0 votes
9 views
in সালাত(Prayer) by (6 points)
চার রাকআত ফরজ নামাজে যদি আমি তিন রাকআত শেষ হওয়ার পর নামাজে যাই তাহলে আমারিএক রাকআত সালাত হলো, বাকি তিন রাকআত ইমাম সালাম ফিরানোর পর পড়তে হবে। এখন প্রশ্ন হলো, অনেকে তিন রাকআত পড়ার ক্ষেত্রে ঐ তিন রাকআতের ১ম রাকআতেই তাশাহুদ বৈঠকে বসে। তারপর বাকি ২ রাকআত পড়ে শেষ বৈঠকে গিয়ে নামাজ শেষ করে।
কিন্তু বিষয়টা কি এমন? আমি তো জানি মাগরিবের ৩ রাকআত ফরজ যেভাবে পড়া হয় সেভাবে বাকি ৩ রাকআত শেষ করতে হবে, মানে প্রথমে দুই রাকআত পড়ে তাশাহুদ পড়ে তারপর তৃতীয় রাকআতে শেষ বৈঠকে নামাজ শেষ করতে হবে।

এখন কোনটা সঠিক ?

1 Answer

0 votes
by (170,760 points)
ওয়া আলাইকুমুস-সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু। 
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
মাসবুক ব্যক্তির নামায পড়ার পদ্ধতি সম্পর্কে ফাতাওয়ায়ে হিন্দিয়ায় বর্ণিত রয়েছে,
أنه يقضي أول صلاته في حق القراءة وآخرها في حق التشهد حتى لو أدرك ركعة من المغرب قضى ركعتين وفصل بقعدة فيكون بثلاث قعدات وقرأ في كل فاتحة وسورة ولو ترك القراءة في إحداهما تفسد.
মাসবুক ব্যক্তি ক্বেরাত হিসেবে প্রথম থেকে নামাযকে সম্পূর্ণ করবে।এবং তাশাহুদ বৈঠক হিসেবে নামাযের শেষদিককে লক্ষ্য রাখবে।
বিস্তারিত ব্যখ্যা এই যে,
কেউ যদি মাগরিবের শেষ রাকা'ত কে পায়,তাহলে সে দুই রাকা'ত কাযা করবে।এমতাবস্থায় তার তিন রাকা'তেই বৈঠক হবে।(কেননা তার প্রথম রাকা'ত যা ইমামের শেষ বৈঠক ছিলো।তাতে ও সে বৈঠক করেছিলো,এবং পরবর্তী রাকা'তে ও সে বৈঠক করেছে যেহেতু তা তার দ্বিতীয় রাকা'ত,এবং তৃতীয় রাকা'তে ও বৈঠক করেছে যেহেতু তা তার শেষ বৈঠক)এবং সে পরবর্তী দুনু রাকা'তে সূরা ফাতেহার সাথে ভিন্ন সূরাকে মিলিয়ে পড়বে।সে যদি কোনো রাকা'তে ক্বেরাত পরিত্যাগ করে নেয় তাহলে তার নামায ফাসিদ হয়ে যাবে।

ولو أدرك ركعة من الرباعية فعليه أن يقضي ركعة يقرأ فيها الفاتحة والسورة ويتشهد ويقضي ركعة أخرى كذلك ولا يتشهد وفي الثالثة بالخيار والقراءة أفضل. هكذا في الخلاصة.

আর যদি চার রাকা'ত বিশিষ্ট  ফরয নামাযে কেউ ইমামের সাথে শরীক হয়, এবং সে ইমামের সাথে শেষ এক রাকা'ত পায়,তাহলে সে পরবর্তী রাকা'তে সূরা ফাতেহার সাথে মিলিয়ে ভিন্ন একটি সূরা পড়বে।অতঃপর তাশাহুদ পড়বে।এরপর দ্বিতীয় রাকা'তে ও অনুরূপ সূরায়ে ফাতেহার সাথে মিলিয়ে ভিন্ন একটি সূরা পড়বে।কিন্তু তাশাহুদ বৈঠক করবে না।এরপর তৃতীয় রাকা'তে তার এখতিয়ার থাকবে,সে চাইলে ক্বেরাত পড়তেও পারবে আবার না চাইলে না ও পড়তে পারবে।(কেননা তাতে ক্বেরাত পড়া মুস্তাহাব)(খুলাসাহ)

ولو أدرك ركعتين قضى ركعتين بقراءة ولو ترك في إحداهما فسدت 
আর যদি কেউ ইমামের সাথে দুই রাকা'ত পায়, তাহলে সে দুই রাকা'ত কে সূরায়ে ফাতেহার সাথে ভিন্ন সূরা মিলিয়ে পড়বে।যদি সে কোনো এক রাকা'তে সূরা পরিত্যাগ করে ফেলে তাহলে তার নামায ফাসিদ হয়ে যাবে।(ফাতাওয়ায়ে হিন্দিয়া-১/৯১)(কিতাবুল ফাতাওয়া২/২৯২)বিস্তারিত জানুন-https://www.ifatwa.info/332


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...