0 votes
7 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (6 points)
অাসসালামু অালাইকুম ওয়া রহমাতুল্লহি ওয়া বারকাতুহ।

১.অামার বাবা মায়ের ২ দুজনেরই হারাম উপার্জন। অামি এখন IOM থেকে অালিম কোর্স করছি।অামার ইচ্ছা  অাছে অনলাইনে বা অফলাইনে অারবি শিক্ষক হিসেবে খেদমত করার ইনশাআল্লাহ।অামার রব যাতে আমার  উপর খুশি হোন, এটাই অামার প্রধান  এবং একমাত্র নিয়্যাত।অামাকে একটা দ্বীনদার পরিবারে বিয়ের মিনিমাম খরচ করার টাকাও হালাল উৎস থেকে অাসার কোনো উপায় নেই।এবং একটু দান সদকাহও করতে পারি না,খুবই টেনশান কাজ করে।সর্বক্ষণ এই টেনশান থেকে অামার  ভিতরে  যদি এই নিয়্যাত চলে অাসে যে, অাল্লাহ কে খুশি করার পাশাপাশি  হালাল টাকা উপার্জন করার ঝোঁক  থাকলো।তাহলে নিয়্যাত টা সহীহ হবে?

২. অামার অাম্মুর এনজিওতে চাকরী।অাম্মুর টাকাও কি অামার জন্য হালাল? প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে নিতে পারব?

৩. অামি অাপনাদের দেওয়া উত্তরে পেয়েছিলাম, অাামার বিয়ের জন্য যদি খরচ  করতে হয়, তাহলে ধার করে নিতে পারবে। যে ধার দিলো, তাকে যখন ফেরত দিতে যাবে,অাব্বুর টাকা কি ধার প্রদানকারীর জন্য হালাল হবে?

1 Answer

0 votes
by (145,240 points)

ওয়া আলাইকুমুস-সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু। 
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
ব্যবসা বানিজ্যবৈধ। আল্লাহ তা'আলা বলেন,
( وَأَحَلَّ اللَّهُ الْبَيْعَ وَحَرَّمَ الرِّبا )
আল্লাহ ব্যবসাকে হালাল করোছেন এবং সুদকে হারাম করেছেন।(সূরা বাকারা-২৭৫)
يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُواْ لاَ تَأْكُلُواْ أَمْوَالَكُمْ بَيْنَكُمْ بِالْبَاطِلِ إِلاَّ أَن تَكُونَ تِجَارَةً عَن تَرَاضٍ مِّنكُمْ وَلاَ تَقْتُلُواْ أَنفُسَكُمْ إِنَّ اللّهَ كَانَ بِكُمْ رَحِيمًا
হে ঈমানদারগণ! তোমরা একে অপরের সম্পদ অন্যায়ভাবে গ্রাস করো না। কেবলমাত্র তোমাদের পরস্পরের সম্মতিক্রমে যে ব্যবসা করা হয় তা বৈধ। আর তোমরা নিজেদের কাউকে হত্যা করো না। নিঃসন্দেহে আল্লাহ তা’আলা তোমাদের প্রতি দয়ালু।(সূরা নিসা-২৯)

ব্যবসা বানিজ্য পুরুষ-মহিলা সবার জন্য বৈধ।কেননা উপরোক্ত আয়াত সমূহে নারী পুরুষের কোনো পার্থক্য নেই।তবে নারীর জন্য শর্ত হলো,পর্দা রক্ষা করতে হবে।স্বামীর হক আদায় করতে হবে।হযরত যায়নাব রাযি ট্যানারির ব্যবসা করতে।এবং যা উপার্জন করতে, তার সিংহ ভাগ সদকাহ করে দিতেন।

আয়িশাহ্ (রাযি.) হতে বর্ণিত যে,
١٨٧٥ - «عن عائشة أن بعض أزواج النبي - صلى الله عليه وسلم - قلن للنبي - صلى الله عليه وسلم -: أينا أسرع بك لحوقا؟ قال: "أطولكن يدا "، فأخذوا قصبة يذرعونها، وكانت سودة أطولهن يدا، فعلمنا بعد أنما كان طول يدها الصدقة، وكانت أسرعنا لحوقا به زينب، وكانت تحب الصدقة» . رواه البخاري. وفي رواية مسلم، قالت: قال رسول الله - صلى الله عليه وسلم -: " «أسرعكن لحوقا بيأطولكن يدا ". قالت: وكانت يتطاولن أيتهن أطول يدا؟ قالت: فكانت أطولنا يدا زينب ; لأنها كانت تعمل بيدها وتتصدق» .
ভাবার্থ 
কোন এক সহধর্মিনী নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম -কে বললেনঃআপনার মৃত্যুর পর আমাদের মধ্য হতে সবার পূর্বে কে আপনার সাথে মিলিত হবে? তিনি বললেনঃ তোমাদের মধ্যে যার হাত সবচেয়ে লম্বা। তাঁরা একটি বাঁশের কাঠির মাধ্যমে হাত মেপে দেখতে লাগলেন। সওদার হাত সকলের হাতের চেয়ে লম্বা বলে প্রমাণিত হল। পরে [সবার আগে যায়নাব (রাঃ)-এর মৃত্যু হলে] আমরা বুঝলাম হাতের দীর্ঘতার অর্থ দানশীলতা। তিনি [যায়নাব (রাঃ)] আমাদের মধ্যে সবার আগে তাঁর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ) সাথে মিলিত হন এবং তিনি দান করতে ভালবাসতেন।(সহীহ বোখারী-১৪২০)মিশকাত-১৮৭৫


মোল্লা আলী কারী রাহ মিরকাত কিতাবের১৮৭৫ নং হাদীসের ব্যখ্যায় লিখেন,
 (تحب الصدقة) أي: إعطاءها، وكانت لها صناعة واكتساب معيشة باليد وهذا معنى آخر لليد، فأطولكن يدا بمعنى أفضلكن يدا؛ حيث إنها تأكل من كسب يدها وتتصدق بيدها من كد يدها
যায়নাব রাযি দান করতে ভালবাসতেন।যায়নাব রাযির পেশা ও উপার্জন ছিল,যায়নাব রাযি নিজ হাতের উপার্জন হতে খেতেন,এবং সদকাহ করতেন।

সু-প্রিয় পাঠকবর্গ ও প্রশ্নকারী দ্বীনী ভাই/বোন!
পর্দার আড়ালে থেকে ফরয নফল মুস্তাহাব ইবাদত গুলো আদায় পূর্বক ব্যবসা বাণিজ্য করা নারীদের জন্যও জায়েয আছে। আব্দুর রহমান ইবনে আউফ রাযি কে রাসূলুল্লাহ সাঃ ব্যবসার অনুমোদন দিয়েছিলেন।তাছাড়া উত্তরসূরীদের কে স্বাবলম্বী রেখে যাওয়া নফল ইবাদত থেকেও উত্তম বলে হাদীসে এসেছে।তবে সমস্ত ধ্যানধারণা সম্পদ উপার্জনে নিবিষ্ট করা যাবে না বরং আখেরাতের ফিকিরকে সর্বদা মনে রাখতে হবে।বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন- https://www.ifatwa.info/3410

(২)
যদি তাতে সুদের সংমিশ্রন থাকে, তাহলে সেই টাকা হারাম হিসেবেই গণ্য হবে। 

(৩) জ্বী হালাল হবে। 


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...