0 votes
42 views
in পবিত্রতা (Purity) by (8 points)
আসসালামু আলাইকুম মুহতারাম, আমার একটি প্রশ্ন ছিলো। পস্রাব করার পর টিস্যু ব্যবহার করার পরে পানি ব্যবহার করার সময় যদি ব্যবহৃত পানির ছিটা (ধৌত অবস্থায়)কাপড়ে লেগে যায় তাহলে কি কাপড় নাপাক হয়ে যাবে???

এবং আমি খুব ওয়াসওয়াসা রুগে ভুগি। এর থেকে পরিত্রানের উপায় যদি বলে দিতেন।

রব্বে কারীম আপনাদের এই মোকারক মেহনতকে কবুল করে নিক।

1 Answer

0 votes
by (469,840 points)
edited by
ওয়া আলাইকুমুস-সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু। 
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
আলহামদুলিল্লাহ!
لَوْ اسْتَنْجَى بِالْمَاءِ وَلَمْ يَمْسَحْهُ بِالْمِنْدِيلِ حَتَّى فَسَا. عَامَّتُهُمْ عَلَى أَنَّهُ لَا يَتَنَجَّسُ مَا حَوْلَهُ وَكَذَا لَوْ لَمْ يَسْتَنْجِ وَلَكِنْ ابْتَلَّ السَّرَاوِيلُ بِالْعَرَقِ أَوْ بِالْمَاءِ ثُمَّ فَسَا. كَذَا فِي الْخُلَاصَةِ. 
যদি কেউ পানি দ্বারা ইস্তেঞ্জা করে, এবং ইস্তেঞ্জা করার পর পানি দ্বারা না মুছে, অতঃপর  বায়ূ ছাড়ে, তাহলে অধিকাংশ ফকিহগণের রায় হল, লজ্জাস্থান বা তার আশপাশ নাপাক হবে না। ঠিক এইভাবে যদি ইস্তেঞ্জা করা নাও হয়, তবে ঘাম বা পানি দ্বারা লজ্জাস্থান ভিজে যায়, অতঃপর বায়ূ বের হয়,তাহলে তখনও লজ্জস্থান বা তার আশপাশ নাপাক হবে না। (ফাতাওয়ায়ে হিন্দিয়া-১/৪৭)


সু-প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনী ভাই/বোন!
ওয়াসওয়াসা মূলত এক প্রকারের মানষিক রোগ। মেডিকেল ট্রিটমেন্ট দ্বারা সেই রোগ ভালো হয়।
সুতরাং মেডিকেল ট্রিটমেন্ট গ্রহণ করুন। ইস্তেঞ্জা করার পর রুমাল ইত্যাদি দ্বারা লজ্জাস্থানকে মুছে নেওয়া উত্তম। তবে মুছে না নিলেও কোনো সমস্যা হবে না।

পস্রাব করার পর টিস্যু ব্যবহার করার পরে পানি ব্যবহার করার সময় যদি ব্যবহৃত পানির ছিটা (ধৌত অবস্থায়) কাপড়ে লেগে যায়, তাহলে কাপড় নাপাক হবে না।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

by (469,840 points)
সংযোজন ও সংশোধন করা হয়েছে।
by (8 points)
মুহতারাম আরেকটা প্রশ্ন, ইস্তিঞ্জা খানায় যেখানে পস্রাব করা হয়, সেখানেই পানি ব্যবহার করলে পস্রাব যে যায়গায় পরে সেখান থেকে পানির ছিটা কাপড়ে লেগে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। লেগেও যায়। এমতা অবস্থায় এহেন পরিস্থিতি থেকে বাচার উপায় কি????

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...