+1 vote
32 views
in সুন্নাহ-বিদ'আহ (Sunnah and Bid'ah) by (3 points)
closed by
আসসালামুয়ালাইকুম। অনেক মুরুব্বি বলে থাকেন রাতের বেলা নখ কাটা উচিত নয়। আমার বেশিরভাগ সময়ই রাতের বেলায়ই নখ কাটার কথা মনে পড়ে। যেহেতু প্রচলন আছে রাতে নখ কাটতে নেই সেহেতু আমার নখ বড় হতেই থাকে। ইসলামী শরিয়াহতে কি রাতে নখ কাটা নিয়ে কোন নিষেধাজ্ঞা আছে?
closed

1 Answer

0 votes
by (16,120 points)
selected by
 
Best answer
উত্তর
وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته 
بسم الله الرحمن الرحيم 

রাতে নখ, চুল, গোঁফ ইত্যাদি  কাটা যাবে না।
রাতে গাছের পাতা ছেঁড়া যাবে না।
রাতে বাঁশ কাটা যাবেনা
অনেক এলাকার মানুষের মাঝেই  এগুলো এবং রাতকেন্দ্রিক  এরকম আরো কিছু বিষয়ের প্রচলন রয়েছে। কিন্তু এসব মনগড়া কথা, শরীয়তে এর  কোনো ভিত্তি নেই। কুরআন-হাদীসের  কোথাও এ ধরনের কোনো নিষেধাজ্ঞা  নেই। সুতরাং এ ধরনের বিশ্বাস পোষণ করা যাবে না।
,
এগুলো আমাদের দেশে প্রচলিত যেসমস্ত কুসংস্কার রয়েছে সেগুলোর মধ্যে একটি। আপনি রাতে নখ কাটতে পারবেন, চুল কাটতে পারবেন, ঝাড়ুও দিতে পারবেন, এটি গর্হিত কাজ নয়। তবে সাধারণত মানুষ এ কাজগুলো অর্থাৎ পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার কাজগুলো দিনের বেলায় করে থাকেন। যেহেতু রাতকে মানুষেরা বিশ্রামের জন্যই রাখেন। 
,
কুরআনে কারীমের মধ্যে সূরা নাবার ১০ নং আয়াতে আল্লাহ্ সুবহানাহু ওয়া তা’আলা বলেন,

وَجَعَلْنَا اللَّيْلَ لِبَاسًا
“আর রাতকে আমি পোশাকের মতো করেছি।” যাতে করে মানুষ ঘুমাতে পারেন, আরাম করতে পারেন এজন্য। 
,
তাই এ কাজগুলো অনেকেই দিনের বেলায় করে থাকেন। কারণ, রাতে করতে গেলে অনেকসময় ভুলত্রুটি হয়ে যেতে পারে। 
,
আরেকটি কারণে লোকেরা এই কাজগুলো রাতে করে থাকেন আর সেটি হচ্ছে আগেকার যুগে রাতে নখ কাটা, চুল কাটা এবং ঝাড়ু দেয়ার কাজটি কঠিন ছিল। সেখানে নখ কাটার এবং চুল কাটার পদ্ধতিগুলোও জটিল ছিল, ঝাড়ু দেয়ার পদ্ধতিও সহজ ছিল না। 
,
কারণ, রাতে অন্ধকার থাকতো; এবং সেখানে আলোর বন্দোবস্ত করারও কোনো ব্যবস্থা ছিল না। তখন কুপি বাতি জ্বালানো হতো অথবা সামান্য কোনো আলোর ব্যবস্থা অর্থাৎ আগুন জ্বালানো হতো তাই এ কাজগুলো রাত্রে সম্পাদন করা অনেক কঠিন ছিল। এ কারণেই সম্ভবত লোকেরা এ কাজগুলো রাত্রে করতে অপছন্দ করেছেন অপছন্দ করেছেন। কিন্তু আলহামদুলিল্লাহ্ এখন রাত আর দিনের মধ্যে তেমন কোনো পার্থক্য নেই অর্থাৎ রাতেও সকল প্রকার কাজ চলে এবং দিনেও সকল প্রকার কাজ চলে। 
,

সুতরাং, এ কথাটি এখন কুসংস্কারের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত হবে। কারণ, যেহেতু শরিয়তের বিধানে অর্থাৎ কুরআন এবং হাদিসে এ কাজগুলো রাতে করা যাবে না এমন কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই৷ তাই এ কথাগুলো বলার আর এখন কোনো অবকাশ নেই।
,
হাদীস শরীফে এসেছে  
وَحَدَّثَنِي مُحَمَّدُ بْنُ حَاتِمٍ، وَحَسَنٌ الْحُلْوَانِيُّ، قَالاَ حَدَّثَنَا يَعْقُوبُ، - وَهُوَ ابْنُ إِبْرَاهِيمَ بْنِ سَعْدٍ - حَدَّثَنَا أَبِي، عَنْ صَالِحٍ، عَنِ ابْنِ شِهَابٍ، أَخْبَرَنِي أَبُو سَلَمَةَ بْنُ عَبْدِ الرَّحْمَنِ، وَغَيْرُهُ، أَنَّ أَبَا هُرَيْرَةَ، قَالَ إِنَّ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم قَالَ " لاَ عَدْوَى وَلاَ طِيَرَةَ وَلاَ صَفَرَ وَلاَ هَامَةَ " . فَقَالَ أَعْرَابِيٌّ يَا رَسُولَ اللَّهِ . بِمِثْلِ حَدِيثِ يُونُسَ .

মুহাম্মাদ ইবনু হাতিম ও হাসান আল হুলওয়ানী (রহঃ) আবূ সালামাহ ইবনু আবদুর রহমান ..... আবূ হুরাইরাহ (রাযিঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ সংক্রামক ব্যাধি, কুলক্ষণ, অনাহারে পেট কামড়ানো পোকা ও হামাহ- এসবের কোন অস্তিত্ব নেই। সে সময় জনৈক বেদুঈন আরব বলল, হে আল্লাহর রসূল! বর্ণনাকার ইউনুস (রহঃ) কর্তৃক রিওয়ায়াতকৃত হাদীসের অবিকল। (মুসলিম শরীফ ৫৬৮২ ইসলামিক ফাউন্ডেশন ৫৫৯৫)


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...