0 votes
47 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (14 points)
edited by
১/ "গোলাম মোর্শেদ পান্থ "এই নামটি রাখা যাবে কী যাবে না এটা কী ইখতেলাফি মাসয়ালা।এটা নিয়ে কী হানাফি, শাফেয়ী,মালেকী,হাম্বলি,আহলে হাদিস বা অন্য দলের লোকদের মধ্যে কী মতবিরোধ রয়েছে।আমাকে একটু বিস্তারিত জানান।আমি এটা নিয়ে অনেক চিন্তিত।কারন আপনারা বললেন নামটা রাখা যাবে।আরেকজন মুফতী বলল এটা রাখা হারাম।তার যুক্তি এটা আল্লাহর নাম না।তাই তার গোলাম হওয়া মানে মোর্শেদের গোলাম হব কেন।আমি কী করব বুঝতে পারছি না।কোনটা ঠিক আর কোনটা বেঠিক সেটা কী করে বুঝব।যদি ভুল সিদ্ধান্ত নেই তাহলে সারা জীবন আমার গুনাহ হবে।

কী করব বলেন।আপনারা কী ১০০% নিশ্চিত। আপনাদের ফতোয়া ঠিক।নামটা রাখা যাবে।কোনো সমস্যা নেই।

আপনি যদি আমাকে সঠিক  নিশ্চয়তা দেন তাহলে আপনারটাই মানব।দয়া করে একটু সমাধান দিন।এই নামটা রাখলে যদি গুনাহ হয় আর আমি যদি মনে করি হচ্ছে না তখন আজীবন গুনাহ হবে।আর নামটা যদি সত্যি হারাম না হয় তবে তো সমস্যাই নেই।একটু দয়া করে সমাধান দিন। এই নামের মাসয়ালায় কী মাযহাবী আলেম ও আহলে হাদিস আলেম বা যেকোন আলেমদের মধ্যে ইখতেলাফ রয়েছে?

২/ জানাযার সালাত কী ৪ তাকবিরে পড়া হয়

1 Answer

0 votes
by (283,200 points)
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
সম্পর্কে কিছু হাদীস লক্ষণীয়--
وَعَنِ ابْنِ عُمَرَ - رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُمَا - قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: " «إِنَّ أَحَبَّ أَسْمَائِكُمْ إِلَى اللَّهِ: عَبْدُ اللَّهِ وَعَبْدُ الرَّحْمَنِ» ". رَوَاهُ مُسْلِمٌ.
‘আবদুল্লাহ ইবনু ‘উমার (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ আল্লাহ তা‘আলার নিকট তোমাদের নামসমূহের মধ্যে সবচেয়ে উত্তম নাম ‘আবদুল্লাহ এবং ‘আবদুর রহমান।সহীহ মুসলিম ৩৯-(৫৭০৯), তিরমিযী ২৮৩৩, আবূ দাঊদ ৪৯৪৯, ইবনু মাজাহ ৩৭২৮,

وَعَنْ سَمُرَةَ بْنِ جُنْدُبٍ - رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُ - قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: " «لَا تُسَمِّيَنَّ غُلَامَكَ يَسَارًا، وَلَا رَبَاحًا، وَلَا نَجِيحًا، وَلَا أَفْلَحَ، فَإِنَّكَ تَقُولُ: أَثَمَّ هُوَ؟ فَلَا يَكُونُ، فَيَقُولُ لَا» ". رَوَاهُ مُسْلِمٌ. وَفِي رِوَايَةٍ لَهُ، قَالَ: " «لَا تُسَمِّ غُلَامَكَ رَبَاحًا، وَلَا يَسَارًا وَلَا أَفْلَحَ وَلَا نَافِعًا» ".
সামুরাহ্ ইবনু জুনদুব (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ তুমি কখনো তোমাদের ‘‘গোলাম’’ (সন্তান)-এর নাম ‘ইয়াসার’, ‘রবাহ’, ‘নাজীহ’ ও ‘আফলাহ’ রেখ না। কেননা যখন তুমি তার নাম ধরে ডাকবে, আর সে উপস্থিত থাকবে না, তখন কেউ বলবে ‘‘নেই’’

মুসলিম-এর অপর বর্ণনায় রয়েছে, তিনি (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেছেনঃ তুমি তোমার গোলামের নাম ‘রবাহ’, ‘ইয়াসার’, ‘আফলাহ’ কিংবা নাফি‘ নাম রেখ না।সহীহ : মুসলিম ১১-(২১৩৬), আহমাদ ২০২৪৪,

সুপ্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনি ভাই/বোন!
না, আমাদের নিশ্চয়তা নাই।সুতরাং আপনি যিনি নিষেধ করেছেন, তার কথা অনুযায়ী আ'মল করুন।এটাই আপনার জন্য কল্যাণকর হবে।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...