আইফতোয়াতে ওয়াসওয়াসা সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হবে না। ওয়াসওয়াসায় আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা ও করণীয় সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন

0 votes
300 views
in ব্যবসা ও চাকুরী (Business & Job) by (115 points)
১/আজকাল অনলাইন ব্যবসা বেড়ে যাওয়ায় ডেলিভারি দেওয়ার সংখ্যাও বেড়েছে।অনেক মুসলিম রা খাবার তৈরি করে সেল করে।এখন একজন ডেলিভারি ম্যান তো জানে না যে সে খাবারে হারাম জিনিস দেয় নাকি হালাল,সে কিভাবে বিক্রি করতেছ ইত্যাদি মানে প্রোডাক্ট গুলো কি বার্থডে এর জন্য হচ্ছে নাকি অন্য কিছু এমন হারাম হালাল বিষ থাকবেই।তাহলে ডেলিভারি ম্যান কি তার কাজ করে দিবে?এছাড়া এমন কিছু প্রতিষ্ঠান আছে যেমন ফুড পান্ডা এইখানে তারা বিজ্ঞান দেয় যে সেখানে মিউজিক থাকে বেপর্দা নারীর ছবিও মেবি থাকে।তারা কার থেকে মূলধন নিয়ে তাদের প্রতিষ্ঠান চালাচ্ছে তা যদি ডেলিভ্যারি ম্যান না জানে এবং তাদের কাজ করে দেয় তাহলে কি গুনাহ হবে?আর জানার পর ও যদি সে ডেলিভারি দেয় তাহলে?
২/ড.আবদুল্লাহ জাহাঙ্গীর স্যার এর ইসলামিক আকিদা বই এর পিডিএফ এখন সচারাচর পাওয়া যায়।এখন কেউ যদি সেটি পড়ে গুনাহ হবে?(যদিও লেখক মৃত)।

৩/আজকাল নানাধরণের ইসলামিক গল্পের বই বের হয়েছে।যেগুলা আসলেই ভাল।এছাড়া ফেসবুকে দ্বীনি পোস্ট ও থাকে,কোর্স ও।এখন এতো কিছু যে সামনে আসে কোনটা রেখে কোনটা করব বুঝাই যায় না।এতে কি হয় শয়তান ধোকা দেয় কখনো এইটা কখনো ওইটা।এরফলে দৈনন্দিন জীবনের মূল আমল ই ঠিক ভাবে হয় না।জ্ঞান অর্জনের ইচ্ছা থাকে কিন্তু বেশি জ্ঞান অর্জন করতে গিয়ে রেজাল্ট আসে শূণ্য।এখন কেউ যদি চায় বেশি জ্ঞান অর্জন না করে তার দৈনন্দিন জীবনের আমল আগে ঠিক হোক।সেটা অল্প আমল ই হোক না কেন।কিন্তু অল্প আমল অনুযায়ী অল্প আমল হোক তাহলে কি সমস্যা হবে?অনেকেই আছে বেশি জ্ঞান অর্জন করে কিন্তু আমল সেরকম করেই না।এক্ষেত্রে কোনটা ভাল?ক)বেশি জ্ঞান অনুযায়ী কম আমল নাকি খ) কম জ্ঞান অর্জন করে তারপর তা আমল করে এরপর অন্য জ্ঞান অর্জন?
৪/যেই জ্ঞান গুলো ফরজ যেমন আকিদা, দাওয়াহ।এখন কেউ যদি চায় এগুলা সে এমন সময় অর্জন করবে যখন তার কাজের চাপ কম থাকবে সে ফ্রি টাইম  বেশি পাবে।অর্থাৎ সম্পূর্ণ ফ্রি হয়ে শান্ত ভাবে করতে চায় যাতে অন্যান্য কাজের চাপে এইটাতে সমস্যা না হয় তাহলে দেরি করাএ কারণে কি তার গুনাহ হবে?এছাড়া কোনো স্টুডেন্ট এর ফাইনাল এক্সাম কাছে চলে আসলে তখন অন্য কোনো কোর্স নেওয়া সম্ভব না।নিলেও ঝামেলা পাকবে।তাই সে যদি একাডেমিক এক্সামের পর কোর্স টি করে তবে তার গুনাহ হবে?

৫/আকিদা কোর্স শর্ট কোর্স ও বিস্তারিত কোর্স উভয় থাকে।এখন কেউ যদি শুধু শর্ট কোর্স করে বিস্তারিত না জানে তবে তার ফরজ জ্ঞানের পরিপূর্ণতা পাবে?মানে ফরজ ইবাদাহ পূর্ন হবে?

1 Answer

0 votes
by (636,800 points)
জবাব
بسم الله الرحمن الرحيم 


(০১)
না জেনে ডেলিভারি করলে মাকরুহ হবেনা। 
,
তবে জেনে শুনে এসব পন্য ডেলিভারি দিয়ে ইনকাম করা করা মাকরুহ হলেও তার উপার্জন হারাম নয়,হালালই থাকবে।

হাদীস শরীফে এসেছেঃ   

عَنْ نَافِعٍ، عَنْ عَبْدِ اللَّهِ: أَنَّ عُمَرَ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُ رَأَى حُلَّةً سِيَرَاءَ تُبَاعُ، فَقَالَ: يَا رَسُولَ اللَّهِ، لَوِ ابْتَعْتَهَا تَلْبَسُهَا لِلْوَفْدِ إِذَا أَتَوْكَ وَالجُمُعَةِ؟ قَالَ: «إِنَّمَا يَلْبَسُ هَذِهِ مَنْ لاَ خَلاَقَ لَهُ» وَأَنَّ النَّبِيَّ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ بَعَثَ بَعْدَ ذَلِكَ إِلَى عُمَرَ حُلَّةً سِيَرَاءَ حَرِيرٍ كَسَاهَا إِيَّاهُ، فَقَالَ عُمَرُ: كَسَوْتَنِيهَا، وَقَدْ سَمِعْتُكَ تَقُولُ فِيهَا مَا قُلْتَ؟ فَقَالَ: «إِنَّمَا بَعَثْتُ إِلَيْكَ لِتَبِيعَهَا، أَوْ تَكْسُوَهَا»

আবদুল্লাহ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। উমর (রাঃ) একটি রেশমী হুল্লা বিক্রী হতে দেখে বললেনঃ ইয়া রাসুলাল্লাহ! আপনি যদি এটি খরীদ করে নিতেন, তা হলে যখন কোন প্রতিনিধি দল আপনার কাছে আসে তখন এবং জুমুআর দিনে পরিধান করতে পারতেন। তিনি বললেনঃ এটা সে ব্যক্তিই পরতে পারে যার আখিরাতে কোন অংশ নেই। পরবর্তী সময়ে নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উমর (রাঃ) এর নিকট ডোরাকাটা রেশমী হুল্লা পাঠান। তিনি কেবল তাকেই পরতে দেন। উমর (রাঃ) বললেন আপনি এখনি আমাকে পরতে দিয়েছেন, অথচ এ সম্পর্কে যা বলার তা আমি আপনাকে বলতে শুনেছি। তিনি বললেন আমি তোমার কাছে এজন্য পাঠিয়েছি যে তুমি এটি বিক্রি করে দিবে অথবা কাউকে পরতে দিবে। (সহীহ বুখারী-২/৮৬৮, হাদীস নং-৫৮৪১, ইফাবা-৫৪২৩)
,
আরো জানুনঃ 

(০২)
প্রকাশকের পক্ষ থেকে অনুমতি না থাকলে গুনাহ হবে।
,
(০৩)
বেশি জ্ঞান অর্জন এটি অবশ্যই ভালো।
আস্তেধীরে সব গুলোর উপর আমল করবেন।
,
(০৪)
যদি তাহা ফরজ ইলম হয়,তাহলে দেড়ি করা উচিত নয়।
তবে প্রশ্নে উল্লেখিত বিশেষ প্রয়োজনে (আকীদা শুদ্ধ থাকলে) কিছুদিন দেড়ি করাতে সমস্যা নেই।
,
(০৫)
হ্যাঁ এতেও ফরজ জ্ঞান অর্জন হবে। 


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন। এই প্রশ্ন ও উত্তরগুলো আমাদের ফেসবুকেও শেয়ার করা হবে। তাই প্রশ্ন করার সময় সুন্দর ও সাবলীল ভাষা ব্যবহার করুন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি স্থানীয় মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

Related questions

...