0 votes
17 views
in সালাত(Prayer) by (17 points)

আসসালামু আলাইকুম শাইখ। বর্তমানে করোনা পরিস্থিতিতে মসজিদগুলোতে মুসল্লিরা বিশেষ পদ্ধতিতে দূরত বজায় রেখে কাতার করছেন। আমার এক আত্মীয় যিনি নর্থ আমেরিকায় থাকেন উনি যেসব আলেমদের থেকে শুনেছেন তারা বলেছে এটা সম্পূর্ণ বিদআত, রাসূল () থেকে এর পক্ষে কোন দলিল নেই। উনি জানতে চেয়েছেন কোন কোন দলিলের ভিত্তিতে এভাবে কাতার ফাঁক রেখে সালাত জামাআতের সাথে আদায় করা জায়েজ বলা হচ্ছে? আমি যেহেতু আলেম নই, বিজ্ঞ বিবেচনায় আপনাদের কাছে প্রশ্নের উত্তরটা চাচ্ছি। জাজাকাল্লাহু খাইরান।

1 Answer

0 votes
by (32.3k points)
বিসমিহি তা'আলা

করোনা পরিস্থিতি সম্পূর্ণ ভিন্ন ধরণের নতুন এক পরিস্থিতি।সারা বিশ্বে একই যুগে এমন ভয়ঙ্কর মহামারির কোনো নজীর নেই।সুতরাং বর্তমান পরিস্থিতি এক করুণ মুশকিল জরুরী পরিস্থিতি।

হাদীসে এসেছে কু্ষ্ঠ রোগী থেকে তোমরা এভাবে পলায়ন করো যেভাবে হিংস্র প্রাণী থেকে লোকজন পলায়ন করে।

হযরত আবু-হুরায়রা রাযি থেকে বর্ণিত,

 عن أبي هريرة، يقول: قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: «لا عدوى ولا طيرة، ولا هامة ولا صفر، وفرمن المجذوم كما تفر من الأسد»

রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেন,আল্লাহর হুকুম ব্যতীত কোনো রোগ সংক্রামক হতে পারে না।কুলক্ষণ বলতে কিছু নেই।পাখী উড়ানোতে সুলক্ষণ-কুলক্ষণের কোনো পরিচয় নেই।সফরের মাস অশোভিত বলতে কিছু নেই।তোমরা কুষ্ঠ রোগী থেকে ঠিক সেভাবে পলায়ন করো যেভাবে সিংহ থেকে পলায়ন করা হয়।(সহীহ বুখারী-৫৭০৭)

কুষ্ঠ রোগীকে পরিচয় করা যেত, কিন্তু করোনা আক্রান্ত রোগীকে পরিচয়ের কোনো আলামত নেই।আপনার পাশে যেই রয়েছে, আশঙ্কা রয়েছে তার কাছেও করোনা থাকতে পারে।এই করোনা আবার ছয় ফুট দূরে আক্রমণ করতে পারেনা।সুতরাং সর্বদা কারো কাছ থেকে ছয় ফুট দূরে থাকা মানে রাসূলুল্লাহ সাঃ এর ঐ হাদীসের উপর আ'মল করা যেখানে রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেছেন,তোমরা কুষ্ঠ রোগী থেকে ঠিক ঐভাবে পলায়ন করো যেভাবে বাঘ থেকে পলায়ন করা হয়।কেননা আল্লাহর হুকুমেই কুষ্ঠ রোগ সংক্রামক হয়ে থাকে।যদি আল্লাহ তাকে নিষেধ করেন, তখন সে আর সংক্রামক হতে পারে না।যেমন আগুনকে অাল্লাহ জ্বালানোর নির্দেশ দিয়েছেন,সে সবকিছুকে জ্বালিয়ে ফেলে,কিন্তু যখন আল্লাহ তা'আলা ইবরাহিম আঃ সম্পর্কে আগুনকে ন জ্বালানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন,তখন আগুন আর জ্বালায়নি।

তাছাড়া ফুকাহায়ে কেরাম কুষ্ঠ রোগীদের কে মসজিদে যেতে নিষেধ করেছেন।এখন তো সম্ভাবনাময় সকলই করোনা আক্রান্ত।তাই বলে তো সবাইকে আর মসজিদে যেতে নিষেধ করা যায় না।তাই বিকল্প রাস্তা হিসেবে ফুকাহায়ে কিরাম ডাক্তারদের স্বাস্থ্যবিধিকে অনুসরণ করে মহা গুরুত্বপূর্ণ বিধান নামাযকে জামাতের সাথে আদায় করার পরামর্শ দিয়েছেন।কেননা নতুবা মনজিদকেই সম্পূর্ণরূপে বন্ধ ঘোষনা দিতে হতো।

এটা নিছক নিরুপায় হয়ে মসজিদের জামাতকে জারি রাখার একটি পায়তারা মাত্র।সুতরাং এমন অসহায় মূলক পরিস্থিতি দলীল প্রমাণ অন্বেষণের উপযোগী নয়।

আল্লাহু আ'লাম

অনুলিখনে
মুফতী ইমদাদুল হক

ইফতা বিভাগ, Iom.

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনার দ্বীন সম্পর্কীয় প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য রয়েছে আমাদের  অভিজ্ঞ ওলামায়কেরাম ও মুফতি সাহেবগনের একটা টিম যারা ইনশাআল্লাহ প্রশ্ন করার ২৪-৪৮ ঘন্টার সময়ের মধ্যেই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন।

...