0 votes
10 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (32 points)
edited by
১)আল্লাহর চেয়ে কোনকিছুকে বেশি ভালোবাসা তো শিরক
এখন আমি কিভাবে বুঝবো যে কোনো কিছুকে আমি আল্লাহর চেয়ে বেশি ভালোবাসি কিনা??

২)কুরআন তিলাওয়াত নাকি আল্লাহর জিকির কোনটা বেশি মর্যাদাবান??

৩)কোন কাজ হাসিলের জন্য অবৈধ পন্থা অনুসরণ করা এবং মনে করা এই পন্থা ছাড়া তার কাজ হাসিল সম্ভব না,,

এমন মনভাব কি শিরক?

৪)অজুর সময় এক বালতি পানিতে পা চুবাইলে কি অযু হয়ে যাবে??

নাকি হাত দিয়ে ডলে ধুতে হবে??


৫)ধরুন কোনো মুসলমানের ছেলে মুরতাদ হয়ে গেল

তখন তার সব বন্ধু তাকে ত্যাগ করল।


এরপর ওই ছেলে একসময় ঈমান আনল


কিন্তু ঈমান এনেই সে শান্ত ছিল না।


সে তাও মনে প্রশান্তি পাচ্ছিল ছিল না।সবসময় অস্থির থাকত।

সে চাচ্ছিল যে তার বন্ধুরা আবার ফিরে আসুক।


কিছুদিন পর তার বন্ধুরা আবার তার সাথে মিলামিশা আরম্ভ করল।


এবার সে অনেক প্রশান্তি পেল।


এই যে এই লোক ইমান আনার চেয়ে বেশি প্রশান্তি পাইল বন্ধুরা ফিরে আসায়,এতে কি শিরক হবে??

এই লোক এর করনিয় কি??


সে কি ওই বন্ধুদের সাথে সম্পর্ক রাখতে পারবে?

1 Answer

0 votes
by (306,320 points)
edited by

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
(১)
এটা বিবেক দ্বারা বুঝবেন।
(২)
কুরআন তিলাওয়াত।
(৩)
এমনটা করা নাজায়েয। তবে শিরক হবে না।
(৪)
https://www.ifatwa.info/6410 নং ফাতাওয়ায় বলেছি যে,
ওজুর আদাব বা মুস্তাহাব নিয়ম-পদ্ধতি হচ্ছে।
(১)উচু স্থানে বসা।
(২)ক্বিবলা দিক করে বসা।
(৩)অন্যর কাছ থেকে কোনো প্রকার সাহায্য গ্রহণ না করা।
(৪)দুনিয়াবী কথাবার্তা না বলা।
(৫)অন্তরের নিয়্যাত ও মুখের উচ্ছারণের মধ্যে সমন্বয় সাধন রাখা।
(৬)ওজু করার সময় হাদীসে বর্ণিত দু'আ সমূহ পড়া।
(৭)প্রত্যেক অঙ্গ ধোয়ার সময় বিসমিল্লাহ পড়া।
(৮)দুই কানের ছিদ্রে কনিষ্টা আঙ্গুল প্রবিষ্ট করা।
(৯)ঢিলা আংটি নাড়া।
(১০)ডান হাত দ্বারা কুলি করা ও নাকে পানি দেওয়া।
(১১)বাম হাতে নাক পরিস্কার করা।
(১২)মাযূর নয় এমন লোকের ওয়াক্তের পূর্বে ওজু করা।
(১৩)ওজুর পর কালেমায়ে শাহাদত পড়া।
(১৪)ওজুর পর বদনায় বেঁচে থাকা পানি থেকে কিছু পানি পান করা।এবং দু'আ পড়াঃ
اللهم اجعلني من التوابين واجعلني من المتطهرين".
উচ্ছাঃ-আল্লাহুম্মা ইজ আলনি মিনাততাওয়াবিনা ওয়াজ আলনি মিনাল মুতাতাহহিরিন।
অর্থ- হে আল্লাহ! আমাকে ক্ষমাপ্রার্থীদের অন্তর্ভুক্ত করুন,এবং আমাকে পবিত্রদের মধ্যে শামিল করুন।

সুপ্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনি ভাই/বোন!
হাত দিয়ে ডলে ধৌত করা মুস্তাহাব।

(৫)
এটাও শিরক না।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...