আইফতোয়াতে ওয়াসওয়াসা সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হবে না। ওয়াসওয়াসায় আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা ও করণীয় সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন

0 votes
133 views
in পরিবার,বিবাহ,তালাক (Family Life,Marriage & Divorce) by (1 point)
edited by
আসসালমুআলাইকুম হুজুর,
১. হুজুর আমি খুব চিন্তিত রয়েছি। Plz আমাকে চিন্তা মুক্ত হতে একটু হেল্প করবেন।
বিষয় হলো, আমি ৩ বছর ধরে মানসিক রোগের ওষধ খাচ্ছি। আমি নার্ভের ও মানসিক দিক থেকে অসুস্থ। ওষধ খেয়ে আমি ঠিক আছি। ১ বছর হলো আমি বিয়ে করেছি। বিয়ের কিছুদিন পর স্ত্রী র সঙ্গে ঝামেলা হয়েছিল একটু দিয়ে আমি ১ তালাক কথা টা বলেছিলাম। তার পর আমার স্ত্রী কে ফিরিয়ে নিয়ে সংসার করছি। কিন্তু তার পর থেকে আমাকে এই তালাক এর ওয়াসওয়াসা ও ঈমানী ওয়াসওয়াসা আমাকে জড়িয়ে ধরেছে । আমি কিছু তেই বেরোতে পারছিনা এই সব থেকে।  তার আগে থেকেই আমি মানসিক রুগী ও ওয়াসওয়াসা রুগী আমি সেইটা বুঝতে পেরেছিলাম না।
আমার স্ত্রী যে ফিরিয়ে নেওয়ার পর একদিন আমি ট্রেন এ করে বাড়ি আসছিলাম , তখন শয়তানের ওয়াসওয়াসা তে শুধু মনে মনে ওই সব চিন্তা আসে , দিয়ে আমি হয়ত মুখে উচ্চরণ করিনি জিহ্ববা নাড়িয়ে উচ্চরণ করিনি, , হালকা ঠোঁট নড়েছে, যাকে উচ্চরণ বলা যায়না।  জার লিংক দিচ্ছি।
*.https://ifatwa.info/52150/
*.https://ifatwa.info/52156/
হুজুর এর পর আমি একদিন ট্রেন এ করে আসছিলাম , আমি ঘুমিয়ে ছিলাম হঠাৎ আমার মনেমনে কি হয় দিয়ে ঘুম ভেংগে জাই, কিন্তু সঠিক কিছু মনে ছিল না নিচে লিংক দিলাম একটু কষ্ট করে পড়ে নিবেন।
* https://ifatwa.info/75458/

২. হুজুর কালকে রাত্রি তে ঘুমিয়ে ছিলাম , হটাৎ তালাক কথা টা মনে হয়, আমি তখন মনে মনে ভাবছি , মনে মনে বললে কিছু হয়না। দিয়ে আবার ঘুমিয়ে গেলাম দিয়ে মনে মনে তালাক কথা টা হয়েছে, দিয়ে আমি নিশ্চিন্ত নয় যে আমি উচ্চরণ করেছি কিনা,তাই আমি কয়েকবার মনে মনে আর হালকা একদম হালকা ঠোঁট নাড়িয়ে  তালাক কথা টা বলে দেখছিলাম যে আমি উচ্চরণ করেছিলাম নাকি আসলে আমি উচ্চরণ করিনি , আমি এই রকম করে দেখছিলাম নিশ্চিন্ত হওয়ার জন্য , কোনো খারাপ উদ্দেশ্য নিয়ে বলিনি এর জন্য কি তালাক হবে?
৩. হুজুর তার পর স্বপ্নে কি বাস্তবে সেটা বুঝতে পারছি না যে আমি উচ্চরণ করেছি কিনা সেইটা বোঝার জন্য মোবাইল এর কাচ এ মুখে এর ভঙ্গিমা দেখছিলাম আর ওই কথা বা অন্য কোনো কথা আমি বলছিলাম , আসলে আমার এই টা মনে পড়ছে না আমি স্বপ্নে না এমনি বলেছিলাম । আর আমি যদি বলি তাহলে উচ্চরণ হয়েছে কিনা সেই টা দেখায় জন্য এই করতে পারি।  আমি আমার স্ত্রী কে উদ্দেশ্য করে কিছু বলিনি। আমি আসলে দেখছিলাম আমার উচ্চরণ হয়েছে নাকি সেইটা।
৪. হুজুর আমার স্ত্রী খুবই রেগে গিয়েছিল আমার এইসব ঘটনা শুনে, দিয়ে স্ত্রী তালাক কথা টা উচ্চরণ করে বলছে যে কেউ যদি এমনি তালাক কথা টা উচ্চরণ করে তাতে কিছুই হবে না । যদি তার উদ্দেশ্য না থাকে। হুজুর আমি স্ত্রী কে অন্নকে বার জিজ্ঞাসা করলাম তুমি এমন বললে কেনো সে একই কথা বললো সে আমাকে বোঝানোর জন্য বলেছে , সে উদ্দেশ্য ছাড়া এমনি বোঝানোর জন্য উচ্চরণ করলে কিছু হবে না । হুজুর এক্ষেত্রে কোনো তালাক হবে না তো?

৪.১ হুজুরে আমার খুব ভয় হয়ে জাই , ৩ বার এইরকম ঘটনা ঘটলো। দিয়ে আমি আব্বা কে ভয় এ বলি আব্বা তাহলে কি  অন্য জায়গাতে বিয়ে দিতে হবে দিয়ে আবার বিয়ে করতে হবে এইরকম ভয় পেয়ে আব্বা কে বলেছিলাম। হুজুর আব্বাকে জানার জন্য বলেছি এর জন্য  বৈবাহিক জীবনে কোনো সমস্যা হবে না তো?

৫. হুজুর সমস্ত ঘটনা বললাম। হুজুর আমার তো একবার ই সমস্যা হয়েছে তাই না হুজুর?? আমাকে বলবেন আমার কটা তালাক হয়েছে?
হুজুর আমার বৈবাহিক সম্পর্ক ঠিক আছে তো? হুজুর আমার সঙ্গে যে ঘটনা গুলো ঘটেছে এর জন্য তো কোনো তালাক হবে না তাইনা??
৬. হুজুর আমার বিয়ের অনুষ্ঠান করবো ভাবছি, ও আমরা সন্তান নিবো ভাবছি, হুজুর আমাদের সম্পর্ক হালাল আছে আছে তো? আল্লাহর কাছে গুনহেগার হয়ে যাবো না তো? আমার সন্তান যদি হয় তাহলে জায়েজ সন্তান হবে তো?? হুজুর আমার খুবই চিন্তা হচ্ছে আমাকে সাহায্য করুন। হুজুর।।
৭. হুজুর এইখানে তালাক কথা টা লিখতে হয়েছে এর জন্য কোনো তালাক হবে না তো? লিখতে গিয়ে একটু পড়তে পড়তে হালকা ঠোঁট নড়ে তাহলে তালাক হবে না তো?
৮. হুজুরে আমার বৈবাহিক সম্পর্ক ঠিক আছে তো? হুজুর সমস্ত ঘটনা বললাম আমার টোটাল কটা তালাক হয়েছে? হুজুর আমাদের সম্পর্ক ইসলামিক শরিয়ত মোতাবেক আছে তো??
৯. হুজুর আমাকে আর এইসব নিয়ে চিন্তা করতে হবে না তো?? প্লজ plz plz plz আমাকে চিন্তা মুক্ত করুন । আমার বৈবাহিক সম্পর্ক ঠিক আছে তো? আল্লাহর কাছে কোনো পাপী হয়ে যাব না তো? হুজুর আমাদের সম্পর্ক ঠিক আছে তো? আমরা একসঙ্গে থাকছি আমাদের কোনো পাপ হবে না তো?
১০. হুজুর আমার বৈবাহিক জীবন ঠিক আছে তো? আমাকে বার বার চিন্তা করতে হবে না তো? আমরা এখন যদি সন্তান নি তাহলে জায়েজ সন্তান হবে তো?
১১. হুজুর স্ত্রীর সঙ্গে ঝামেলা হচ্ছিলো, দিয়ে স্ত্রী রেগে বলছে তোমার মত কূটনীতি মানুষ দরকার নেই। আমার ভয় হয়ে যায় কেনিয়া বলে। হুজুর আমি পরে স্ত্রী কে জিজ্ঞাসা করি কি হিসেবে এই কথা বললে সে বললো রেগে বলেছে কোনো কারণ নেই। এই কথা শুনে আমি রাগ করে স্ত্রীর গায়ে হাত তুলেছি। হুজুর আমার স্ত্রী রেগে এমনি বলেছে। হুজুর এর জন্য কি কোনো তালাক হবে?

১২. হুজুর রেগে স্ত্রীর গায়ে হাত তুলেছি , দিয়ে স্ত্রী বলছে তোমার কি ঈমান আমাকে মারছো? তোমার ঈমান ঠিক থাকবে না এই রকম না না কথা বলেছে , হুজুর আমিও রেগে মেরেছি হুজুর বৈবাহিক সম্পর্ক ঠিক আছে তো ? ঈমান ঠিক আছে তো? হুজুর  রাগের সময় না না রকমের বাজে চিন্তা মাথায় চলে এসেছে । আমি গুরুত্ব দেইনি। হুজুর আমার বৈবাহিক সম্পর্ক ঠিক আছে তো?

১৩. হুজুর আমি কোনো ইনকাম করিনা। এই নিয়ে সংসার এ খুব প্রবলেম। হুজের স্ত্রী বলছে , অন্য মেয়ের মতো বলতে হতো আগে ইনকাম করো তারপর বিয়ে। আবার বলছে তোমাকে নিয়ে চলা খুব কঠিন। আসলে স্ত্রী রেগে এই সব বলছে । আমি স্ত্রী কে রেগে বলেছি তোমাদের বাড়ি আসবো না। হুজুর সবই রাগে ছোটো ছোটো কথা এর জন্য কি বৈবাহিক সম্পর্ক এর কোনো সমস্যা হবে? স্ত্রী শুধু বলছে আল্লাহ আমকে তুলে নাও। আমার জীবন শেষ হয়ে গেলো, তুমি আমার জীবন কি করে দিলে , আমাকে শেষ করে দিলে, এইসব বলছে রেগে, আবার বলছে বাড়ি থেকে বেরিয়ে চলে যাবো।   হুজুর আমার স্ত্রী এই সব  এমনি রেগে বলেছে , কোনো অন্য কারণ নেই হুজুর এর জন্য বৈবাহিক সম্পর্ক তে কোনো সমস্যা হবে না তো? কোনো তালাক হবে না তো?

1 Answer

0 votes
by (701,080 points)
জবাবঃ-
وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته 
بسم الله الرحمن الرحيم


শরীয়তের বিধান হলো, মুখে উচ্চারণ না করে শুধু মনে মনে তালাক দিলে বা মনে মনে শর্ত যুক্ত তালাক দিলে তাহা পতিত হবেনা।
,
হাদীস শরীফে এসেছেঃ 

مُسْلِمُ بْنُ إِبْرَاهِيمَ حَدَّثَنَا هِشَامٌ حَدَّثَنَا قَتَادَةُ عَنْ زُرَارَةَ بْنِ أَوْفٰى عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ عَنْ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم قَالَ إِنَّ اللهَ تَجَاوَزَ عَنْ أُمَّتِي مَا حَدَّثَتْ بِه„ أَنْفُسَهَا مَا لَمْ تَعْمَلْ أَوْ تَتَكَلَّمْ
قَالَ قَتَادَةُ إِذَا طَلَّقَ فِي نَفْسِه„ فَلَيْسَ بِشَيْءٍ.

আবূ হুরাইরাহ (রাঃ) সূত্রে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হতে বর্ণিত। তিনি বলেছেনঃ আল্লাহ আমার উম্মতের হৃদয়ে যে খেয়াল জাগ্রত হয় তা ক্ষমা করে দিয়েছেন, যতক্ষণ না সে তা কার্যে পরিণত করে বা মুখে উচ্চারণ করে।

ক্বাতাদাহ (রহ.) বলেনঃ মনে মনে তালাক দিলে তাতে কিছুইতালাক হবে না। [বুখারী শরীফ ৫২৬৯.২৫২৮] আধুনিক প্রকাশনী- ৪৮৮৩, ইসলামিক ফাউন্ডেশন- ৪৭৭৮)

অন্য এক হাদীস শরীফে এসেছে-

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ ـ رضى الله عنه ـ قَالَ قَالَ النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم " إِنَّ اللَّهَ تَجَاوَزَ لِي عَنْ أُمَّتِي مَا وَسْوَسَتْ بِهِ صُدُورُهَا، مَا لَمْ تَعْمَلْ أَوْ تَكَلَّمْ ".

আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেন, (আমার বরকতে) আল্লাহ আমার উম্মতের অন্তরে উদিত ওয়াসওয়াসা (পাপের ভাব ও চেতনা) মাফ করে দিয়েছেন। যতক্ষণ পর্যন্ত না সে তা কাজে পরিণত করে অথবা মুখে বলে। (সহীহ বুখারী ২৫২৮)

বিস্তারিত জানুনঃ- 

প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনি ভাই,
(১-১৩)
প্রশ্নের বিবরণ মতে কোনো ছুরতেই তালাক হবেনা।

আপনাদের বৈবাহিক সম্পর্ক আগের মতোই বহাল রয়েছে, আলহামদুলিল্লাহ। 
সন্দেহকে পাত্তা না দিয়ে নিশ্চিন্ত মনে সংসার চালিয়ে যাওয়ার পরামর্শ রইলো। 


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন। এই প্রশ্ন ও উত্তরগুলো আমাদের ফেসবুকেও শেয়ার করা হবে। তাই প্রশ্ন করার সময় সুন্দর ও সাবলীল ভাষা ব্যবহার করুন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি স্থানীয় মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

Related questions

...