0 votes
201 views
in হালাল ও হারাম (Halal & Haram) by (3 points)
আসসালামু আলাইকুম।  আমার ২য় বাচ্চা জন্মের সপ্তাহ দুয়েক পর স্ত্রীর স্তনে প্রচুর দুধ নেমে স্তন ভারী ও চাকা হয়ে যেত, যার কারনে সন্তান দুধ টেনে খাইতে পারতোনা। আর পাম্প দিয়ে চেপে দুধ বের করে সন্তানকে খাওয়ানোর পরও স্তনে অনেক দুধ অবশিষ্ট থাকতো বিধায় স্তন শক্ত হয়ে গিয়ে স্ত্রী জ্বরে আক্রান্ত হয়ে যেতো। এমতাবস্থায় আমি স্ত্রীর দুধ পান করে স্তন খালি করে দিলে সে ভাল ফিল করতো অর্থাৎ জ্বর থেকে বা স্তন শক্ত চাকা হওয়া থেকে মুক্তি পেতো।
প্রশ্ন হল, আমার এভাবে স্ত্রীর দুধ পান করাতে আমাদের দুজনের গুনাহ হবে কি?

1 Answer

0 votes
by (203,920 points)
জবাব
وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته 
بسم الله الرحمن الرحيم 


মানুষের জন্য মানুষের দুধ খাওয়া হারাম।শুধুমাত্র বিশেষ প্রয়োজনে শিশুর জন্য মায়ের দুধকে হালাল রাখা হয়েছে।সুতরাং স্বামীর জন্য স্ত্রীর দুধ পান করা হারাম।এ ব্যাপারে প্রায় সকল উলামায়ে কেরাম একমত।(জাওয়াহিরুল ফিকহহ-৭/৪৬) 

স্ত্রীর দুধ খাওয়া হারাম।কেননা দুধ মানুষের শরীরের অংশ।

★শুধুমাত্র বিশেষ প্রয়োজনে শিশুর জন্য নির্দিষ্ট সময়ের মাঝে মায়ের দুধকে হালাল রাখা হয়েছে।

وَالْوَالِدَاتُ يُرْضِعْنَ أَوْلَادَهُنَّ حَوْلَيْنِ كَامِلَيْنِ ۖ لِمَنْ أَرَادَ أَن يُتِمَّ الرَّضَاعَةَ ۚ [٢:٢٣٣]

আর সন্তানবতী নারীরা তাদের সন্তানদেরকে পূর্ন দু’বছর দুধ খাওয়াবে, যদি দুধ খাওয়াবার পূর্ণ মেয়াদ সমাপ্ত করতে চায়। [সূরা বাকারা-২৩৩]

আরো জানুনঃ 
,
★সুতরাং প্রশ্নে উল্লেখিত ছুরতে আপনার গুনাহ হবে,এক্ষেত্রে এ নাজায়েজ কাজে সহযোগিতার কারনে আপনার স্ত্রীরও গুনাহ হবে।
খালেছ দিলে তওবা করে এহেন কাজ থেকে ফিরে আসতে হবে।
,
★প্রশ্নে উল্লেখিত ছুরতে  স্তনে যতটুকু দুধ অবশিষ্ট থাকবে,এটি যেকোনো ভাবে বের করে অন্য কোনো দুধের বাচ্চাকে তা খাওয়াবে।
সম্ভব না হলে কোনো প্রানীকে খাওয়াবে। 


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...