আইফতোয়াতে ওয়াসওয়াসা সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হবে না। ওয়াসওয়াসায় আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা ও করণীয় সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন

0 votes
44 views
in হালাল ও হারাম (Halal & Haram) by (28 points)

আসসালামু আলাইকুম 
 

বর্তমানে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সফটওয়্যার এর ব্যবহার অত্যন্ত বেড়ে চলেছে। বিভিন্ন মানুষ বিভিন্ন কাজে এই জিনিসটিকে ব্যবহার করছে। এই সফটওয়্যার অনেকটা ব্যক্তিগত এসিস্টেন্ট এর মতো। যেহেতু আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স অনেক বিষয়ে জ্ঞানী তাই এই সফটওয়্যার অনেক ব্যাপারে পরামর্শ দিতে পারে এবং অনেক কাজ করে দিতে পারে। 


 

১) আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সফটওয়্যার বর্তমানে যেগুলো আছে এগুলোর বেশিরভাগই বিধর্মী মানুষরা তৈরি করেছে বলে আমার মনে হয়। এখন এই সফটওয়্যার কিভাবে ট্রেনিং করা হয়েছে তা জানি না তাই এটা দিয়ে যেকেনো কাজ করা যাবে? আর যারা এই সফটওয়্যারকে ট্রেনিং করিয়েছে তারা বেশিরভাগ বিধর্মী হতে পারে আর বিধর্মী হওয়ায় তারা শরীয়ত মানতে বাধ্য না। তাই আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সফটওয়্যার বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা হালাল হবে? এতে সফটওয়্যার ব্যবহারকারীর  কোন গুনাহ  হতে পারে? 

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সফটওয়্যার এর ট্রেনিং বলতে আমি যা বুঝি তা এক কথায় বলতে সফটওয়্যার ব্যবহারকারী সফটওয়্যারটিতে কি ধরনের ইনপুট দিলে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সফটওয়্যার কি ধরনের আউটপুট শো করবে এটাই ডেভলপাররা  বারবার প্র্যাকটিস করায়। 


 

২) একজন মানুষ অন্যজন মানুষের হেল্প তখনই নেয় যখন সে সেই কাজটা নিজে করতে পারতেছে না বা করতে চাচ্ছে না। এখন এই আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সফটওয়্যার মানুষরা মূলত তখনই ব্যবহার করে যখন তার কাজে কোন সাহায্যের প্রযোজন হয় বা সে কাজ নিজে করতে পারছে না বা তার সময় ও শ্রম বাঁচাতে চাচ্ছে। যেমন: কেউ প্রাকৃতিক জড় বস্তু ছবি একটি চাচ্ছে এখন সে যদি এটা কোন ফটোগ্রাফারকে বলে ছবিটা তুলে দিতে তখন তাকে এর জন্য একটি চার্জ দিতে হবে ফটোগ্রাফারকে। একইভাবে অনেক আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সফটওয়্যার এই ছবিটাই তৈরি করে দিবে কিন্তু বিনামূল্য বা একটা নির্দিষ্ট অর্থের বিনিময়ে। এখন নিজে কোন কাজ না পারলে বা শ্রম ও সময় বাঁচানোর জন্য এ কাজটি আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সফটওয়্যার দিয়ে করালে তা কি হালাল হবে? এতে সফটওয়্যার ব্যবহারকারীর  কোন গুনাহ  হতে পারে? 

 

জাযাকাল্লাহু খাইরান 

1 Answer

0 votes
by (711,760 points)
জবাবঃ-
وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته 
بسم الله الرحمن الرحيم

ওয়াবিসা ইবনে মা'বাদ রাযি থেকে বর্ণিত,

ﻭﻋﻦ ﻭﺍﺑﺼﺔَ ﺑﻦِ ﻣَﻌْﺒِﺪٍ  ﻗَﺎﻝَ : ﺃَﺗَﻴْﺖُ ﺭﺳﻮﻝَ ﺍﻟﻠَّﻪ ﷺ ﻓَﻘَﺎﻝَ : « ﺟِﺌْﺖَ ﺗﺴﺄَﻝُ ﻋﻦِ ﺍﻟﺒِﺮِّ؟ » ﻗُﻠْﺖُ : ﻧَﻌَﻢْ، ﻓَﻘَﺎﻝَ : « ﺍﺳْﺘَﻔْﺖِ ﻗَﻠْﺒَﻚَ، ﺍﻟﺒِﺮُّ : ﻣَﺎ ﺍﻃْﻤَﺄَﻧَّﺖْ ﺇِﻟَﻴْﻪِ ﺍﻟﻨَّﻔْﺲُ، ﻭﺍﻃْﻤَﺄَﻥَّ ﺇِﻟَﻴْﻪِ ﺍﻟﻘَﻠْﺐُ، ﻭﺍﻹِﺛﻢُ : ﻣَﺎ ﺣﺎﻙَ ﻓﻲ ﺍﻟﻨَّﻔْﺲِ، ﻭﺗَﺮَﺩَّﺩَ ﻓِﻲ ﺍﻟﺼَّﺪْﺭِ، ﻭﺇِﻥْ ﺃَﻓْﺘَﺎﻙَ ﺍﻟﻨَّﺎﺱُ ﻭَﺃَﻓْﺘَﻮﻙَ » ﺣﺪﻳﺚٌ ﺣﺴﻦٌ، ﺭﻭﺍﻩُ ﺃﺣﻤﺪُ ﻭﺍﻟﺪَّﺍﺭﻣِﻲُّ ﻓﻲ " ﻣُﺴْﻨَﺪَﻳْﻬِﻤﺎ ."
তিনি বলেন,আমি রাসূলুল্লাহ সাঃ এর নিকট গেলাম।রাসূলুল্লাহ সাঃ আমাকে বললেন,তুমি কি নেকীর কাজ সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করার জন্য এসেছ?আমি বললাম জ্বী হ্যা, ইয়া রাসূলাল্লাহ!
তখন তিনি আমাকে বললেন,তুমি তোমার অন্তরের নিকট ফাতওয়া জিজ্ঞাসা করো।নেকি হল সেটা যার উপর অন্তর প্রশান্তিবোধ করে,এবং যে জিনিষের উপর অন্তর শান্ত থাকে।আর গোনাহ হল সেটা,যা অন্তরে অশান্তি সৃষ্টি করে নাড়িয়ে দেয়,এবং অন্তরকে দ্বিধান্বিত করে ফেলে।যদিও উক্ত কাজ সম্পর্কে মুফতিগণ বৈধতার ফাতাওয়া প্রদাণ করুক না কেন। (মুসনাদে আহমদ-১৭৫৪৫)

হাসান ইবনে আলী রাযি থেকে বর্ণিত রয়েছে।

ﻭﻋﻦ ﺍﻟﺤَﺴَﻦِ ﺑﻦ ﻋَﻠﻲٍّ ﺭﺿﻲَ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻋﻨﻬﻤﺎ ﻗَﺎﻝَ : ﺣَﻔِﻈْﺖُ ﻣِﻦْ ﺭَﺳُﻮﻝ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﷺ : « ﺩَﻉْ ﻣَﺎ ﻳَﺮِﻳﺒُﻚَ ﺇِﻟﻰ ﻣَﺎ ﻻ ﻳﺮِﻳﺒُﻚ » ﺭﻭﺍﻩُ ﺍﻟﺘﺮﻣﺬﻱ ﻭﻗﺎﻝ : ﺣﺪﻳﺚٌ ﺣﺴﻦٌ ﺻﺤﻴﺢٌ 

তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাঃ কে বলতে শুনেছি।তিনি বলেন,সন্দেহ যুক্ত জিনিষকে পরিহার করে সন্দেহমুক্ত জিনিষকে গ্রহণ করো।(সুনানু তিরমিযি-২৪৪২)

★সু-প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনী ভাই/বোন!
(০১)
বৈধ যেকোনো কাজে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সফটওয়্যার ব্যবহার করা জায়েহ হবে। তবে এটা ব্যবহারের ক্ষেত্রে যদি কোনো নীতিমালা থাকে,সেক্ষেত্রে নীতিমালার খেলাফ কোনো কাজে তাহা ব্যবহার করা যাবেনা।

(০২)
প্রশ্নে উল্লেখিত ছুরতে শ্রম ও সময় বাঁচানোর জন্য এ কাজটি আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সফটওয়্যার দিয়ে করালে তা হালাল হবে। এতে সফটওয়্যার ব্যবহারকারী কোনো ধোকার আশ্রয় না নিয়ে থাকলে,কোনো আইনের বিরোধী কিছু না করে থাকলে বৈধ কাজে এর ব্যবহার করে থাকলে সেক্ষেত্রে তার গুনাহ হবেনা। 


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন। এই প্রশ্ন ও উত্তরগুলো আমাদের ফেসবুকেও শেয়ার করা হবে। তাই প্রশ্ন করার সময় সুন্দর ও সাবলীল ভাষা ব্যবহার করুন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি স্থানীয় মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

...