আইফতোয়াতে ওয়াসওয়াসা সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হবে না। ওয়াসওয়াসায় আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা ও করণীয় সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন

0 votes
37 views
in ঈমান ও বিশ্বাস (Faith and Belief) by (14 points)
আসসালামু আলাইকুম।
আমার স্ত্রী একটি মাদ্রাসার ছাত্রী। বর্তমানে তার বার্ষিক পরীক্ষা চলছে ফলে সে সব সময় পড়াশোনা নিয়ে ব্যস্ত। কিন্তু তার মাঝে কিছু অসুস্থতা আছে, যেটা বেড়ে যাচ্ছে। আমি তাকে বারবার ডাক্তারের কাছে নিয়ে যেতে চাইলেও পড়ার ক্ষতি হবে বলে সে যেতে চায় না। তো আমি রাগ করে বলে ফেলেছি "বাদ দাও/ রাখো তোমার পড়াশুনা", "পড়াশোনা পরে হবে"


পর মুহূর্তে আমার মনে হল, সে তো ইল্ম অর্জন করছে। আর আমি তাকে এমন বাজে কথা বলে ফেললাম। আমার এই কথা তো গিয়ে ইল্মকে আঘাত করলো, তবে আমি এ কথা বলার সময় শরীয়তের ইলমকে মাথায় রেখে বলিনি। আল্লাহর কসম আমি খুবই পছন্দ করি যে সে মাদ্রাসার পড়াশোনা নিয়ে ব্যস্ত থাকে সবসময় এবং আমি এটাই চাই যে সে আরো বেশি ব্যস্ত থাকুক মাদ্রাসার পড়াশোনা নিয়ে, দ্বীনের খেদমত করুক। কিন্তু ডাক্তার দেখাতে না যেতে চাওয়ার কারণে আমি রেগে গিয়ে ওই কথাটি বলে ফেলেছি।


আমার কথা দ্বারা কি কুফর হয়ে গেছে.? নতুন করে ঈমান আনতে হবে.? আমার করনীয় কি.? দয়া করে প্লিজ জানাবেন।

1 Answer

0 votes
by (735,240 points)
ওয়া আলাইকুমুস-সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু। 
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
আলহামদুলিল্লাহ!
عَنْ عُمَرَ بْنَ الْخَطَّابِ ـ رضى الله عنه ـ عَلَى الْمِنْبَرِ قَالَ سَمِعْتُ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم يَقُولُ " إِنَّمَا الأَعْمَالُ بِالنِّيَّاتِ، وَإِنَّمَا لِكُلِّ امْرِئٍ مَا نَوَى، فَمَنْ كَانَتْ هِجْرَتُهُ إِلَى دُنْيَا يُصِيبُهَا أَوْ إِلَى امْرَأَةٍ يَنْكِحُهَا فَهِجْرَتُهُ إِلَى مَا هَاجَرَ إِلَيْهِ ".
আলক্বামাহ ইবনু ওয়াক্কাস আল-লায়সী (রহ.) হতে বর্ণিত। আমি ’উমার ইবনুল খাত্তাব (রাঃ)-কে মিম্বারের উপর দাঁড়িয়ে বলতে শুনেছিঃ আমি আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-কে বলতে শুনেছিঃ কাজ (এর প্রাপ্য হবে) নিয়্যাত অনুযায়ী। আর মানুষ তার নিয়্যাত অনুযায়ী প্রতিফল পাবে। তাই যার হিজরত হবে ইহকাল লাভের অথবা কোন মহিলাকে বিবাহ করার উদ্দেশে- তবে তার হিজরত সে উদ্দেশেই হবে, যে জন্যে, সে হিজরত করেছে।]- (সহীহ বোখারী-১)

সু-প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনী ভাই/বোন!
যেহেতু আপনার উদ্দেশ্য ডাক্তার দেখাতে নিয়ে যাওয়া। ইলম বা ইলম অর্জনকে কটাক্ষ করা আপনার কোনো উদ্দেশ্য নয়, তাই আপনার ঈমানে কোনো সমস্যা হবে না।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন। এই প্রশ্ন ও উত্তরগুলো আমাদের ফেসবুকেও শেয়ার করা হবে। তাই প্রশ্ন করার সময় সুন্দর ও সাবলীল ভাষা ব্যবহার করুন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি স্থানীয় মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

Related questions

...