0 votes
23 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by
কেউ যদি এমন করে মান্নত করে যে,

যদি আমার অমুক কাজ হয়ে যায়, তবে আমি মাদরাসায় একটি খাসি দান করব।

এখন যদি সে খাসির পরিবর্তে উক্ত খাসীর মূল্য দান করে তাহলে কি তার মান্নত পূর্ণ হবে?

দয়া করে জানিয়ে বাধিত করবেন।

1 Answer

0 votes
by (37.6k points)
বিসমিহি তা'আলা

জবাবঃ-

হযরত আয়েশা রাযি থেকে বর্ণিত,

ﻋﻦ ﻋﺎﺋﺸﺔ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻬﺎ ﻋﻦ ﺍﻟﻨﺒﻲ ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭﺳﻠﻢ ﻗﺎﻝ ﻣﻦ ﻧﺬﺭ ﺃﻥ ﻳﻄﻴﻊ ﺍﻟﻠﻪ ﻓﻠﻴﻄﻌﻪ ﻭﻣﻦ ﻧﺬﺭ ﺃﻥ ﻳﻌﺼﻴﻪ ﻓﻼ ﻳﻌﺼﻪ

রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেন, যে ব্যক্তি আল্লাহর অানুগত্যশীল কোনো জিনিষ দ্বারা মান্নত করবে,সে যেন তা পূর্ণ করে। আর যে ব্যক্তি আল্লাহর অবাধ্যতা মূলক কোনো জিনিষ দ্বারা মান্নত করবে, সে যেন তা পূর্ণ না করে।(সহীহ বোখারী-৬৩১৮)

যে কোনো জিনিষের মান্নত ওয়াজিব হবে না অর্থাৎ মান্নত করলেই যে শুধু ওয়াজিব হয়ে যাবে বিষয়টা এমন নয়।বরং কুরবতে মাকসুদাহ তথা ইবাদত হিসেবে গণ্য এমন কোনো জিনিষের মত কিছু দ্বারা মান্নত করতে হবে, তবেই তা ঐ ব্যক্তির উপর ওয়াজিব হিসেবে গণ্য হবে।

যেমন, কোনো কাজ হয়ে গেলে  প্রাণী জবাহ করার দ্বারা মান্নত করা।এই মান্নত গ্রহণযোগ্য হবে।কেননা প্রাণী যবেহ করা ইবাদতের অন্তর্ভুক্ত।যেহেতু আমরা প্রাণী যবেহ করেই ঈদে কুরবানি করি,ইত্যাদি ইত্যাদি।

যে জিনিষের মান্নত করা হবে,হুবহু সেটাই আদায় করতে হবে? নাকি এর মূল্য বা অন্য কিছু দ্বারা আদায় করলে মান্নত আদায় হয়ে যাবে?

এ সম্পর্কে ফুকাহায়ে কেরামদের মধ্যে মতবিরোধ রয়েছে।

জুমহুর উলামায়ে কেরাম বলেন, হুবহু ঐ জিনিষ দ্বারাই মান্নত আদায় করতে হবে।

হানাফি মাযহাবের উলামায়ে কেরাম এক্ষেত্রে কিছুটা শীতিলযোগ্য বিধান প্রণয়ন করেছেন।তারা বলেন,

যদিও মান্নতকৃত জানোয়ারকে সদকা করাই উত্তম ছিলো, তথাপিও তার মূল্য দিয়ে দিলে মান্নত আদায় হয়ে যাবে।

নাওয়াযিলুল ফাতাওয়া-১০/৩০২;

ফাতাওয়ায়ে দারুল উলূম-১২/৭৩;

সু-প্রিয় পাঠকবর্গ!

প্রথমেই আমাদের জন্য উত্তম যে, যে জিনিষের মান্নত করেছিলাম, হুবহু যেন সেটাই আদায় করে নেই।তবে মূল্য দিয়ে দিলেও আমাদের মান্নত অাদায় হয়ে যাবে, ইনশাআল্লাহ।

আল্লাহ-ই ভালো জানেন।

উত্তর লিখনে

মুফতী ইমদাদুল হক

ইফতা বিভাগ, IOM.

পরিচালক

ইসলামিক রিচার্স কাউন্সিল বাংলাদেশ

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনার দ্বীন সম্পর্কীয় প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য রয়েছে আমাদের  অভিজ্ঞ ওলামায়কেরাম ও মুফতি সাহেবগনের একটা টিম যারা ইনশাআল্লাহ প্রশ্ন করার ২৪-৪৮ ঘন্টার সময়ের মধ্যেই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন।

Related questions

...