক হচ্ছে কিনা তা চেক করে দেন,এবং চেক বাবদ কিছু টাকা ফি হিসেবে নেন,এক্ষেত্রে যদি উভয় পক্ষের সন্তুষ্টি চিত্তে কার্যক্রম পরিচালিত হয়, আর কোন নাজায়েজ বিষয় এতে সম্পৃক্ত না থাকে, তাহলে এভাবে টাকা উপার্জন করতে শরয়ী কোন বিধিনিষেধ নেই। জায়েজ আছে। 

ফাতাওয়ায়ে আলমগীরিতে  আছে   
وَأَمَّا شَرَائِطُ الصِّحَّةِ فَمِنْهَا رِضَا الْمُتَعَاقِدِينَ. وَمِنْهَا أَنْ يَكُونَ الْمَعْقُودُ عَلَيْهِ وَهُوَ الْمَنْفَعَةُ مَعْلُومًا عِلْمًا يَمْنَعُ الْمُنَازَعَةَ فَإِنْ كَانَ مَجْهُولًا جَهَالَةً مُفْضِيَةً إلَى الْمُنَازَعَةِ يَمْنَعُ صِحَّةَ الْعَقْدِ وَإِلَّا فَلَا. (الفتاوى الهندية، كِتَابُ الْإِجَارَةِ، الْبَابُ الْأَوَّلُ فِي تَفْسِيرِ الْإِجَارَةِ وَرُكْنِهَا الخ-4/411)
যার সারমর্ম হলো এক্ষেত্রে উভয়ের সন্তুষ্টি থাকতে হবে।
জোর করে বা ধোকা দিয়ে কোনো কিছু করা যাবেনা। 
,
এক্ষেতে অর্থ উপার্জনের শর্তাবলী:

১. ভুয়া তথ্য কে সঠিক বানানো যাবেনা, ইসলামি দৃষ্টিকোণ থেকে কাজটি হারাম।
২. দেশের প্রচলিত আইন পরিপন্থী না হওয়া।

৩. আর্থিক লেনদেনের ক্ষেত্রে সুদ, ঘুস বা দুর্নীতির আশ্রয় না নেয়া।
৪. মিথ্যা ও প্রতারণার আশ্রয় না নেয়া ইত্যাদি।
৫.শরীয়ত বহির্ভূত কোনো কাজ না করা।  
৬.তার উপর জুলুম হয়,এমন পরিমান টাকা নেওয়া যাবেনা। 
,
উপরোক্ত বিষয়বলি ঠিক থাকলে এবং পুরোপুরি শর্ত মেনে আপনি এই কাজ,ব্যবসা চালিয়ে যেতে পারবেন।
এক্ষেত্রে আপনার উপার্জন হালাল হবে। 


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...