0 votes
669 views
in সালাত(Prayer) by (31 points)
আসসালামু আলাইকুম, ২রাকাত নামজের শেষ বৈঠকে বা নামাজের মাঝে বায়ু নির্গত হলে অযু করে এসে কি আবার প্রথম থেকে নতুন করে তাকবিরে তাহরিমা দিয়ে নামাজ শুরু করবো। নাকি নামাজ যে স্থানে নষ্ট হয়েছে সেখান থেকে শুরু করতে পারব?যেমন ২ য় রাকাতের বৈঠকে বায়ু চলে আসলো তখন কি অযু করে এসে ঐ বৈঠক থেকেই শুরু করবো?

1 Answer

0 votes
by (254,600 points)
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
https://www.ifatwa.info/4538 নং ফাতাওয়ায় আমরা বলেছি যে,
নামাযে অজু ভঙ্গ হলে, নিয়ম হল,কথা না বলে অজু করে এসে অবশিষ্ট নামাযকে সম্পন্ন করা।চায় জামাতের নামায হোক,বা একাকি হোক।ফরয নামায হোক বা সুন্নত হোক।পুরুষ কর্তৃক নামায পড়া হোক বা মহিলা কর্তৃক হোক।

সুতরাং আপনি যদি মহিলা হন,এবং ঘরের নামাযকে আদায় করে থাকেন,এবং নামাযে যদি অজু চলে যায়,তাহলে আপনি কোনো কথা না বলে,অজু করে এসে অবশিষ্ট নামাযকে আপনি সম্পন্ন করে নিবেন।তবে আপনি চাই পূনরায় নতুনভাবেও নামাযকে পড়তে পারবেন।

নামাযে যদি প্রায় অজু চলে যায়,তাহলে দেখতে হবে আপনি মা'যুর কি না?কে শরীতের দৃষ্টিতে মা'যুর এবং কে মা'যুর নয়? এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন-১৭৪৬


https://www.ifatwa.info/6488 নং ফাতাওয়ায় আমরা বলেছি যে,
হযরত আয়েশা রাযি থেকে বর্ণিত
عن عائشة، قالت: قال النبي صلى الله عليه وسلم: «إذا أحدث أحدكم في صلاته فليأخذ بأنفه، ثم لينصرف»
রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেন,যদি তোমাদের কারো নামাযে অজু চলে যায়,তাহলে সে যেন নিজ নাকে ধরে নামায ভেঙ্গে অজুর জন্য চলে যায়।(সুনানু আবি দাউদ-১১১৪)

নামাযে যদি কারো অজু ভঙ্গ হয়ে যায়,এবং ঐ ব্যক্তি যদি প্রথম কাতারে থাকে,তাহলে তিনি প্রত্যেক দুই ব্যক্তির মধ্যখানে ফাক সৃষ্টি করে তিনি মসজিদ থেকে বের হয়ে অজু করতে চলে যাবেন।কিংবা যদি সামন দিক দিয়ে যাওয়ার কোনো সুযোগ থাকে,তাহলে তিনি সামন দিক দিয়ে যাবেন।এক্ষেত্রে অনেককে ডিঙ্গিয়ে যাওয়ার রুখসত রয়েছে।এতে কোনো সমস্যা হবে না।কেননা এগুলো নিজের নামাযকে সংশোধন করার নিমিত্তেই করা হচ্ছে।যদি নামাযের কাতার থেকে বাহির হওয়ার কোনো সুযোগ না থাকে,বা কাতার সংখ্যায় অনেক থাকে,তাহলে এমতাবস্থায় বিধান হল,ঐ ব্যক্তি নামাযকে পরিত্যাগ করে আপন স্থানে বসে থাকবে।
ফাতাওয়ায়ে মাহমুদিয়্যাহ-৬/৫৭৯

বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন-4709


সু-প্রিয় পাঠকবর্গ ও প্রশ্নকারী দ্বীনী ভাই/বোন!
যদিও উচিৎ ছিল,চুপ বসে থাকা।তবে কেউ নামাযির সাদৃশ্য গ্রহণ করে নিলে,কাফির হবে না।হ্যা কেউ বিনা অজুতে নামায পড়াকে জায়েয বা হালাল মনে করলে সে অবশ্যই কাফির হবে।


সু-প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনী ভাই/বোন!
২রা'কাতি নামজের শেষ বৈঠকে বা নামাজের মাঝে বায়ু নির্গত হলে অযু করে এসে আবার প্রথম থেকে নতুন করে তাকবিরে তাহরিমা দিয়েও নামাজ পড়া যাবে।আবার যে রুকুনে নামাজ নষ্ট হয়েছিলো, সেখান থেকেও শুরু করা যাবে।

কারো হঠাৎ হলে তিনি নতুন করেই নামায শুরু করবেন।এটাই উনার জন্য উত্তম হবে।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...