0 votes
14 views
in যাকাত ও সদকাহ (Zakat and Charity) by (10 points)
closed by
আমার এক আত্মীয় ওনার ৩ ছেলে মেয়ে নিয়ে শহরে থাকে, ওনার স্বামী ওনাকে খুব বেশী সংসার খরচ দেয় না, ১ মাসের ঘরে ভাড়া দেয় তো ৩ মাসের দেয়না, বাচ্চাদের স্কুলের বেতন ও ঠিক মতো দেয় না, ওনি মানুষের কাপড় সেলাই করে কোনমতে সংসারের খরচ চালায়৷ মাঝেমধ্যে ওনার বাপরে বাড়ি থেকে টাকা নিয়ে সংসার চালায়, ওনার স্বামী মাঝে মধ্যে পালিয়ে যায় আবার অনেক দিন পর ফিরে আসে। ওনার স্বামী চাকরি করে কিন্তু সংসারে ঠিক মতো খরচ দেয় না,, এখন বাসায় থাকে৷, আমার জানামতে আমার ঐ আত্মীয়ের    ১টা ব্যাংকে ডিপিএস  আছে, কিন্তু তাতে কত টাকা আছে আমি জানিনা। এমতাবস্থায় ওনার ও সন্তানদের কথা চিন্তা করে আমার যাকাতের টাকা ওনাকে দিতে পারব কিনা? আমার জানা মতে ওনার চলতে খুব কষ্ট হয়।    যদি দেওয়া যায় ওনাকে যাকাতের টাকা জানিয়ে দিতে হবে কি না?
closed

1 Answer

0 votes
by (32.2k points)
selected by
 
Best answer

বিসমিহি তা'আলা

জবাবঃ-

উনার ডিপি এস কত টাকা আছে সেটা আগে জানতে হবে।যদি নেসাব পরিমাণ থাকে তাহলে তিনি যাকাত গ্রহণ করতে পারবেন না।কিন্তু যদি নেসাব পরিমাণ না থাকে, তাহলে তিনি যাকাত গ্রহণ করতে পারবেন।

উনার বাসা নিজস্ব থাকলেও উনি যাকাত গ্রহণ করতে পারবেন।কেননা উনি প্রয়োজনগ্রস্থ। 

والأولى أن يفسر الفقير بمن له ما دون النصاب كما في النقاية أخذا من قولهم يجوز دفع الزكاة إلى من يملك ما دون النصاب أو قدر نصاب غير تام، وهو مستغرق في الحاجة،

ফকিরের উত্তম ব্যখা হলো,যার নেসাব পরিমাণ মাল নেই।সুতরাং যার নেসাব পরিমাণ মালে নামী(ক্রমবর্ধমান) নাই বা যার নেসাব পরিমাণ মালে গায়রে নামী(ক্রমবর্ধমান নয়)আছে, তবে সে হাজতে লিপ্ত, এমন ব্যক্তিকে যাকাত দেয়া যাবে।

বাহরুর রায়েক্ব-২/২৫৮

বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন- 699

ডিপিএস যদি নেসাব পরিমাণ হয়,তাহলে উনার অবস্থার প্রতি লক্ষ্য করে একটি হিলা বা সুক্ষ্ম রাস্তা দেখিয়ে দেওয়া যেতে পারে।উনি হয়তো এই ডিপি এসকে উনার নাবালক সন্তাদের নামে করে দেবেন এবং সেই ডিপিএস থেকে নিজের সম্পূর্ণ অধিকার প্রত্যাহার করে নেবেন।এবং নাবালক সন্তানদের উকিল হিসেবে ডিপিএসের দেখাশুনা করবেন,সন্তানদের প্রয়োজনে সেটাকে খরচ করবেন।

(স্বরণ রাখা ভালো যে,ডিপিএস ইসলামে হারাম।এটা সুদ।তবে প্রয়োজন বিবেচনায় কখনো এই হুকুমে শীতিলতা আসে।

এ বিধান শুধুমাত্র আপনি বা আপনার মত পরিস্থিতির সম্মুখীন ব্যক্তিদের জন্যে।

সবার বেলায় তা প্রযোজ্য হবে না।-জদীদ ফেকহী মাসাঈল ৪/৫৫)

তখন ঐ মহিলার আর নেসাব পরিমাণ মাল থাকবে না।সুতরাং তখন তিনি যাকাত গ্রহণ করতে পারবেন।

অথবা তিনি নাবালক বাচ্ছাদের পক্ষ্য থেকে যাকাত গ্রহণ করে শুধুমাত্র বাচ্ছাদের স্বার্থেই সেটাকে ব্যবহার করবেন।নিজের কোনো প্রয়োজনে সেটাকে ব্যবহার করবেন না।

যাকাত কাউকে বলে দিতে হয় না।বরং দাতার নিয়তে থাকলেই সেটা যথেষ্ট হয়ে যায়।

আল্লাহ-ই ভালো জানেন।

উত্তর লিখনে

মুফতী ইমদাদুল হক

ইফতা বিভাগ, Iom.

by
জাজাকাল্লাহ খাইরান

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনার দ্বীন সম্পর্কীয় প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য রয়েছে আমাদের  অভিজ্ঞ ওলামায়কেরাম ও মুফতি সাহেবগনের একটা টিম যারা ইনশাআল্লাহ প্রশ্ন করার ২৪-৪৮ ঘন্টার সময়ের মধ্যেই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন।

...