0 votes
10 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (4 points)
১।কেউ যদি বলে যে,"আমি এইটা আর করবনা " এটা কী কসমের আওতায় পড়ে এবং পরবর্তীতে যদি সে ওইটা করে যেটা না করার কথা বলেছিল তাহলে কী তাকে কাফফারা দিতে হবে?

২।ধরেন,কেউ আল্লাহর কসম করে মিথ্যা কথা বলে তাছাড়া কুরআন শরীফ ছুয়ে যদি বলে যে,সে এটা আর করবেনা এবং পরর্তীতে সে সেটা করল।কিন্তু সে কাফফারা সম্পর্কে জানে না এবং অনেকদিন পর সে জানতে পারল তাহলে তার করণীয় কী?

1 Answer

0 votes
by (116,960 points)
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
(১)
কেউ যদি বলে "আমি এইটা আর করবনা " তাহলে এমন কথা দ্বারা কসম বা শপথ হবে না।এবং এদ্বারা কাফফারাও ওয়াজিব হবে না।

(৩)

কুরআন স্পর্শ করে কসম/শপথ করলে কি কাফ্ফারা ওয়াজিব হবে?এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন-  https://www.ifatwa.info/579



https://www.ifatwa.info/3101 নং ফাতাওয়ায় বর্ণিত রয়েছে যে,
কসম বা শপথ তিন প্রকার যথাঃ- 
(اليمين بالله ثلاثة أنواع) غموس، وهو الحلف على إثبات شيء، أو نفيه في الماضي، أو الحال يتعمد الكذب فيه فهذه اليمين يأثم فيها صاحبها، وعليه فيها الاستغفار، والتوبة دون الكفارة.
(১)গুমুস- অতীত বা বর্তমান কালে কোনো জিনিষকে প্রমাণিত করা বা না করার জন্য ইচ্ছা করে মিথ্যা কসম করা।এমন শপথকারী নিজে গোনাহগার হবে।তার উপর তাওবাহ ইস্তেগফার করা অত্যাবশ্যকীয়। তবে তার উপর কাফফারা আসবে না।
ولغو، وهو أن يحلف على أمر في الماضي، أو في الحال، وهو يظن أنه كما قال:، والأمر بخلافه بأن يقول: والله قد فعلت كذا، وهو ما فعل، وهو يظن أنه فعل، أو: ما فعلت كذا، وقد فعل، وهو يظن أنه ما فعل، أو رأى شخصا من بعيد فقال: والله إنه لزيد، وظنه زيدا، وهو عمرو، أو طائرا فقال: والله إنه لغراب، وظنه غرابا، وهو حدأة فهذه اليمين نرجو أن لا يؤاخذ بها صاحبها، واليمين في الماضي إذا كان لا عن قصد لا حكم له في الدنيا، والآخرة عندنا.
(২)লগু-অতীত বা বর্তমান কালে কোনো জিনিষ প্রমাণিত করা বা না করার জন্য শপথ করা।সে ধারণা করছে যে,সে যা বলছে তাই সত্য,অথচ বাস্তবতা হল,মিথ্যা।যেমন কেউ বলল,আল্লাহর কসম,আমি এমনটা করেছি।অথচ বাস্তবতা হল, সে করেনি।কিন্তু সে মনে করে করেছে যে,সে করোছে।এবং তার উল্টো বিষয়ও এমনই।
এবং কেউ দূর থেকে কোনো ব্যক্তিকে দেখে বলল,এতো যায়েদ।অথচ সে আমর।কিন্তু সে ধারণা করেছিল যে,উনি যায়েদ,ইত্যাদি ইত্যাদি।এমন শপথের ব্যাপারে বলা যায় যে,এই শপথের শপথকারীর কোনো প্রকার গোনাহ হবে না।অতীতকালের শপথ যদি কেউ মিথ্যার ইচ্ছায় না করে,তাহলে হানাফি ফিকহ অনুযায়ী দুনিয়া ও আখেরাতে এর কোনো শাস্তির বিধান আরোপিত হবে না।
ومنعقدة، وهو أن يحلف على أمر في المستقبل أن يفعله، أو لا يفعله، وحكمها لزوم الكفارة عند الحنث كذا في الكافي.
(৩)মুনআকিদাহ- ভবিষ্যৎকালে কোনো জিনিষ করা বা না করার শপথ করা।শপথ পূর্ণ না করলে এর কাফফারা অবশ্যই দিতে হবে।(ফাতাওয়ায়ে হিন্দিয়া-২/৫২)

সু-প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনী ভাই/বোন!
আল্লাহর কসম করে যদি কেউ মিথ্যা কথা বলে,এবং সেটা মুনাকিদাহ না হয়,তাহলে কাফফারা ওয়াজিব হবে না।তবে মুনআকিদাহ হলে অবশ্যই কাফফারা ওয়াজিব হবে।

কুরআন শরীফ ছুয়ে যদি বলে যে,সে এটা আর করবেনা এবং পরর্তীতে সে সেটা করল।তাহলেও কাফফরা ওয়াজিব হবে না।

যদি কেউ কাফফারা সম্পর্কে না জানে,এবং অনেকদিন পর কাফফারা সম্পর্কে জানতে পারে,তাহলে সে তখন কাফফারা আদায় করবে।
এ সম্পর্কে  বিস্তারিত জানুন-ভিজিট করুন-  https://www.ifatwa.info/1808


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

by (4 points)
edited by
উত্তরটি দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ

ﻓَﺎﺳْﺄَﻟُﻮﺍْ ﺃَﻫْﻞَ ﺍﻟﺬِّﻛْﺮِ ﺇِﻥ ﻛُﻨﺘُﻢْ ﻻَ ﺗَﻌْﻠَﻤُﻮﻥَ অতএব জ্ঞানীদেরকে জিজ্ঞেস করো, যদি তোমরা না জানো। সূরা নাহল-৪৩

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন উত্তর পাওয়া যায় কিনা। না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন।

Related questions

...