0 votes
102 views
in হালাল ও হারাম (Halal & Haram) by (11 points)
খ্রিষ্টানদের জন্য ওয়েবসাইট বানানো যাবে কিনা, অবশ্যই টাকার বিনিময়ে।

1 Answer

0 votes
by (37.6k points)
সমাধানঃ-

মুসলিম অমুসলিম মু'আমালাত অর্থ্যাৎ কাজ-কর্মে প্রায় সবাই সমান।টাকার বিনিময়ে যেভাবে অমুসলিমকে শ্রমে নিয়োগ করা বৈধ। ঠিকতেমনি বৈধ কাজে মুসলমানের জন্য অমুসলিমের শ্রমে নিয়োগ হওয়াও বৈধ।

যেমন ফাতাওয়ায়ে শা'মী তে বর্ণিত রয়েছে,
ﻭﻟﻮ ﺁﺟﺮ ﻧﻔﺴﻪ ﻟﻴﻌﻤﻞ ﻓﻲ ﺍﻟﻜﻨﻴﺴﺔ ﻭﻳﻌﻤﺮﻫﺎ ﻻ ﺑﺄﺱ ﺑﻪ ﻷﻧﻪ ﻻ ﻣﻌﺼﻴﺔ ﻓﻲ ﻋﻴﻦ ﺍﻟﻌﻤﻞ
(ﺭﺩ ﺍﻟﻤﺤﺘﺎﺭ ﻋﻠﻰ ﺍﻟﺪﺭ ﺍﻟﻤﺨﺘﺎﺭ » ﻛﺘﺎﺏ ﺍﻟﺤﻈﺮ ﻭﺍﻹﺑﺎﺣﺔ » ﻓﺼﻞ ﻓﻲ ﺍﻟﺒﻴﻊ)
যদি কেউ কোনো গির্জায় শ্রমিক হিসেবে কাজ করে,অথবা টাকার বিনিময়ে গির্জা নির্মাণ করে দেয়, তাহলে এতে তার কোনো গুনাহ হবে না। কেননা এখানে মূল কাজে কোনো প্রকার গোনাহ নেই।(রদ্দুল মুহতার,৬/৩৯২)

যদি গির্জায় চাকুরী করা বৈধ হয়,তাহলে যেকোনো অমুসলিম বৈধ কম্পানিতে চাকুরী করা বৈধ হবে,বা তাদের জন্য শ্রম দেয়া বৈধ হবে ।তবে যদি সেই কাজ করতে যেয়ে ইসলামী শরীয়তের মূলনীতি বা তার কোনো শাখা-প্রশাখার বিরোধীতা করতে হয়,অথবা বাধ্যতামূলক তাদের ধর্মকে মানতে হয় বা তা প্রচার করতে হয় কিংবা নিজের ধর্ম পালনে কোনো প্রকার অসুবিধা হয়,তাহলে এক্ষেত্রে আর বৈধতার হুকুম থাকবে না।বরং সে সময় অমুসলিমের উক্ত মুসলমানের জন্য নাজায়েয হয়ে যাবে।

বিঃদ্রঃ
একজন মুসলমানের জন্য উচিৎ যে,সে সর্বাবস্থায় অন্য কোনো মুসলমানের অধীনে চাকুরী করবে, বা মুসলমানের কাজ করবে।এটাই একজন মুসলমানের মান-মর্যাদা ও সম্ভ্রম রক্ষার উত্তম মাধ্যম।
আল্লাহ-ই ভালো জানেন।


উত্তর লিখনে
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ, Iom.
পরিচালক
ইসলামিক রিচার্স কাউন্সিল বাংলাদেশ
by
জাঝাকুমুল্লাহু খইরন
by (37.6k points)
জাযাকাল্লাহ।
by (4 points)
Assalamu alaikum Ustad. I have one question. If a person help to build a Girza then indirectly he is helping them to spread their religion.  So how can he help to preach other religions.  Allah knows the best. Jazakallahu khairun.

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনার দ্বীন সম্পর্কীয় প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য রয়েছে আমাদের  অভিজ্ঞ ওলামায়কেরাম ও মুফতি সাহেবগনের একটা টিম যারা ইনশাআল্লাহ প্রশ্ন করার ২৪-৪৮ ঘন্টার সময়ের মধ্যেই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন।

Related questions

...