0 votes
28 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (55 points)
কোন স্ত্রি যদি তার সামিকে বলে তুমি নামায সুরু কর সব ঠিক হয়ে যাবে, তখন যদি সেই সামি বলে, ((((((সে নামায পরা শুরু করলে তার স্ত্রি বাদ হয়ে যাবে,)))))) তখন সেই স্ত্রি জানতে চায় বাদ হউয়া বলতে সামি কি বুঝাইছে,  সামি স্ত্রি এর সাথে সম্পক শেষ হয়ে যাবে নাকি সে তার স্ত্রি কে আর রাকবেনা এমন কিছু, তখন সামি চুপ থাকে কিছু বলে না

১))সেই সামি যদি নামায পরা সুরু করে তাহলে কি হবে

২))সেই সামি  যতবার নামায পরবে ততবার কি((((()))))
৩))) কেনায়া বাক্কে ১ (((())))  হউএর পর  বিয়ের আগে আবার শরত যুক্ত কেনায়া বললে  এবং বিয়ের আগেই সেই শরত পাওয়া গেলে কি আগের টার সাথে যুক্ত হবে
৪))) সামি যদি মনে মনে শরত যুক্ত (((()))) দেয় তাহলে সেই শরত পাওয়া গেলে কি হবে

৫))) সামি যদি বলে তুমি বাদ, তুমি নাই এগুলা  বললে কি হবে

৬))) সামি যদি বলে,  এই স্ত্রি এর সাথে জীবন এও তার সংসার হবে না
৭))) নিজের দিকে নিসবত না করে কোন স্ত্রি যদি বিবরন লিখে কিন্তু লিখার পর বা লিখার সময় যদি সেই স্ত্রি এর মনে ওয়াস অয়াসসা চলে আসে তাহলে কি সমস্যা হবে
৮))) নিজের উদ্দেশ্য না করে বিবরন লেখার পর ওয়াস অসাসা চলে আসলে কি হবে

1 Answer

0 votes
by (382,000 points)
edited by
জবাব
بسم الله الرحمن الرحيم 


তালাক এটি খুবই মারাত্মক একটি বিষয় । নিকৃষ্ট হালাল বলা হয়েছে হাদীসে। 

হাদীস শরীফে এসেছেঃ 

حَدَّثَنَا كَثِيرُ بْنُ عُبَيْدٍ، حَدَّثَنَا مُحَمَّدُ بْنُ خَالِدٍ، عَنْ مُعَرِّفِ بْنِ وَاصِلٍ، عَنْ مُحَارِبِ بْنِ دِثَارٍ، عَنِ ابْنِ عُمَرَ، عَنِ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم قَالَ " أَبْغَضُ الْحَلاَلِ إِلَى اللَّهِ تَعَالَى الطَّلاَقُ " .

কাসীর  ইবন  উবায়দ .......... ইবন  উমার  (রাঃ)  নবী  করীম  সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম  হতে  বর্ণনা  করেছেন যে,  আল্লাহ্  তা‘আলার  নিকট  নিকৃষ্টতম  হালাল বস্তু  হল  তালাক।

(আবূ দাউদ ২১৭৮, ইরওয়া ২০৪০, যইফ আবু দাউদ ৩৭৩-৩৭৪, আর-রাদ্দু আলাল বালীক ১১৩।) 


ألفاظ الشرط إن … ومتی ومتی ما ففي ہٰذہٖ الألفاظ إذا وجد الشرط انحلت الیمین وانتہت؛ لأنہا لا تقتضي العموم والتکرار، فبوجود الفعل مرۃ تم الشرط وانحلت الیمین فلا یتحقق الحنث بعدہ۔ (الفتاویٰ الہندیۃ ۱؍۴۱۵) 
সারমর্মঃ
শর্তের কিছু বাক্য আছে,যখন শর্ত পাওয়া যাবে,কসম ভেঙ্গে যাবে এবং শেষ হয়ে যাবে।
সেই শর্ত অনুপাতে হুকুম ফিরে আসবেনা।
কেননা এটি বারংবার কে চায়না।  

বিস্তারিত জানুনঃ  

★★প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনি ভাই/বোন,   
(০১)
তালাককে শর্তের সাথে সংযুক্ত করলে শর্ত পাওয়া গেলেই বক্তব্য অনুপাতে তালাক পতিত হয়ে যাবে।
,
সুতরাং প্রশ্নে উল্লেখিত ছুরতে উক্ত স্বামী যদি "বাদ" শব্দ দ্বারা তালাকের নিয়ত করে থাকে,তাহলে নামাজ পড়া শুরু করলে এক তালাক পতিত হবে।       
এরপর উক্ত স্বামীর কাছে শরীয়তের বিধান মেনে (পুনরায় বিবাহের মাধ্যমে)  ফিরিয়ে যাওয়ার পর উক্ত শর্ত আবার পাওয়া গেলেও (স্বামী নামাজ পড়লেও) 
আর তালাক পতিত হবেনা।

★তবে স্বামী যদি "বাদ" বলার দ্বারা তালাকের নিয়ত না করে থাকে,তাহলে কোনো সমস্যাই নেই। 

(০২)
না,শুধু প্রথমবার তালাক হবে।

(০৩)
না,যুক্ত হবেনা।

(০৪)
না,এতে কোনো তালাক হবেনা।

(০৫)
তালাকের নিয়তে বললে তালাক হবে।
নতুবা নয়।

(০৬)
এতে তালাক হবেনা।

(০৭)
না, এতে সমস্যা হবেনা।

(০৮)
এতে তালাক হবেনা।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...