আইফতোয়াতে ওয়াসওয়াসা সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হবে না। ওয়াসওয়াসায় আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা ও করণীয় সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন

0 votes
59 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (5 points)
আসসালামু আলাইকুম শায়েখ।

কেউ যদি অশ্লীল চিন্তা করে বা অশ্লীল জিনিস দেখে এবং সেটার ফলে যদি তার উত্তেজনাবশত বীর্য বের হয়ে যায় কোনো প্রকার হস্তমৈথুন করা ছাড়াই তাহলে কি সেজন্যে হস্তমৈথুন করার মতো পাপ হবে? যদিও তার হস্তমৈথুন করার অভ্যাস নাই।

জাযাকাল্লাহ

1 Answer

0 votes
by (746,320 points)
ওয়া আলাইকুমুস-সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু। 
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
আলহামদুলিল্লাহ!
বিশিষ্ট ফকিহ আল্লামা রশিদ আহমদ রাহ বলেন,
হস্তমৈথুন সম্পূর্ণ  হারাম ও নাজায়েয । তবে কেউ কেউ যেমন আল্লামা হাসক্বফী রাহ মনে করেন,যিনা-ব্যবিচার থেকে বাঁচতে কেউ হস্তমৈথুন করে ফেললে তাকে শাস্তি দেয়া হবে না।(আহসানুল ফাতাওয়া-৮/২৪৯)

যদি হস্তমৈথুন ব্যতীত কামপ্রবৃত্তি থেকে নিষ্কৃতি পাওয়ার বৈধ কোনো সুযোগ থাকে,তাহলে সেটা করা ওয়াজিব।হ্যা কারো যদি কামপ্রবৃত্তি চড়াও হয়ে যায়,এবং সে এত্থেকে বাঁচতে হস্তমৈথুন করে নেয়,তাহলে আশা করা যায়,তাকে শাস্তি দেয়া হবে না।ইমাম আহমদ ও ইমাম শা'ফেয়ী রাহ থেকে মে'রাজুদ-দেরায়া কিতাবে বর্ণিত রয়েছে যে,পূর্ববর্তী যুগে অনুমতি থাকলেও বর্তমানে এর অনুমোদন নাই।হ্যা স্ত্রী বা বাদীর হাত দ্বারা হস্তমৈথুনের অনুমোদন রয়েছে।কোনো কোনো কিতাবে হস্তমৈথুনকে মাকরুহ বলা হয়েছে।আস-সিরাজ কিতাবে বর্ণিত রয়েছে,যদি কেউ হস্তমৈথুন দ্বারা নিজ অন্তরকে কামপ্রবৃত্তির অশান্তি থেকে প্রশান্ত করতে চায়,এমতাবস্থায় যে সে অবিবাহিত এবং তার কোনো বাদীও নাই বা সে বিবাহিত কিন্তু সহবাস করা তার জন্য অসম্ভব,তাহলে এমন পরিস্থিতিতে ইমাম আবুল লেইস সমরবন্দি রাহ মনে করেন,আশা করা যায়,এমতাবস্থায় তাকে শাস্তি দেয়া হবে না।তবে কেউ নিজ কামপ্রবৃত্তিকে উপভোগ করার নিমিত্তে এমনটা করলে, তার অবশ্যই অবশ্যই গোনাহ হবে।(রদ্দুল মুহতার-২/৩৯৯)বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন-https://www.ifatwa.info/4344

সু-প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনী ভাই/বোন!
হস্তমৈথুন সাধারণত হারাম ও নাজায়েয। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে ব্যতিক্রমও পাওয়া যায়।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন। এই প্রশ্ন ও উত্তরগুলো আমাদের ফেসবুকেও শেয়ার করা হবে। তাই প্রশ্ন করার সময় সুন্দর ও সাবলীল ভাষা ব্যবহার করুন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি স্থানীয় মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

Related questions

...