0 votes
17 views
in হালাল ও হারাম (Halal & Haram) by (2 points)
closed by
আসসালামু আলাইকুম,, আমার দেবর এবং জা উভয়ই টেবিল টেনিস প্লেয়ার,, আমার প্রশ্ন হল-

১)এই খেলার মাধ্যমে উপার্জন কি হালাল হবে?ছেলে হোক বা মেয়ে..

২)পর্দার বিধান ক্ষুণ্ন করে একজন মেয়ের এই খেলা কি জায়েজ হবে?

৩)তাদের দেয়া কোনো গিফট নেয়া কি জায়েজ হবে?

৪)যৌথ পরিবারে থাকায় তাদের উপার্জনের অংশও আমার স্বামীর উপার্জনের সাথে মিশে যায়,, সেক্ষেত্রে আমাদের সবার খাওয়া,পড়া সব হারাম হয়ে যাবে??
closed

1 Answer

+1 vote
by (12,000 points)
selected by
 
Best answer

 

بسم الله الرحمن الرحيم

জবাব,

খেলা-ধুলা মানুষের জন্মগত স্বভাব। এর উদ্দেশ্য সাময়িক শরীর চর্চা। যা স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। বয়স ভেদে মানুষের শরীর চর্চার ধরনের পরিবর্তন হয়। কিন্তু সাময়িক শরীর চর্চার বদলে যদি তা কেবল সময়ের অপচয় হয়, স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হয়, যদি ঐ ব্যক্তি দ্বীন থেকে গাফেল হয়, দায়িত্ব বিস্মৃত হয় বা তাতে জুয়া মিশ্রিত হয়, তখন ঐ খেলা হারামে পরিণত হয়।

 

একদিন দু’জন আনছার ছাহাবী তীর নিক্ষেপ প্রতিযোগিতা করছিলেন। হঠাৎ একজন বসে পড়লেন। তখন অপরজন বিস্মিত হয়ে বললেন, কি ব্যাপার। কষ্ট হয়ে গেল নাকি? জবাবে তিনি বললেন, ‘আমি রাসূলুল্লাহ (ছাঃ)-কে বলতে শুনেছি যে, প্রত্যেক বস্ত্ত যা আল্লাহর স্মরণকে ভুলিয়ে দেয়, সেটাই অনর্থক (لَهْو) … (নাসাঈ, ছহীহাহ হা/৩১৫)।

এতে বুঝা যায় যে, বৈধ খেলাও যদি আল্লাহর স্মরণকে ভুলিয়ে দেয়, তবে সেটাও জায়েয হবে না। ইমাম বুখারী (রহঃ) অনুচ্ছেদ রচনা করেছেন, ‘প্রত্যেক খেলা-ধুলা (لَهْو) বাতিল, যদি তা আল্লাহর আনুগত্য থেকে উদাসীন করে দেয়’ (ফাৎহুলবারী ‘অনুমতি গ্রহণ’ অধ্যায় ৭৯, অনুচ্ছেদ ৫২; ১১/৯৪ পৃঃ)।

হাদীস শরীফে এসেছে 

عن أبي ہریرۃ رضي اللّٰہ عنہ قال: قال رسول اللّٰہ صلی اللّٰہ علیہ وسلم: من حسن إسلام المرء ترکہ ما لا یعنیہ۔ (سنن الترمذي، أبواب الزہد / باب ما جاء من تکلّم بالکلمۃ لیضحک الناس ۲؍۵۸ رقم: ۲۲۱۷، شعب الإیمان للبیہقي ۴؍۲۵۵، المعجم الکبیر ۳؍۱۲۸ رقم: ۲۸۸۶)

 

 

রাসুল সাঃ বলেন যে ইসলামের সৌন্দর্যতা হলো অনর্থক কাজ করা থেকে বিরত থাকা।

قال العلامۃ الحصکفي: کل ما أدی إلی ما لا یجوز؛ لا یجوز۔ (الدر المختار، کتاب الحظر والإباحۃ / فصل في اللبس ۶؍۳۶۰ دار الفکر بیروت)

যেই কাজ নাজায়েজ দিকে ধাপিত করে,সেটাও নাজায়েজ হয়ে যায়।

আরো জানুনঃ

https://ifatwa.info/3102/

https://www.ifatwa.info/673

যেই খেলার সাথে হারাম কিছু মিশ্রিত হয়, অথবা যার ফলাফল হারাম। যেমন কোন খেলায় পর্দার লংঘন হওয়া , গান বাজনা অন্তর্ভুক্ত হওয়া, জুয়া অন্তভুক্ত হওয়া ইত্যাদী। অথবা খেলাটি হারামের মাধ্যম হওয়া। অর্থাৎ ঐ খেলাকে কেন্দ্র করে হারামের প্রচার প্রসার ঘটা। এই সব ক্ষেত্রে ঐ খেলায় অংশগ্রহন সর্ম্পূন নাজায়েজ।

কিছু খেলা আছে যা শর্ত সাপেক্ষে হালাল। শর্ত লংঘিত হলে হারাম। এই শ্রেনীর খেলা গুলোর মধ্যে আছে ফুটবল, ক্রিকেট, টেনিস, ভলিবল, ইত্যাদী। শর্তগুলো হল :

১. আল্লাহর স্মরন থেকে গাফেল করতে পারবে না। যেমন খেলায় নির্ধারিত সময়ের কারনে সালাতে বিঘ্ন ঘটা। খেলোয়াড় বা দর্শক উভয়ই।

২. খেলা জুয়ামুক্ত হতে হবে।

৩.- এমন কোন কিছুকে সম্মান করতে বাধ্য করা যার সম্মান ইসলাম করে না।

৪. পর্দা লংঘন হতে পারবে না, খেলোয়াড়ারদের বা দর্শক উপস্থিতি যেখানে পর্দার লংঘন নিশ্চিত করে।

৫. এই জাতীয় খেলা খেলোয়াড়ের সম্মানের বিষয় হতে পারবে না।

৬. খেলোয়াড়ের জীবিকার উপায় হতে পারবে না। অর্থাঃ খেলাকে পেশা হিসাবে নেওয়া যাবে না, বরং নিছক খেলা হিসাবেই রাখতে হবে।

বস্তুত শর্তের কোন সীমাবদ্ধতা নেই। প্রকৃত বিষয় হল খেলা এমন কোন বিষয় নয় যার কারনে শরীয়তে কোন বিধান লংঘনকে বরদাশত করা যেতে পারে, চাই তা খেলোয়াড়দের মধ্যে হোক, আর আয়োজন কিংবা দর্শকদের মধ্যে হোক। অর্থাৎ ঐ খেলা যদি নিশ্চিত ভাবে কোন হারামের দিকে মানুষকে প্রভাবিত করে তবে তা জায়েজ হবে না।

সু-প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনী বোন/ভাই!

১.উপরোক্ত শর্ত সাপেক্ষে টেনিস খেলা জায়েয আছে তবে যদি তারা উক্ত খেলাকে পেশা বানিয়ে টাকা উপার্জন করে তবে তা পরিহার করাই শ্রেয়।খেলাকে নিছক খেলা হিসাবেই রাখতে হবে।

২.পর্দার বিধান লঙ্ঘন করে উক্ত খেলা জায়েয হবে না।

৩.যদি আপনি নিশ্চিত হোন যে তারা আপনাকে উক্ত খেলার ইকামের টাকা থেকেই গিফট দিচ্ছে তাহলে তা না নেওয়াই  উচিত। তবে অন্য হালাল টাকা দিয়ে ক্রয় করে কোন গিফট দিলে তা নেওয়া জায়েয আছে।

৪.যদি আপনার স্বামীর ইনকাম হালাল হয় ও অধিকাংশ যৌথ উপার্জন যা দিয়ে সংসার চলে, হালাল হয় তাহলে সেক্ষেত্রে সবার খাওয়া পরাকে হারাম বলা যাবে না এবং তাদের উপার্জিত টাকাকে হালাল টাকার সাথে মিশ্রিত না করাই উচিত । তবে আপনার  দেবর এবং জা কে বুঝানোর চেষ্টা করতে হবে তারা যেন উক্ত খেলাকে পেশা হিসেবে বেচে না নেই। আল্লাহ তাদের কে দ্বীনের সহীহ বুঝ দান করুন।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী মুজিবুর রহমান
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...