+1 vote
13 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (1 point)
'জান বাঁচানো ফরজ' মর্মে কি কোনো আয়াত বা হাদীস আছে? পরীক্ষায় দেখাদেখিকে জায়েয করার জন্য অনেক বন্ধু ঠাট্টাচ্ছলে এটা বলে থাকে। তাদেরকে কতটুকু সাবধান করা উচিত?

1 Answer

0 votes
by (50,640 points)

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।


জবাবঃ- 
জান বাঁচানো সম্পর্কে আল্লাহ তা'আলা বলেনঃ
ﺇِﻧَّﻤَﺎ ﺣَﺮَّﻡَ ﻋَﻠَﻴْﻜُﻢُ ﺍﻟْﻤَﻴْﺘَﺔَ ﻭَﺍﻟﺪَّﻡَ ﻭَﻟَﺤْﻢَ ﺍﻟْﺨِﻨﺰِﻳﺮِ ﻭَﻣَﺎ ﺃُﻫِﻞَّ ﺑِﻪِ ﻟِﻐَﻴْﺮِ ﺍﻟﻠّﻪِ ﻓَﻤَﻦِ ﺍﺿْﻄُﺮَّ ﻏَﻴْﺮَ ﺑَﺎﻍٍ ﻭَﻻَ ﻋَﺎﺩٍ ﻓَﻼ ﺇِﺛْﻢَ ﻋَﻠَﻴْﻪِ ﺇِﻥَّ ﺍﻟﻠّﻪَ ﻏَﻔُﻮﺭٌ ﺭَّﺣِﻴﻢٌ
তিনি তোমাদের উপর হারাম করেছেন, মৃত জীব, রক্ত, শুকরের মাংস এবং সেসব জীব-জন্তু যা আল্লাহ ব্যাতীত অপর কারো নামে উৎসর্গ করা হয়।অবশ্য যে লোক অনন্যোপায় হয়ে পড়ে এবং নাফরমানী ও সীমালঙ্ঘনকারী না হয়, তার জন্য(ভক্ষণে) কোন পাপ নেই। নিঃসন্দেহে আল্লাহ মহান ক্ষমাশীল ও অত্যন্ত দয়ালু।(সূরা বাক্বারা-১৭৩)

ﺣُﺮِّﻣَﺖْ ﻋَﻠَﻴْﻜُﻢُ ﺍﻟْﻤَﻴْﺘَﺔُ ﻭَﺍﻟْﺪَّﻡُ ﻭَﻟَﺤْﻢُ ﺍﻟْﺨِﻨْﺰِﻳﺮِ ﻭَﻣَﺎ ﺃُﻫِﻞَّ ﻟِﻐَﻴْﺮِ ﺍﻟﻠّﻪِ ﺑِﻪِ ﻭَﺍﻟْﻤُﻨْﺨَﻨِﻘَﺔُ ﻭَﺍﻟْﻤَﻮْﻗُﻮﺫَﺓُ ﻭَﺍﻟْﻤُﺘَﺮَﺩِّﻳَﺔُ ﻭَﺍﻟﻨَّﻄِﻴﺤَﺔُ ﻭَﻣَﺎ ﺃَﻛَﻞَ ﺍﻟﺴَّﺒُﻊُ ﺇِﻻَّ ﻣَﺎ ﺫَﻛَّﻴْﺘُﻢْ ﻭَﻣَﺎ ﺫُﺑِﺢَ ﻋَﻠَﻰ ﺍﻟﻨُّﺼُﺐِ ﻭَﺃَﻥ ﺗَﺴْﺘَﻘْﺴِﻤُﻮﺍْ ﺑِﺎﻷَﺯْﻻَﻡِ ﺫَﻟِﻜُﻢْ ﻓِﺴْﻖٌ ﺍﻟْﻴَﻮْﻡَ ﻳَﺌِﺲَ ﺍﻟَّﺬِﻳﻦَ ﻛَﻔَﺮُﻭﺍْ ﻣِﻦ ﺩِﻳﻨِﻜُﻢْ ﻓَﻼَ ﺗَﺨْﺸَﻮْﻫُﻢْ ﻭَﺍﺧْﺸَﻮْﻥِ ﺍﻟْﻴَﻮْﻡَ ﺃَﻛْﻤَﻠْﺖُ ﻟَﻜُﻢْ ﺩِﻳﻨَﻜُﻢْ ﻭَﺃَﺗْﻤَﻤْﺖُ ﻋَﻠَﻴْﻜُﻢْ ﻧِﻌْﻤَﺘِﻲ ﻭَﺭَﺿِﻴﺖُ ﻟَﻜُﻢُ ﺍﻹِﺳْﻼَﻡَ ﺩِﻳﻨًﺎ ﻓَﻤَﻦِ ﺍﺿْﻄُﺮَّ ﻓِﻲ ﻣَﺨْﻤَﺼَﺔٍ ﻏَﻴْﺮَ ﻣُﺘَﺠَﺎﻧِﻒٍ ﻟِّﺈِﺛْﻢٍ ﻓَﺈِﻥَّ ﺍﻟﻠّﻪَ ﻏَﻔُﻮﺭٌ ﺭَّﺣِﻴﻢٌ
তোমাদের জন্যে হারাম করা হয়েছে মৃত জীব-জন্তু, রক্ত ও শুকরের মাংস কে।এবং যেসব জন্তু আল্লাহ ছাড়া অন্যের নামে উৎসর্গকৃত হয়।এবং যা কন্ঠরোধে মারা যায়।যা আঘাত লেগে মারা যায়।যা উচ্চ স্থান থেকে পতনের ফলে মারা যা। যা শিং এর আঘাতে মারা যায়। এবং যাকে হিংস্র জন্তু ভক্ষণ করেছে।কিন্তু যেটিকে তোমরা যবেহ করেছ।(তার হুকুম ভিন্ন)
যে জন্তু যজ্ঞবেদীতে যবেহ করা হয় এবং যা ভাগ্য নির্ধারক শর দ্বারা বন্টন করা হয়।এসব গোনাহর কাজ।আজ কাফেররা তোমাদের দ্বীন থেকে নিরাশ হয়ে গেছে।অতএব তাদেরকে ভয় করো না বরং আমাকে ভয় কর। আজ আমি তোমাদের জন্যে তোমাদের দ্বীনকে পূর্নাঙ্গ করে দিলাম।তোমাদের প্রতি আমার অবদান সম্পূর্ণ করে দিলাম এবং ইসলামকে তোমাদের জন্যে দ্বীন হিসেবে পছন্দ করলাম।অতএব যে ব্যাক্তি তীব্র ক্ষুধায় কাতর হয়ে পড়ে; কিন্তু কোন গোনাহর প্রতি প্রবণতা না থাকে, তবে নিশ্চয়ই আল্লাহ তা’আলা ক্ষমাশীল।(সূরা মায়েদাঃ৩)

উপরোক্ত আয়াত সমূহের ব্যখ্যা প্রদাণ পূর্বক মুফতী শ'ফী রাহ বলেনঃ
মজবুরীর অবস্থায় প্রয়োজন অনুসারে স্বাদ-আস্বাদন গ্রহণের ইচ্ছা ব্যতীত হারাম বস্ত ভক্ষণের অনুমতি রয়েছে।
উপরোক্ত বস্তু সেই সময়েও হারাম হবে।তবে জান বাঁচানোর স্বার্থে উক্ত হারামের গুনাহ সেই সময় রহিত হয়ে যায়।
(তাফসীরে মা'রিফুল কোরআন-উর্দু- ১/৪২৫)

জরুরতের সময় হারাম ভক্ষণ করা ওয়াজিব না মুবাহ(বৈধ)?এ সম্পর্কে চার মাযহাব সম্বলীত সর্ব বৃহৎ ফেক্বাহী গ্রন্থ 
"আল-মাওসু'আতুল ফেক্বহিয়্যায় "বর্ণিত রয়েছে,
ذَهَبَ الْحَنَفِيَّةُ - فِي ظَاهِرِ الرِّوَايَةِ - وَالْمَالِكِيَّةُ وَالشَّافِعِيَّةُ - فِي أَحَدِ الْوَجْهَيْنِ - وَالْحَنَابِلَةُ - عَلَى الصَّحِيحِ مِنَ الْمَذْهَبِ - إِلَى أَنَّ الْمُضْطَرَّ يَجِبُ عَلَيْهِ أَكْل الْمَيْتَةِ 
হানাফি মাযহাবের জাহির রেওয়ায়াত অনুসারে, মালিকী ও শা'ফী মাযহাবের এক বিবরণ অনুযায়ী এবং বিশুদ্ধ মতানুযায়ী হাম্বলী অনুযায়ী, মুযতার( অনন্যোপায়) ব্যক্তির উপর উক্ত হারাম ভক্ষণ করে নিজ জান বাঁচানো ওয়াজিব।
যদি সে না খেয়ে মৃত্যু বরণ করে, তাহলে সে আত্মহত্যা কারী হিসেবে বিবেচিত হবে।
আরোও বর্ণিত রয়েছে,
وَقَال كُلٌّ مِنَ الْحَنَابِلَةِ وَالشَّافِعِيَّةِ - فِي وَجْهٍ - وَأَبُو يُوسُفَ - فِي رِوَايَةٍ عَنْهُ - إِنَّ الْمُضْطَرَّ يُبَاحُ لَهُ أَكْل الْمَيْتَةِ، وَلاَ يَلْزَمُهُ، 
এক বিবরণ অনুযায়ী সমস্ত হাম্বলী ও শা'ফী মাযহাবের অনুসারীগণ এবং এক রেওয়ায়াত অনুযায়ী ইমাম আবু-ইউসুফ রাহ, জরুরতের সময় হারাম ভক্ষণকে জায়েয বলে থাকেন।তাদের মাযহাব মত ভক্ষণ অত্যাবশ্যকীয় নয়।(২৮/১৯৬-১৯৭)

প্রথম মতটি জাহির রেওয়ায়াতের মাধ্যমে প্রমাণিত হওয়ায় সেটিই গ্রহণযোগ্য।

সু-প্রিয় সত্যান্বেষী! 

প্রয়োজনে জান বাঁচানো ওয়াজিব।তবে কেমন প্রয়োজন? প্রয়োজন এমন হতে হবে যা ছাড়া জীবননাশের আশংকা থাকবে।বা জীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠবে।পরীক্ষায় দেখাদেখি বা বলাবলির বিষয়টা আলোচিত "জরুরত/প্রয়োজন "এর আওতাধীন নয়।বরং পরীক্ষা হয়ে থাকে মেধা যাচাইয়ের জন্য।পরীক্ষার হলে নিরবতা অবশ্য পালনীয় একটা বিষয়।এখন এখানে জান বাঁচানোর প্রসঙ্গ নিয়ে আসাটা পরীক্ষার মূল উদ্দেশ্যর পরিপন্থী ও অপ্রাসঙ্গিক।এবং এরকম ভাবে তর্ক-বিতর্ক ও দলিল-প্রমান পেশ করে,দেখাদেখি -কে-জায়েয প্রমাণিত করা, শরিয়তের ক্বায়দা বা ফিকহী মূলনীতিকে বিকৃতি করার নামান্তর।
যা থেকে আমাদের বেছে থাকা অবশ্যই উচিৎ ও কর্তব্য।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

0 votes
1 answer 51 views
...