আইফতোয়াতে ওয়াসওয়াসা সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হবে না। ওয়াসওয়াসায় আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা ও করণীয় সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন

0 votes
39 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (7 points)
আসসালামু আলাইকুম,
১)দুইজন বাচ্চা আছে, একজন অটিস্টিক আর একজন ২বছর বয়স(স্বাভাবিক)। মা ছাড়া ওরা পায়খানা প্রস্রাব করে না।কারও সাথেই যায় না দরকার হলে কাপড়ে করে দিবে। ওদের পেটের সমস্যা হওয়ায় বারবর টয়লেট হয়। স্বলাতে দাড়ালে পাশে এসে কাঁদে। এমতাবস্থায় আমি স্বলাত ভেঙে ফেলতে পারবো?ভাঙলেও কিভাবে আবার শুরু করতে হবে? নতুন করে সেই রাকাআত শুরু করতে হবে?

২)আমার স্বামী ৭৫ কি.মি. দূরত্বে থাকেন। তিনি মাসে একবার বা দুইবার আসেন তিনদিন থাকেন। ঘরে স্বলাত আদায় করলে কসর করতে পারবে কি? (উল্লেখ্য আমি বাবার বাড়ি থাকি,তুলে নেয় নি)

জামাআতের গুরুত্বও এবং ইচ্ছেকৃত জামাত ত্যাগ করার শাস্তি জানাবেন।

৩) গুগল ম্যাপে দূরত্ব মাপা হলে অন্য পথ দিয়ে আসা হলে কোন মাধ্যমে দূরত্ব পরিমাপ করা যায়?

৪)ফযর স্বলাত কাযা হলে যদি বিতর তাহাজ্জুদের নিয়তে রেখে দেওয়া হয় ঘুম ভাঙার সাথে সাথে উঠে ফজরের পর বিতর পরবো নাকি আগে?হানাফি মতে আমি তিন রাকাআত  পড়ি কাযা বিতির কুনুতসহ।

৫)কাযা নামায কি শুধু ফরয ই পরতে হয়? অর্থাৎ ফযরের ফরয (২), জোহরের (৪), আসর (৪) এমন?

৬)যানবাহনে স্বলাত আদায়ের ক্ষেত্রে  আপনি ফতোয়া দিয়েছে তা ইশারায় আদায় করলে পুনরায় তা দোহরাতে হয় এক্ষেত্রে কি শুধু ফরয আদায় ই যথেষ্ট হবে? আর এমন পরিস্থতিতে তা কসর দূরত্বে না হলেও কি যানবাহনে আদায়ের পর দোহরানো যাবে।আমি কাযা করে ফেলি বাসায় এসে আদায় করি।বাস না থামলে।

1 Answer

0 votes
by (746,320 points)
ওয়া আলাইকুমুস-সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু। 
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
আলহামদুলিল্লাহ!
(১)
বাচ্ছা মৃত্যুর সম্মুখীন হলে বা বাচ্ছার মৃত্যু বা অঙ্গহানির আশংকা থাকলে, তখন মা নামাযকে কা'যা করতে পারবে। প্রশ্নের বিবরণমতে উক্ত সন্তানদ্বয়ের জন্য মায়ের নামায পরিত্যাগের কোনো সুযোগ নাই। বরং সঠিক সময়ে নামায পড়ার জন্য মাকে সর্বাত্বক চেষ্টা-প্রচেষ্টা অভ্যাহত রাখতে হবে। প্রয়োজনে সন্তানদের কান্নায় রেখে অতি সংক্ষেপে ফরযগুলো এবং সম্ভব হলে সুন্নতগুলোকেও পড়ে নিতে হবে। নামাযে দাড়ানোর পর যদি সন্তান বেশী কান্না করে, কান্না থামানোর কেউ না থাকে, এবং নামাযেরও যথেষ্ট ওয়াক্ত বাকী থাকে, তাহলে ঐ মা নামাযকে ভঙ্গ করে সন্তানের কান্না থামাতে পারবে। যেই নামাযকে মা ভঙ্গ করবে, পরবর্তীতে ওয়াক্তের ভিতর সম্ভব না হলে ওয়াক্তের পর এই নামাযকে মা পূনরায় আদায় করে নিবে।

الفقه الاسلامی وادلته:
"والشأن في المسلم دينا وعقلا أن يبادر إلى أداء الصلاة في وقتها، ويأثم بتأخيرها عن وقتها بغير عذر، كما بينا في فضل الصلاة، لقوله تعالى: {فإذا اطمأننتم، فأقيموا الصلاة، إن الصلاة كانت على المؤمنين كتابا موقوتا}، وتأخير الصلاة من غير عذر معصية كبيرة لا تزول بالقضاء وحده، بل بالتوبة أو الحج بعد القضاء.
ومن أخر الصلاة عن وقتها لعذر مشروع فلا إثم عليه، ومن العذر: خوف العدو، وخوف القابلة موت الولد، أو خوف أمه إذا خرجه رأسه، لأنه عليه السلام أخر الصلاة يوم الخندق."
(القسم الاول العبادات، الباب الثاني الصلاة، الفصل التاسع، المبحث الثاني قضاء الفوائت، معني القضاء وحكمه شرعاّ، ج: 2، ص: 1147، ط: دار الفكر)

(২)
আপনার স্বামী যেহেতু উনার বাড়ী থেকে সফর সমপরিমাণ দূরত্বে থাকেন, এখন এই দূর থেকে যতক্ষণ  উনি নিজ বাড়ীতে না যাবেন বা অন্য কোথাও ১৫ দিন অবস্থানের নিয়ত না করবেন, ততদিন পর্যন্ত আপনার স্বামী মুসাফির হিসেবে গণ্য হবেন। সুতরাং সফর সমপরিমাণ দূরত্ব থেকে আপনার স্বামী আপনার বাবার বাড়ী যদি তিন দিন অবস্থানের নিয়তে যান, তাহলে আপনার স্বামী মুসাফির হিসেবেই গণ্য হবেন। উনি কসর নামায পড়বেন।তে যদি আপনার বাবার বাড়ী এবং একই গ্রামে বা শহরে হয়, তাহলে আপনার স্বামী মুকিম হিসেবে গণ্য হবেন।


(৩) যেই রাস্তা দিয়ে অতিক্রম করা হবে, সেই রাস্তার দূরত্ব অনুযায়ী সফরের দূরত্বকে পরিমাপ করা হবে।

(৪) সময় থাকলে প্রথমে বিতির পড়বেন।তারপর ফজরের নামায পড়বেন।

(৫)সফরের হালতে সময় সুযোগ থাকলে সুন্নত পড়তে হবে। কেননা ফরয নামাযের কসরের বিধান এসেছে।সুন্নতে কসরের বিধান আসেনি।

(৬) কসর সমপরিমাণ দূরত্বে না হলেও বাসে আদায়কৃত ইশারার নামাযকে পূনরায় আদায় করতে হবে।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন। এই প্রশ্ন ও উত্তরগুলো আমাদের ফেসবুকেও শেয়ার করা হবে। তাই প্রশ্ন করার সময় সুন্দর ও সাবলীল ভাষা ব্যবহার করুন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি স্থানীয় মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

Related questions

0 votes
1 answer 76 views
...